ভাইরাল

এবার বাদাম কাকু খেলবেন ‘চু কিত কিত’! বাদাম কাকিমার কপাল পুড়লো অবশেষে বাদাম কাকু ‘আলু পোস্ত গার্লে’র সাথে জুটি বাঁধেছেন, ভাগ্য দেখে হিংসে করছেন বাংলার ছেলেরা

ভুবন বাদ্যকর কাঁচা বাদাম গান গেয়ে রাতারাতি ভাইরাল হয়ে যান। এরপর বিশ্বজোড়া খ্যাতি হয় তার পরিচিতি পান তিনি বাদাম কাকুরূপে। পরিচিতি ও খ্যাতির সাথে সাথে তার ভাগ্যও বদলে যায়। গ্রামে ঘুরে ঘুরে বাদাম বিক্রি করা মানুষটি সেলিব্রেটির তকমা পেয়ে যান। বিভিন্ন রিয়েলিটি শোয়ে তাকে সেলিব্রেটি হিসেবে ডেকে নিয়ে যাওয়া হয়। তার গান রেকর্ডিং হয়। তিনি iphone উপহার হিসেবে পান।

এক সময় মাটির কাঁচা বাড়িতে থাকতেন ভুবন বাদ্যকর, এরপর পরিচিতি পাওয়ার সাথে সাথে তার হাতে টাকা আসে তখন নিজের কাঁচা বাড়ির পাশে একটি পাকা বাড়ি তৈরি করেন তিনি, সেই বাড়িটিকে ছোটখাটো রাজমহল বলা যায়। সেই বাড়ির মধ্যে করা হয় ইন্টেরিয়ার ডিজাইন‌‌ও। এখানেই শেষ নয় নিজের একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলেছিলেন বাদাম কাকু সেই ইউটিউব চ্যানেল খুব অল্প সময়ের মধ্যেই বিখ্যাত হয়ে যায়। এক লক্ষ সাবস্ক্রাইবার পূর্ণ হয়ে যায় তার, ফলে ইউটিউব থেকে সিলভার প্লে বটন পেয়েছেন তিনি। এইভাবেই রাতারাতি ভাগ্যের চাকা ঘুরে গিয়ে জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন বাদাম কাকু।

তবে তার রাজমহলের মতো বাড়ি তৈরি হওয়ার সাথে সাথে বাড়ি সাজানোর জন্য বিভিন্ন রকম জিনিসপত্র আনা হয়েছে। এইবার একটি বহুমূল্যবান লকার তার বাড়িতে রাখা হলো। না এই লকারটি পয়সা খরচ করে কেনেনি খড়্গপুরের রাজ শামারিয়া নামের এক ব্যবসায়ী এই বহুমূল্য লকারটি বাদাম কাকুকে উপহার স্বরূপ দিয়েছেন। সেই ব্যবসায়ী নিজেই বাদাম কাকুর বাড়িতে গিয়ে লকারটি পৌঁছে দিয়েছেন।

অত্যাধুনিক প্রযুক্তিতে এই লকারটি তৈরি করা হয়েছে। ওই ব্যবসায় নিজের কারখানাতেই এই লকারটি তৈরি করা। লকারটির ওজন ২ কুইন্টালেরও বেশি হবে বলে জানা যাচ্ছে। চাবি ছাড়াও এই লকার সুরক্ষিত রাখা যায় এছাড়া এই লকারে আছে নম্বর সিস্টেম‌ও। রাজ সামারিয়া বলেছেন যে তিনি ভাইরাল সংগীত শিল্পী ভুবন বাদ্যকরকে অনেক আগেই এরকম একটি লকার দেবেন বলে প্রতিশ্রুত হয়েছিলেন। সম্প্রতি তিনি তার প্রতিশ্রুতি রক্ষা করে লকারটি ভুবন বাদ্যকরের বাড়িতে পৌঁছে দেন।

Back to top button