টলিউড

‘EMI মেটানোর চাপ ছিল’, পল্লবীর মৃত্যুতে সুশান্ত সিং রাজপুতের ছায়া! আগেরদিন রাত অবধিও সব স্বাভাবিক ছিল, খোশ মেজাজে মায়ের সঙ্গে গল্প করেছিলেন অভিনেত্রী! এবার মুখ খুললেন সাগ্নিক

রবিবার সকালে গড়ফার ফ্ল্যাট বাড়ি থেকে উদ্ধার হয়েছে জনপ্রিয় টিভি অভিনেত্রী পল্লবী দের মৃতদেহ। সিলিং ফ্যানের ঝুলেই হয়েছেন অভিনেত্রী এমনটাই সূত্রের খবরে জানা গেছে। কিন্তু পুরো বিষয়টি জুড়ে এখনো ধোঁয়াশা রয়েছে। কারণ ঘটনাটি খুন নাকি এই নিয়ে দোলাচলে রয়েছে পুলিশ এবং তদন্তকারীরা। গড়ফার ওই ফ্ল্যাট বাড়িতে গত দেড় মাস ধরে বন্ধু সাগ্নিকের সঙ্গে লিভ ইন করতেন পল্লবী। অভিনেত্রীর এই হঠাৎ মৃত্যুতে বন্ধু সাগ্নিক কে ডাকা হয় থানায় এবং শুরু হয় জিজ্ঞাসাবাদ পর্ব।

সাগ্নিক এর দাবি বেশ কয়েকমাস ধরেই নাকি পল্লবী মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন। বর্তমানে একটি ধারাবাহিকে অভিনয় করছিলেন অভিনেত্রী। আর কয়েক দিনের মধ্যেই শেষ হয়ে যেত সেই ধারাবাহিক। কিন্তু পল্লবীর ওপর অনেকগুলো EMI মেটানোর চাপ ছিল। সেই সমস্ত টাকা যোগাড় করার কথা নিয়ে প্রায় সময় চিন্তায় থাকতেন পল্লবী। এছাড়াও সাগ্নিকের দাবি আগের রাতে তারা পাটুলিতে একসঙ্গে ঘুরতে গিয়েছিলেন। সেদিন রাতে একসঙ্গে ছিলেন দুজনে। কিন্তু পরদিন সকালে উঠে সাগ্নিক পাশের ঘরে সিগারেট খেতে যায় আর এইটুকু সময়ের মধ্যেই ঘটনা ঘটে যায়। পল্লবী নিজের ঘরের দরজা বন্ধ করে দিলে সাগ্নিকের আশঙ্কা জাগে যে পল্লবী ভয়ঙ্কর কিছু ঘটাতে চলেছে। তখনই বাড়ির কেয়ারটেকার কে ডেকে দরজা ভাঙে সাগ্নিক এবং দরজা খুলে পল্লবীর ঝুলন্ত দেহ দেখতে পায়।

পল্লবীর দেহ কাঁটাপুকুর মর্গে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্ট অনুযায়ী বলেই দাবি করছেন পুলিশ। দেহে কোন রকম কোন আঘাতের চিহ্ন ছিল না। কিন্তু পল্লবীর পরিবার বিশেষ করে পল্লবীর বাবা তা মানতে একদমই রাজী নয়। কারণ পল্লবীর বাবা সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন গতকাল তার মায়ের সঙ্গে পল্লবীর খোশমেজাজে গল্প করছিলেন। মায়ের থেকে নতুন রেসিপি জানতে চাইছিলেন পল্লবী। তাহলে সেই মেয়ে হঠাৎ করে কেন করতে যাবে? আর পল্লবীর বাবার এই সাক্ষাৎকার এর পরে আরও জল ঘোলা হয়েছে এই তদন্ত ঘিরে।

Back to top button