টলিউড

টলিউডে অভিনয় করতে গেলে দিতে হবে ৫ লাখ টাকা তবেই মিলবে কাজ! ‘ফেলনা’ খ্যাত অভিনেত্রী রোশনি তন্বী ভট্টাচার্যর সঙ্গে এমন ঘটনাই ঘটেছিল

আজকাল বিভিন্ন জায়গায় সোশ্যাল মিডিয়া বা একাধিক আরও নানা জায়গায় অর্থের বিনিময়ে কাজ পাইয়ে দেওয়ার নানা বিজ্ঞাপন চোখে পড়ে। সেক্ষেত্রে বেশিরভাগই হয়ে থাকে প্রতারক। এইভাবে মানুষকে ফাঁদে ফেলে টাকা হাসিল করে এই সব প্রতারক দের আর দেখা পাওয়া যায়না ভবিষ্যতে। এরকম তিক্ত অভিজ্ঞতার সম্মুখীন অনেকেই আমরা নিজেরাও হয়ে থাকি বাস্তব জীবনে। তবে একজন জনপ্রিয় অভিনেত্রীর জীবনে এমন অভিজ্ঞতার প্রমাণ রয়েছে। যা শুনে আঁতকে উঠবেন আপনিও! ফেলনা’খ্যাত অভিনেত্রী রোশনি তন্বী ভট্টাচার্যর সঙ্গেও। ‘দিদি নম্বর ১’-এর মঞ্চে অভিনেত্রীর মা সবার সামনে এই কথাই জানিয়েছেন। খুব খারাপ এক অভিজ্ঞতার মধ্যে দিয়ে যেতে হয়েছিল সেইসময় মা ও মেয়েকে। যদিও পরবর্তীতে সেখান থেকে রক্ষা পেয়েছিলেন কিন্তু সেদিনের কথা শেয়ার করে নিলেন সবার সাথে মঞ্চে দাঁড়িয়ে।

মা ও মেয়ে মিলে সেইসময় মেয়ের সবদিনের যে স্বপ্ন অভিনেত্রী হওয়ার সেই স্বপ্ন পূরণের জন্য প্রতিনিয়ত হন্যে হয়ে ঘুরে বেড়াতেন সেইসময়। বহু জায়গায় সেইসময় অডিশন দিয়েও শেষ পর্যন্ত লাভের লাভ কোথাও হয়নি। তবে একজন ব্যক্তি হঠাৎ রোশনিকে পছন্দ করে নিয়েছিলেন। পছন্দ করার পর ওই ব্যক্তি সরাসরি রোশনিকে কাজের প্রস্তাব দিয়েছিলেন কিন্তু তার বিনিময়ে দাবি করেছিলেন ৫ লাখ টাকা। মেয়েকে অভিনয়ের ক্ষেত্রে সুযোগ দিতে অবশেষে দর কষাকষি করে সেই টাকার পরিমাণ ৫০ হাজারে নামিয়ে নিয়ে আসা হলেও শেষ পর্যন্ত রোশনির মা একেবারেই চাননি যে এইভাবে অর্থের বিনিময়ে কাজ করতে ঢুকবে। তাই শেষ পর্যন্ত টাকা না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তিনি।

সেই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে ভীষণভাবে ভেঙে পড়েছিলেন রোশনি। এমনকি অভিনেত্রী সেইসময় সুইসাইডের মতো সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছিলেন। সেই কথা শেয়ার করতে গিয়ে চোখে জল চলে আসে অভিনেত্রীর মায়ের। এমনকি এমন অভিজ্ঞতার কথা শুনে স্তম্ভিত হয়ে যান রচনা ব্যানার্জী। ‘হৃদয়হরণ বিএ পাস’ ধারাবাহিকে রোশনিকে দেখা গিয়েছিল তারপর বর্তমানে ‘ফেলনা’য় শ্রুতির ভূমিকায় কাজ করছেন তিনি। দুটি ধারাবাহিকে অভিনেত্রীর অভিনয় মন কেড়েছে দর্শকদের। একসময় মাঝে দিব্যজ্যোতি দত্তর সাথে সম্পর্কের গুঞ্জনের কথা শোনা গিয়েছিল। অভিনেত্রী সেইসময় দুজনের সম্পর্ক বন্ধুত্বের বাইরে আর কিছুই নয় বলেই এড়িয়ে গিয়েছিলেন।

Back to top button