টলিউড

“কলিযুগে বাঁচতে গেলে টাকা লাগে”, নিজের ফায়দার জন্য অভিনেতা দেবকে মৃত্যুমুখে ঠেলে দিতে দেখা গেল প্রসেনজিৎ কে! সামনে আসলো কাছের মানুষ এর ট্রেলার

টলিউডের বিখ্যাত দুই অভিনেতা হলেন দেব এবং প্রসেনজিৎ। এই অভিনেতাকে একপর্দায় দেখতে পাওয়ার চাহিদা মানুষের আজকের নয়। আর অনেকদিন আগে থেকেই এঁনারাও দর্শকের চাহিদার মত এক পর্দাতে অনেকবারই কাজ করেছেন। সম্প্রতি মুক্তি পেয়েছে দুই অভিনেতা অভিনীত সিনেমা “কাছের মানুষ” এর ট্রেলার। এতক্ষণে প্রচুর মানুষ এ টেলারটিকে বেশ পছন্দ করেছেন।

পথিকৃৎ বসু পরিচালিত এসে আমার ট্রেলারে দেখা যাচ্ছে, অনুপ কুমার এবং বিকাশ রায় অভিনীত “জীবন কাহিনী” ছবির কিছু আইকনিক দৃশ্য। এরপর থেকেই শুরু হয় মূল সিনেমা কাছের মানুষের গল্প। এখানে অভিনেতা দেবের চরিত্রের নাম কুন্তল। তার সব থেকে কাছের মানুষ তার মা তারই ভুলে আজ সজ্জাশায়। তাই সে তার মায়ের জন্য প্রাণপাত করতেও রাজি। যেহেতু তার দোষেই তাইতো তাকে আত্মজ্ঞালিনিতে কুরে কুরে খাচ্ছিল।

এরই মাঝে তার জীবনে এন্ট্রি নিল বীমা কোম্পানির এজেন্ট সুদর্শন। এখানে সুদর্শনের চরিত্রই দেখা যাবে অভিনেতা প্রসেনজিৎকে। তবে গল্প অনেকটাই ব্যতিক্রম। এখানে দেখানো হবে কুন্তলের মৃত্যুতে ফায়দা আছে সেই বীমা কোম্পানির। তাই সুদর্শন কুন্তল কে বোঝায়, “কলিযুগে বাঁচতে গেলে টাকা লাগে”। তাই মায়ের ভালোর জন্য মরতে হবে নাকি কুন্তলকে। আর সেই মৃত্যুর নানান প্ল্যান বাতলে দেন এই সুদর্শন। কিন্তু যদি শেষ মুহূর্তে সেসব প্ল্যানিং ভেস্তে যায়।

এই সময়ে নায়িকার এন্ট্রি হয় সিনেমায়। নায়ক কুন্তলের জীবনে একটা দমকা হওয়ার মতো প্রচুর প্রাণশক্তি বয়ে নিয়ে আসে তার “কাছের মানুষ” ইশা। সে নতুন করে বাঁচতে শেখায় কুন্তলকে। ইশা বোঝায়, “টাকা থাকলেই ভালো থাকা যায় না, কাছের মানুষগুলোকেও তো ভালো রাখতে হবে নাকি”। এইভাবেই আস্তে আস্তে ভাবনা বদলাবে কুন্তলের। কিন্তু এবার কে তাহলে আসল কাছের মানুষ কুন্তলের? বীমা কোম্পানির এজেন্ট সুদর্শন নাকি ইশা? সেই বীমা কোম্পানি এজেন্ট সুদর্শন কি মেরে ফেলতে চাই কুন্তলকে? এ সব প্রশ্নের উত্তর জানতে হলে চোখ রাখতে হবে আগামী ৩০ শে সেপ্টেম্বর আপনাদের বাড়ির কাছের যে কোন সিনেমা হলে।

এ বিশেষ সিনেমাটির ঘোষণা করেছিলেন বর্তমান মহানায়ক পুরস্কার প্রাপ্ত অভিনেতা দেব গত বছর মহালয়াতেই। তাছাড়াও দুই সুপার স্টারকে একসাথে এক স্ক্রিনে ধরা দিতে দেখা যাবে বলে দর্শকের উত্তেজনার পারদ প্রায় তুঙ্গে। এর আগে সৃজিত মুখার্জী পরিচালিত সিনেমা জুলফিকারেও একসাথে অভিনয় করতে দেখা যায় দুজনকে। এরপর ককপিট সিনেমাতেও ক্যামিও রোলে ধরা দিয়েছিলেন প্রসেনজিৎ। আর বর্তমানে কাছের মানুষ সিনেমায় একেবারে মূল কেন্দ্রবিন্দু এই দুই অভিনেতা। প্রসঙ্গত পথিকৃতের কাজ আমরা এর আগেও দেখেছি। এর আগে ‘হরিপদ ব্যান্ডওয়ালা’, ‘টোটাল দাদাগিরি’, ‘ফিদা’ এবং ‘কে তুমি নন্দিনী’র মতো ছবি পরিচালনা করেছেন টলিপাড়ার ইয়ং পরিচালক পথিকৃৎ বসু। এবার বিভিন্ন ভিন্ন ধারার সিনেমার মধ্যে দিয়ে নিজেকে ভাঙছেন পরিচালক। বলা বাহুল্য ছবির কাহিনিকারও পথিকৃত।

Back to top button