Story

বলিউডের এই ৫ জন শাশুড়ি, যারা নিজে অভিনেত্রী হয়ে ছেলের জন্যেও এনেছেন অভিনেত্রী বউ, বলিউডের পাঁচ তারকা শাশুড়ির তারকা বউ, রইল তালিকা

বলিউড ইন্ডাস্ট্রি এক বিশাল সমুদ্রের সমান। এখানে প্রতিদিন আবিষ্কৃত হচ্ছে নতুন নতুন প্রতিভা। আবার পরক্ষণেই হারিয়ে যাচ্ছে অনেকে। অভিনয়ের কথা সরিয়ে রেখে আজ একটা অন্য বিষয়ে কথা বলা হবে। অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায় বলিউডের তারকা শাশুড়িরা নিজেদের ছেলের বউ হিসেবে অভিনেত্রীকে আনতে চান না। তবে বলিউডের এমন পাঁচ তারকা শাশুড়ির কথা জানাবো আপনাদের যারা তারকা হয়েও তারকা বউ ঘরে এনেছিলেন।

১) জয়া বচ্চন – ঐশ্বর্য রাই বচ্চন:
টলিউডের পাশাপাশি বলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেত্রী ছিলেন জয়া বচ্চন। তিনি নিজের ছেলের বউ হিসেবে গড়ে তুলেছেন বলিউডের অন্যতম সুন্দরী অভিনেত্রী ঐশ্বর্য রাই বচ্চনকে। যিনি ১৯৯৪ সালে বিশ্বসুন্দরীর খেতাব জিতেছিলেন। ২০০৭’এ বিগ বি’র পুত্র অভিষেক বচ্চনের সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন তিনি।

২) শর্মিলা ঠাকুর – কারিনা কাপুর খান:
শর্মিলা ঠাকুরও একসময়ে টলিউডের পাশাপাশি বলিউডও কাঁপিয়েছেন। একাধিক বড় বড় তারকাদের সাথে স্ক্রিন শেয়ার করেছেন তিনি। বলিউডের অন্যতম সুন্দরী অভিনেত্রী হয়েও ছেলের বউ হিসেবে ঘরে এনেছেন তারকা বৌমাকে। শর্মিলা পুত্র সাইফ আলি খানের স্ত্রী কারিনা কাপুর খান। বলিউডের বেবো তিনি। সাইফ আলি খানের দ্বিতীয় স্ত্রী কারিনা। ২০১২’তে অভিনেতার সাথে গাঁটছড়া বেঁধেছিলেন তিনি। তবে প্রথমে অমৃতা সিংয়ের সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল তার। তবে সেই বিবাহিত জীবন খুব একটা সুখের ছিল না বলেই জানা যায়।

৩) নার্গিস – মান্যতা:
মান্যতা সঞ্জয় দত্তের তৃতীয় পক্ষের স্ত্রী। তার মা ছিলেন নার্গিস। দীর্ঘদিন আগে ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন নার্গিস। তিনি একসময়ের বলিউডের অন্যতম সুন্দরী প্রথম সারির অভিনেত্রী ছিলেন। সুনীল দত্তের সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন তিনি। ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়ায় মান্যতাকে দেখার সুযোগ পাননি নার্গিস।

৪) জ্যোতি খেমু – সোহা আলি খান:
২০১৫’তে সোহা আলি খান বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন কুণাল খেমুর সাথে। কুণাল খেমুর মা জ্যোতি খেমুর সাথে সোহা আলি খানের সম্পর্ক বেশ ভালো। জ্যোতি খেমু ছিলেন বলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেত্রী।

৫) নূতন – একতা ভাল:
মোহনিশ ভাল বলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় সুন্দরী অভিনেত্রী নূতনের পুত্র। মোহনিশ ইন্ডাস্ট্রির অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেত্রী একতা ভালের সাথে ১৯৯২ সালে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন। কিন্তু তাদের বিয়ে হওয়ার আগেই মারা গিয়েছিলেন নূতন।

Back to top button