টলিউড

দীর্ঘ কয়েক বছর পর আবার বড় পর্দায় ফিরছেন টলিউডের এক সময়কার জনপ্রিয় অভিনেত্রী চুমকি চৌধুরী, মুখ খুললেন টলিউডের স্বজনপোষণ নিয়ে! এবার প্রসেনজিৎ-ঋতুপর্ণাকে নিয়ে মুখ খুললেন এই অভিনেত্রী

দীর্ঘ কয়েক বছর হয়েছে টলিউড এক সময়কার জনপ্রিয় অভিনেত্রী চুমকি চৌধুরী ইন্ডাস্ট্রি থেকে সরে এসেছেন। বাবা অঞ্জন চৌধুরীর মৃত্যুর পরেই নিজেকে ইন্ডাস্ট্রি থেকে সরিয়ে নিয়েছেন অভিনেত্রী। তবে আবারো ‘কুলফি’ ছবির হাত ধরে পর্দায় ফিরছেন চুমকি। তবে এবারে অভিনেত্রীকে নেগেটিভ চরিত্রে দেখা যাবে। এর আগে যে কটা ছবিতে কাজ করেছেন অভিনেত্রী সব কটিতেই তাকে খুব পজিটিভ চরিত্রে দেখা গিয়েছিল। তবে এই প্রথমবার পর্দায় নেগেটিভ চরিত্রে দেখা মিলবে অভিনেত্রীর।

এবারে এই সিনেমার প্রমোশনে গিয়েই সাক্ষাৎকারের মুখোমুখি হতে হয় অভিনেত্রীকে। প্রথমে অভিনেত্রীকে জিজ্ঞাসা করা হয় কেন এত বছর পর অভিনেত্রী আবারও পর্দায় ফিরলেন? উত্তরে চুমকি চৌধুরী জানান “গল্পটা বেশ আলাদা। যদিও আমি প্রথমে রাজি হইনি কারণ এটা নেগেটিভ চরিত্র, আমি আগে কখনও করিনি, দর্শক কীভাবে নেবে? তবে পরিচালক বর্ষালি জোরাজুড়ি করে, দর্শক ভালোবাসবে। ও আমাকে জোর করেই রাজি করিয়ে ফেলেছ।” এছাড়া অভিনেত্রীকে প্রশ্ন করা হয় এই প্রথমবার তাকে একটি নেগেটিভ চরিত্রে দেখা যাবে। তাকে বরাবরের শান্তশিষ্ট চরিত্রে দেখা গিয়েছে এই নতুন চরিত্রটা তার পক্ষে কতটা চ্যালেঞ্জিং? তার উত্তরে অভিনেত্রী জানান তার পক্ষে এই কাজ একদমই নতুন এবং প্রচন্ড চ্যালেঞ্জিং এর মুখে পড়তে হয়েছে অভিনেত্রীকে। তবে দর্শক তার এই চরিত্রটা কতটা ভালোভাবে নেবেন সেটাই দেখার অপেক্ষায় রয়েছেন অভিনেত্রী।

এরপর অভিনেত্রীকে প্রশ্ন করা হয় চুমকি চৌধুরী প্রথম সারির অভিনেত্রী হয়েও কেন পর্দা থেকে সরে দাঁড়ালেন? এর উত্তরে তিনি জানান যে, “ বাবা চলে যাওয়ার পর আমি একদমই সিনেমার জগত থেকে সরে গিয়েছিলাম। আমার পুরো পৃথিবীটাই ছিল বাবা। বাবার হাত ধরেই ইন্ডাস্ট্রিতে আসা, অভিনয় করা, সেখানে বাবা ছাড়া আমি কাজ করছি ভাবতেই পারিনি। বাবা যখন চলে গেল তখন এরাও শত্রু চলছিল, ওটা ভাই দায়িত্ব নিল। আমি সেটে গিয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা কাঁদতাম। সেট বসে থাকত। সেটা তো ঠিক নয়। বাবাকে ছাড়া আমি ক্যামেরার সামনে দাঁড়াতেই পারছিলাম না। তাই ভাবলাম, আর দরকার নেই, ছেড়ে দিই। ২০০৭ সালে বাবা চলে যাওয়ার পর ২০১৮ অবধি কাজই করিনি। এরপর ধারাবাহিক করি, তারপর এই ছবি।”

এছাড়া অভিনেত্রী জানান অঞ্জন চৌধুরীর তৈরি ছবিতে অভিনেত্রী এতটা জনপ্রিয়তা পেয়েছেন সকলের কাছে তিনি এতটা ভালোবাসা পরিচিতি পেয়েছেন যে আলাদা কারোর কাছে কাজ করার কথা তাকে ভাবতে হয়নি। এছাড়া অঞ্জন চৌধুরীও চাইতেন না তার মেয়ে অন্য কারো ফ্লোরে গিয়ে কাজ করুক। বর্তমান সময়ে সম্পর্কে চুমকি চৌধুরী জানিয়েছেন বর্তমানে অনেকটাই পাল্টে গিয়েছে সবকিছু। প্রোডাকশন, সিনেমা মেকিং সবকিছুই বদলে গিয়েছে। আগেকার দিনে এতটা মোবাইলের চলছিল না তাই মানুষের কাছে বিনোদন মানে ওই টেলিভিশনের পর্দায় আসা ছবিগুলি। কিন্তু বর্তমানে সময় পাল্টে যায় আর সময়ের সাথে যাতে সব কিছুই পাল্টে গিয়েছে।

Back to top button