Story

কিভাবে অভিনেত্রী থেকে দিদি নাম্বার ওয়ান হয়ে উঠলেন রচনা ব্যানার্জি? ঘরে ঘরে সন্ধ্যায় টেলি পর্দায় সবচেয়ে বড় তারকা, রচনার দিদি নম্বর ১ হয়ে ওঠার কাহিনি একনজরে

সকল রিয়েলিটি শোয়ের মধ্যে দর্শকদের অন্যতম প্রিয় রিয়ালিটি শো হল জি বাংলা দিদি নাম্বার ওয়ান। দিদি নাম্বার ওয়ান এর সঞ্চালিকার ভূমিকায় আমরা প্রথম থেকে দেখে আসছি রচনা ব্যানার্জিকে। তার সঞ্চালনে এই শো আরো সুন্দর হয়ে ওঠে। প্রতিদিন বিকেল পাঁচটা বাজলেই বাড়ির মা কাকিমা এবং আরো অন্যান্য সদস্যরা টিভির সামনে বসে পড়েন এই রিয়ালিটি শো দেখার জন্য। সিনেমার পর্দায় আমরা অনেককেই রচনা ব্যানার্জিকে দেখেছি অন্যান্য রূপে। কিন্তু দিদি নাম্বার ওয়ান এর মঞ্চে রচনা ব্যানার্জি একেবারেই আলাদা। সকলের সঙ্গে একেবারে মিশে যান তিনি সকলের মনের কথা তিনি জানেন। এই জন্য দিদি নাম্বার ওয়ান এর মঞ্চ রচনা ব্যানার্জিকে আরো জনপ্রিয়তা এনে দিয়েছে। চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক রচনা ব্যানার্জি দিদি নাম্বার ওয়ান হয়ে ওঠার গল্পটা।

রচনা ব্যানার্জীর জন্ম ১৯৭৪ সালের ২ রা অক্টোবর। তার আসল নাম হল ঝুমঝুম ব্যানার্জি। অনেকেই হয়তো জানেন যে সিনেমা জগতে আসার পর প্রথম ছবিতে অভিনয় করার সাথে সাথেই তার নাম রচনা ব্যানার্জীতে বদলে যায়। অভিনয় জগতে প্রথম এসেছিলেন ১৯৯০ সালে। ৯০ দশকের জনপ্রিয় হিরোইনদের মধ্যে তিনি প্রথম সারিতে ছিলেন। তবে নিজের ক্যারিয়ারে শুধুমাত্র বাংলা ছবিতে অভিনয় করেনি রচনা ব্যানার্জি। ওড়িয়া, দক্ষিণী এছাড়াও হিন্দি ছবিতে অভিনয় করেছেন অভিনেত্রী। দক্ষিণী সুপারস্টার চিরঞ্জিত, উপেন্দ্র সাথে অভিনয় করার পাশাপাশি বলিউডের বিগ বি অর্থাৎ অমিতাভ বচ্চনের সঙ্গে অভিনয় করেছেন রচনা ব্যানার্জি। ৯০ দশকে বাংলার অন্যতম জনপ্রিয় জুটিদের মধ্যে একটি ছিল রচনা ব্যানার্জি এবং প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের জুটি। দুজন জুটি বেঁধে একাধিক বাংলা ছবিতে অভিনয় করেছে এবং সেই সব কটি ছিল সুপারহিট। একসঙ্গে মোট ৩৫ টি ছবিতে অভিনয় করেছেন দুজনে।

তবে এইসবের মধ্যে দিদি নাম্বার ওয়ানের রচনা ব্যানার্জিকে দর্শক বিপুল পরিমাণে ভালোবাসা দিয়েছেন। সঞ্চালিকা জায়গায় রচনা ব্যানার্জি ছাড়া যেন তারা আর কাউকে মেনে নিতেই পারেনা। এমনকি রচনা ব্যানার্জি ছাড়া এই সঞ্চালিতার দায়িত্বে একবার জুন মালিয়া, দেবশ্রী, শ্রাবন্তী ছিলেন কিন্তু রচনা ব্যানার্জি ছাড়া যেন এই শোয়ের পরিপূরক আর কেউ হয়ে উঠতে পারেনি। তাইতো রিয়ালিটি শো গুলির মধ্যে দিদি নাম্বার ওয়ান টিআরপি তালিকা সবথেকে শীর্ষস্থানে রয়েছে।

২০০৪ সালে ওড়িয়া অভিনেতা সিদ্ধার্থ মহাপাত্র কে বিয়ে করেছিলেন রচনা ব্যানার্জি। বিয়ের এক বছর পরেই তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। এরপরে তিনি বিয়ে করেন বাংলার পরিচালক প্রবল বসুকে। তাদের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে যার নাম প্রণীল। বর্তমানে প্রণীল মায়ের সঙ্গে থাকে। ২০১০ সালে একবার জি বাংলা ডান্স বাংলা ডান্সের বিচারকের আসনে ছিলেন রচনা ব্যানার্জি। সেখান থেকেই তাকে দিদি নাম্বার ওয়ান শো এর সঞ্চালিকা অফার দেয়া হয়। তিনি রাজি হয়ে যান এরপর থেকে তার যাত্রাটা তো আমরা সকলেই জানি।

রচনা তাঁর কেরিয়ারে অনেক গুলি পুরস্কার পেয়েছেন। কলাকার পুরস্কার, ভারত নির্মাণ পুরস্কার, পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার প্রদত্ত বিশেষ চলচ্চিত্র পুরস্কার, অরুষা রাষ্ট্রীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার, ইটিভি বাংলা চলচ্চিত্র পুরস্কার, টেলি সম্মান পুরস্কার। মাঝে ছেলে হওয়ার জন্য ২০০৭ সাল থেকে তিন বছরের জন্য ইন্ডাস্ট্রি থেকে ব্রেক নিয়েছিলেন তিনি। তারপরেও তার কাছে কাজের অফার এসেছিল কিন্তু মনের মত কাজ পাননি তিনি। তাই দিদি নাম্বার ওয়ান এর মঞ্চে পুরোপুরি নিজেকে সোপে দেন। দিদি নাম্বার ওয়ানের প্রচার ও তাকে সেরকম ভাবে করতে হয়নি এমনি জনপ্রিয়তা এসেছে। কারণ তিনি ঘুরে ঘুরে জনপ্রিয়তা পাওয়াতে একেবারেই বিশ্বাসী নন।

Back to top button