টলিউড

সুন্দর গলায় গান শোনালেন অপরাজিতা আঢ্যর বৃদ্ধা মা! মুগ্ধ নেটিজেনরা, তার গলায় ‘তুমি নির্মলো করো মঙ্গলো করে’, গানটি এখন ভাইরাল সোশ্যাল মিডিয়ায়

অভিনেত্রী অপরাজিতা আঢ্য তার বৃদ্ধা মায়ের গলায়, ‘তুমি নির্মলো করে মঙ্গলো করে মলিন মর্ম মুছায়ে’ গানটি পোস্ট করলেন। অভিনেত্রীর মা বৃদ্ধা, বার্ধক্যজনিত কারণে গলা কাঁপছে তার, তবুও কি সুমধুর কন্ঠ, কি সাবলীল গানের ভাষা, কি অসাধারণ উপস্থাপনা তার। মায়ের সঙ্গে সঙ্গেই গলা মেলালেন অভিনেত্রী নিজেও।

গানটির মুখরা অংশটি গাইলেন অভিনেত্রীর মা এবং অন্তরা অংশটি গাইলেন অভিনেত্রী নিজে। তার মায়ের থেকেই যে এই রবীন্দ্রসঙ্গীত তার শেখা তা বুঝতে বিন্দুমাত্র অসুবিধা হয়নি সামাজিক মাধ্যমের দর্শকদের।

চলতি বছরের ১৭ ই ফেব্রুয়ারি থেকে অভিনেত্রীর মা অসুস্থ। তবে অভিনেত্রীর শুটিংয়ের ব্যস্ততায় তিনি তার মাকে সময় দিয়ে উঠতে পারেন না। তাই তিনি মাকে দেখাশোনার জন্য একজন কে রেখেছেন। তবে বেশ কিছুদিনের মধ্যেই তিনি অভিনেত্রী পরিবারের একজন হয়ে উঠেছেন সেটা অভিনেত্রী নিজেই জানিয়েছেন।

অভিনেত্রী নিজেই জানিয়েছেন যে তার মধ্যে রয়েছে ভগবানের বাস। তার নাম সরস্বতী। সরস্বতী সম্বন্ধে কিছু দিন আগেই অভিনেত্রী নিজের একাউন্টে অকপট সত্য কথা স্বীকার করেছিলেন। কুর্নিশ জানিয়েছিলেন তাকে। ইনস্টাগ্রামে একটি ছবি পোস্ট করেছিলেন, যেখানে দেখা যাচ্ছিল অভিনেত্রীর বৃদ্ধা মা এবং অভিনেত্রীর মাঝে বসে রয়েছেন তিনি।

অভিনেত্রী পোস্ট করা সেই ছবির ক্যাপশনে তিনি সংযোজন করেছিলেন, ‘আমার মা আর আমার মাঝখানে যে বসে আছে সে হলো সরস্বতী ওর মধ্যে লক্ষ্মীর অনেক গুণ।আজ মা যতদিন অসুস্থ হয়েছেন সেই ১৭ ফেব্রুয়ারি থেকে আমার মায়ের পরিষেবা দিচ্ছে মা কে সুস্থ করে তুলছে মা-কে নতুন করে হাঁটতে শিখিয়েছে তার সাথ মায়ের রাগ মায়ের বিরক্তি মায়ের এক কথা বার বার বলা সব কিছু মেনে নিয়ে রাতের পর রাত জেগে একই ভাবে মা-কে সরিয়ে তোলার চেষ্টা করছে আজ ও আছে বলেই এই কোভিড যেতে পারছি ও আছে বলেই রাতে একটু ঘুমোতে পারছি সত্যি কথা বলতে দ্বিধা নেই আমি আমার মায়ের এত সেবা নিজে কখনোই করিনি আমার অনেক ফ্যান কিন্তু আমি স্বরস্বতীর ফ্যান আমার চোখে ওরাই হিরো। আজ সরস্বতী রা আছে বলেই শুধু দেশে নয় বিদেশেও মানুষ নিশ্চিন্ত তার পরিবার বা বাবা মাকে দেশে রেখে। এই মানুষ গুলোর মূল্যায়ন টাকা পয়সায় হয় না।। কুর্ণিশ এদের প্রাপ্য’।

এই করোনা পরিস্থিতিতে অভিনেত্রী হারিয়েছেন নিজের কাছের মানুষকে। সেই কথাও তিনি তাঁর প্রিয় অনুরাগীদের সাথে ভাগ করে নিয়েছিলেন একটি ভিডিওর মাধ্যমে। মেকআপ করতে করতে তিনি বলেন, “জীবন যে কতটা ভয়ঙ্কর হতে পারে তা আমি এই বছরে হাড়ে হাড়ে টের পেয়েছি।

আমার শশুর মশাই আমাকে ছেড়ে চলে গেছেন।” অভিনেত্রী অপরাজিতা আঢ্য মাত্র ১৫ বছর বয়সে নিজের বাবাকে হারিয়ে ছিলেন। বিয়ের পর থেকেই প্রায় আড়াই দশক ধরে তার কাছে তার বাবা হয়েছিলেন তারই প্রিয় শ্বশুরমশাই। তাই তিনি শ্বশুর মশাইকে হারিয়ে খুবই ভেঙে পড়েছেন।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Aparajita Adhya (@adhyaaparajita)

Back to top button