বলিউড

আর পারলেন না, চোখের সামনে মেয়ের শেষকৃত্য দেখে মাটিতে লুটিয়ে পড়লেন তুনিশার মা, অভিনেত্রীকে শেষ বিদায় জানাতে হাজির অভিযুক্ত প্রেমিক সিজানের মা এবং বোন

অভিনেত্রী তুনিশা শর্মার(Tunisha Sharma) শেষকৃত্যে দেখা গেল এক হৃদয়বিদারক দৃশ্য। ধারাবাহিক আলিবাবা : দাস্তান ই কবুলের(Alibaba Dastan e Kabul) সেট থেকে উদ্ধার করা হয়েছে অভিনেত্রীর ঝুলন্ত দেহ। তারপর ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হলে শেষকৃত্যের জন্য রওনা দেয় তার পরিবার। তবে মেয়ের মৃত্যুকে মেনে নিতে পারেননি তার মা। ইচ্ছা থাকা না সত্ত্বেও হাজির হতে হয়েছিল শেষকৃত্যে। তবে চোখের সামনে মেয়ের মৃত্যু মেনে নিতে পারেনি তিনি। শেষকৃত্য চলাকালীন সেখানেই অজ্ঞান হয়ে পড়ে যান মাটিতে।

ধারাবাহিক আলিবাবা দাস্তান ই কবুল সিরিয়ালের সেটে ২৪শে ডিসেম্বর তুনিশার ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করা হয়। প্রথমে শুনে গিয়েছিল সিরিয়ালের নায়ক সিজান মোহাম্মদ খানের (Sijan Md Khan)মেকআপ রুমে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন তিনি। পরে শোনা যায়, ঘরটির শৌচালয়ের দরজা ভেঙে অভিনেত্রী দেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। আত্মহত্যার পরেই পুলিশ নিজেদের হেফাজতে নিয়েছিল তার প্রেমিক সিজানকে। শোনা গিয়েছে অভিনেত্রীকে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার মতো অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে।

এছাড়া সেটে উপস্থিত থাকা অন্যান্য অভিনেতা এবং কলাকুশলীদের জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। মঙ্গলবার প্রথমে তুনিশার মরদেহ তার বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। তারপর সেখান থেকে আত্মীয় পরিজনদের পাশাপাশি প্রতিবেশীরা শ্রদ্ধা জানাতে আসেন তাকে। অভিনেত্রীকে শেষবারের মতো শ্রদ্ধা জানাতে এসেছিলেন শিবিং নারং, আশনুর কৌর, বিশাল জেঠয়ার। ‘চক্রবর্তী অশোক সম্রাট’ ধারাবাহিকে তুনিশার সঙ্গে অভিনয় করেছিলেন সিদ্ধার্থ নিগম। শেষকৃত্যে তাকেও দেখতে পাওয়া গেছে।

খবর অনুযায়ী, তার প্রাক্তন প্রেমিক সিজানের সঙ্গে বিচ্ছেদের ১৫ দিন পরেই নাকি আত্মহত্যা করেন তিনি। অভিনেত্রীর এক আত্মীয় জানিয়েছেন ধারাবাহিক চলাকালীন সিজান এবং তুনিশার মধ্যে সম্পর্কে গড়ে ওঠে। মৃত্যুর ১০ দিন আগে অভিনেত্রী অ্যাংজাইটি অ্যাটাক হয়েছিল। যে কারণে তাকে হাসপাতালে পর্যন্ত ভর্তি করা হয়েছিল। সেখানে তুনিশার মায়ের সঙ্গে তিনিও গিয়েছিলেন দেখা করতে। তার দাবি, সেই সময় অভিনেত্রী জানিয়েছেন তিনি প্রতারিত হয়েছেন। তবে সব থেকে উল্লেখযোগ্য ব্যাপার যে প্রেমিকের প্ররোচনায় অভিনেত্রী আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন বলে কথা উঠছে, তার শেষকৃত্যে দেখতে পাওয়া গেল সিজানের মা এবং বোনকে। হাজির হয়েছিলেন তারা।

Back to top button