বিজেপির উত্তরকন্যা অভিযান ঘিরে ধুন্ধুমার, বিজেপি কর্মীর মৃত্যুর অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে

আজ বিজেপির উত্তরকন্যা অভিযান ছিল আর সেই অভিযানেই প্রায় রণক্ষেত্র হয়ে উঠল শিলিগুড়ি৷ আজ সকাল থেকেই বিজেপি কর্মীসহ তাদের নেতৃত্ব রাস্তায় নেমেছিলেন,গন্তব্য ছিল উত্তরকন্যা৷ বিজেপির মিছিল আটকানো হয় ব্যারিকেড দিয়ে এবং সেই ব্যারিকেড ভেঙে যখন বিজেপি কর্মীরা এগিয়ে যেতে চেষ্টা করেন তখনই পুলিশের সাথে তাদের শুরু হয় ধস্তাধস্তি৷ এর ফলেই উলেন রায়(৫০) বলে এক বিজেপি কর্মীর মৃত্যু হয় বলে অভিযোগ বিজেপির নেতৃত্বের৷

ব্যারিকেড ভাঙার চেষ্টা হলেই পুলিশ ছুঁড়তে থাকে একেরপর এক কাঁদানে গ্যাসের সেল৷ এমনকি ব্যবহার করা হয় জলকামান৷ শেষমেষ শুরু হয় পুলিশের লাঠিচার্জ৷ বিজেপির উত্তরকন্যা অভিযানকে ঘিরে সকাল থেকেই উত্তপ্ত শিলিগুড়ি শহর৷ পদ্মশিবিরের তরফে দাবী করা হয়েছে যে পুলিশ এবং বিজেপি কর্মীদের মধ্যে ধস্তাধস্তি হওয়ার ফলেই ওই ব্যক্তির মৃত্যু হয়৷

দলীয় সূত্রে জানা গেছে যে উলেন রায় বলে ওই বিজেপি কর্মীকে ঘটনাস্থল থেকে আহত অবস্থায় নিয়ে যাওয়া হয় স্থানীয় এক বেসরকারি হাসপাতালে৷ সেখানে নিয়ে গেলে তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ৷ এই ঘটনায় স্বাভাবিকভাবেই ক্ষুদ্ধ বিজেপি৷ দীপেন প্রামাণিক বলে এক বিজেপি কর্মীর দাবী , গজলডোবা থেকে উলেন রায় অভিযানে যোগ দিতে এসেছিলেন৷ তার অভিযোগ,পুলিশের বেপরোয়া আক্রমণের মুখেই প্রাণ হারিয়েছেন ওই বিজেপি কর্মী৷ বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ সহ অন্যান্য নেতৃত্বদেরও একই অভিযোগ৷ পাশাপাশি বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু জানিয়েছেন যে,৫০জনেরও বেশি বিজেপি কর্মী আক্রান্ত হয়েছেন এবং সৌমিত্র খাঁ হয়েছেন আহত৷ কাঁদানে গ্যাসের সংস্পর্শে অসুস্থ হয়েছেন কৈলাশ বিজয়বর্গীয়ও,দাবী সায়ন্তনের৷

বিজেপির এইসমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে তৃণমূলের তরফে৷ প্রশাসনের দাবী যে পুলিশের মারে প্রাণ হারাননি ওই ব্যক্তি৷ ময়নাতদন্ত হলেই জানা যাবে আসল কারণ৷ পুলিশ প্রশাসনের বিরুদ্ধে আনা সমস্ত অভিযোগের পাল্টা দিয়েছে তৃণমূলও৷ তাদের দাবী,বিজেপি সশস্ত্র মিছিল করেছে৷ মিছিল থেকেও পুলিশকে লক্ষ্য করে ছোঁড়া হয়েছে ইট ,পাটকেল৷ আপাতত পরিস্থিতি কিছুটা নিয়ন্ত্রণে এলেও রাস্তাতেই রয়েছেন বিজেপির স্থানীয় নেতৃত্বরা৷ বিজেপির পরবর্তী পদক্ষেপ কি হবে তা তারা জানাবেন সাংবাদিক বৈঠক করেই৷