টলিউড

১৬ বছরে প্রেম করে বিয়ে করার জন্য বাবা মা শাস্তি দিয়েছিলেন সুপারস্টার শ্রাবন্তীকে! এমনই ভয়ঙ্কর ছিল সেই শাস্তি যা আজও কাঁদায় সুপারস্টার শ্রাবন্তীকে!

টলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী হলেন শ্রাবন্তী চ্যাটার্জী। তিনি সবসময় বিতর্কের মূলে থাকেন, কারণ তার সমগ্র জীবনটাই অনেক চড়াই উতরাই আছে, যা নিয়ে রীতিমতো সমালোচনা হয়। মাত্র ১৬ বছর বয়সে তিনি বাবা-মায়ের অমতে গিয়ে বিয়ে করেছিলেন রাজীব কুমার বিশ্বাসকে, এরপর শ্রাবন্তীর কোল আলো করে আসে তার ছেলে ঝিনুক। কিন্তু এই সম্পর্ক দীর্ঘস্থায়ী হয় নি, বিয়ের ১৩ বছর পর সম্পর্কের মধ্যে নেমে এসে ছিলো বিচ্ছেদ। এরপর আর‌ও দুটো বিয়ে করে ছিলেন তিনি, সেই সম্পর্ক গুলোও দীর্ঘস্থায়ী হয় না।

এত সম্পর্ক আর সেই সম্পর্কের পরিণতি হিসেবে নেমে আসা বিচ্ছেদ,এই বিচ্ছেদকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা সমালোচনা, সব মিলিয়ে তুমুল বিতর্কিত হন শ্রাবন্তী। কিন্তু শ্রাবন্তীর জীবনের এই সমস্ত সিদ্ধান্তে তার বাবা মা কি তার পাশে ছিলেন? কেমন প্রতিক্রিয়া ছিল তার বাবা-মায়ের এই প্রশ্ন সবার মনে আসে।

হ্যাপি পেরেন্টস ডে নামের একটি রিয়েলিটি শোতে এসে শ্রাবন্তীর বাবা-মা বলেছিলেন যে, ১৬ বছর বয়সে বাবা-মার অমতে বিয়ে করার জন্য তারা শ্রাবন্তীকে শাস্তি দিয়েছিলেন আর সেই শাস্তি শ্রাবন্তীর ক্ষেত্রে ছিল যথেষ্ট কষ্টের! তারা ওই রিয়ালিটি শো এর মঞ্চে এসে বলেন,“আমরা মেয়ের সঙ্গে কথা বলা বন্ধ করে দিয়েছিলাম। ওটাই ওর জীবনের বড় শাস্তি।”

রিয়েলিটি শো এর মঞ্চে এসে যখন শ্রাবন্তীর বাবা-মা এই কথাগুলো বলছিলো তখন শ্রাবন্তীর চোখ দিয়ে গড়িয়ে পড়ছিলো জল। সেই জলই বলে দেয় যে বাবা-মার কথা না বলায় কতটা এফেক্ট পড়েছিল মেয়ের মনে! এছাড়া শ্রাবন্তী একথাও বলেছেন যে, বাবা-মা দিদি আর ঝিনুক এই চারজনই তার জীবনে ভালোবাসার অন্যতম জায়গা। তাই বাবা মার যোগাযোগ না রাখার বিষয়টা যথেষ্ট কষ্টকর ছিল অভিনেত্রীর জন্য।

Back to top button