ভাইরাল

নাইটি পরে দুপাশে আমরেলা নিয়ে পাশ করানোর দাবিতে ধর্নায় বসলেন স্যান্ডি সাহা! স্যান্ডির তুলনা স্বয়ং স্যান্ডি হাসতে হাসতে বলছেন নেটিজেনরা!

কিছুদিন আগে জনপ্রিয় ইউটিউবার স্যান্ডি সাহা উচ্চমাধ্যমিকের কিছু ধর্নায় বসা অকৃতকার্য ছাত্রীদের ট্রোল করেছিলেন। তাদের অকৃতকার্যতার জন্য তাদের ট্রোল করা হয়নি, তাদের ট্রোল করা হয়েছিল যাদের ইংরেজির সামান্য জ্ঞানটুকুও নেই তারাই কিনা ইংরেজিতে পাশ করাতে হবে বলে ধর্নায় বসেছে! ভিডিওতে দেখা যায় ইংরেজিতে সামান্য আমব্রেলা বানানটা ঠিক করে বলতে পারছেনা এদিকে তাদের দাবি তাদের উচ্চমাধ্যমিকে ইংরেজিতে পাশ করাতে হবে! ভিডিওটি শেয়ার করে ক্যাপশনে তাই স্যান্ডি সাহা লিখেছিলেন, ‘Umbrella’ বানান বলতে গিয়ে হেগে দিচ্ছে একে নাকি আবার ইংলিশে পাশ করাতে হবে, কেউ এদের মুখে Amrela ছুঁড়ে মার”। হ্যাঁ আমব্রেলাকে তারা উচ্চারণ করেছে আমরেলা।

আরেকটি ভিডিওতে দেখা যাচ্ছিলো একজন ইংরেজিতে অকৃতকার্য হওয়া শিক্ষার্থীর মা উদ্ভট দাবি করছেন যে,“ তার মেয়ে রীতিমতো ইংরেজিতে মেসেজ করে সে কি করে ইংরেজিতে ফেল করে! যারা বাংলায় মেসেজ করে তারা যখন পাশ করছে তাহলে ইংরেজিতে মেসেজ করা মেয়ে কি করে ফেল করতে পারে?” এই নিয়ে চারিদিকে ট্রোল মিমের ছড়াছড়ি। সবাই যখন বিষয়টি নিয়ে হাসি মজা করছেন তখন স্যান্ডি সাহা বসে থাকবেন তা কি করে হয়! তাই বিষয়টি নিয়ে স্যান্ডি সাহা ভিডিও করলেন ট্রোলিং ভিডিও।

ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে রাস্তাতে নাইটি পরে দুটো আমরেলা নিয়ে সে ধর্নায় বসে পড়েছে। উচ্চস্বরে তার দাবি তাকে পাশ করাতে হবে! তার এই আজব কায়দায় পাশ করানোর দাবি দেখে পথচলতি লোকজন থমকে দাঁড়িয়ে গিয়েছেন, তারপর তারা আবার হাসতে হাসতে বেরিয়ে ও গিয়েছেন। যাইহোক দুপাশে দুটো আমব্রেলা নিয়ে দাঁড়ানোর বিষয়টা বেশ নতুন লেগেছে সকলের। ভিডিওটি দেখে সকলেই মজা নিচ্ছেন। প্রচুর মানুষ এই ভিডিওতে লাইক কমেন্ট ও শেয়ার করেছেন, ভিডিওটি বর্তমানে রীতিমতো ট্রেন্ডিংয়ে রয়েছে। অনেকে কমেন্ট করে লিখেছেন যে, স্যান্ডি সাহা লাজবাব, তার তুলনা স্বয়ং তিনি! কেউ কেউ আবার বলছেন তিনি ঝোপ বুঝে কোপ মেরেছেন।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য কিছুদিন আগে একটি ভিডিও ভাইরাল হয় যেখানে দেখা যায় একজন ছাত্রী বলছে, তারা রাষ্ট্রবিজ্ঞান ইতিহাস লেটার পেয়েছে কিন্তু ইংরেজিতে তাদের ফেল করিয়ে দেওয়া হয়েছে‌। তারা ৬০ জন ছাত্র-ছাত্রী তাই ইংরেজিতে পাশ করানোর দাবিতে ধর্নায় বসে। এরপর তাদের জিজ্ঞেস করা হয় ইংরেজিতে বানান টা বলুন তো, তখন দেখা যায় সে খুব কনফিডেন্সের সাথে ভুল ইংরেজি বানান বলে, ‘Amrela’, ভুল ইংরেজি বানান বলার পরে তার মধ্যে কোনরকম অনুশোচনা দেখা যায় না বরং সে বলতে থাকে ‘বললাম তো’। এছাড়াও আরও একটি ভিডিওতে দেখা যায় একজন উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীকে এইচ এস এর ফুল ফর্ম কী জিজ্ঞেস করলে সে তা বলতে পারেনা, আরেকটি ভিডিওতে দেখা যায়, সাংবাদিক জিজ্ঞেস করছে তুমি এইচএস এ বসেছিলে? ছাত্রী বলে, না না এইচএস নয় হায়ার সেকেন্ডারি। অর্থাৎ এইচ এস আর হায়ার সেকেন্ডারি যে একই জিনিস তা সে জানে না।

Back to top button