ভাইরাল

‘নন্দিনী তো কাউকে ফ্রি তে খাওয়াচ্ছে না ওনাকে নিয়ে এত মাতামাতি করার কী আছে?’-নন্দিনীর বিতর্কিত ভিডিও দেখে সোশ্যাল মিডিয়ায় লিখেছেন এক নেটিজেন!

ফ্যাশন ডিজাইনিং ছেড়ে ভাতের হোটেল খুলে ছিলেন নন্দিনী গাঙ্গুলী। কিন্তু মনের মধ্যে কোন গ্লানি ছিল না তার, কারণ সংসারের প্রয়োজনে পরিবারের পাশে দাঁড়াতে পেরেই তিনি খুশি ছিলেন, লকডাউনে মায়ের অসুস্থতার কথা শুনে তিনি কলকাতায় ফিরে ছিলেন। সেই সময় তার বাবার ব্যবসা লসে রান করছিলো বলে তিনি ভাতের খুলে ফেলেন। ‌ এরপর একসময় গিয়ে ভাইরাল হয়ে যান তিনি,তখন প্রচুর মানুষের মুখে মুখে তার নাম ঘুরতে থাকে। ডালহৌসি তিন নাম্বার কয়লাঘাটের রাস্তার ফুটপাতে তার ভাতের হোটেল রীতিমতো জনপ্রিয় হয়ে যায়।

নন্দিনীর পা‌ইস হোটেলের রান্না পরখ করতে আসেন স্বয়ং মদন মিত্র। এমনকি এই পাইস হোটেলের জন্য দিদি নাম্বার ওয়ান এর মঞ্চেও গিয়েছিলেন নন্দিনী গাঙ্গুলী, এমনই জনপ্রিয়তা তার। তবে বেশ কিছুদিন ধরে তিনি একটু বিতর্কিত হচ্ছেন। কিছুদিন আগেই একজন ইউটিউবার তার নামে অভিযোগ করেছিলেন যে, নন্দিনী দি নাকি তাকে ভিডিও করতে দেয় নি।

এই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতে আরো একটি ভিডিও সামনে আসে যেখানে দেখা যায় একজনের সাথে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় করছেন নন্দিনী। সম্প্রতি একটি ভিডিও এসেছে, যেখানে দেখা যাচ্ছে যে, একজনকে নিজের দোকান থেকে তুলে বার করে দিচ্ছেন নন্দিনী। জানা যাচ্ছে যে, ওই ব্যক্তি নাকি মদ্যপ অবস্থায় দোকানে ঢুকে ছিলেন এবং ওই ব্যক্তির কারণে নন্দিনীদির অনান্য কাস্টমারদের অসুবিধা হচ্ছিল বলে নন্দিনী ওনাকে তখন খাবার দিতে অস্বীকার করেন এরপর ওই ব্যক্তি জোর করে হোটেলের একটি চেয়ারে বসে পড়ে, তাই নন্দিনী দি জোর করে ওনাকে তুলে দেন।

এই ভিডিও দেখে সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকেই বিরূপ মন্তব্য করেছেন,অনেকেই বলেছেন যে,উনি‌ তো ফ্রি তে খাওয়াকে খাওয়াচ্ছেন না? তাহলে ওনাকে নিয়ে এত মাতামাতি করার কী আছে?

কেউ বলেছেন,দু দিন পর রানু মন্ডলের মতোই অবস্থা হবে এর।

Back to top button