টলিউড

মা শ্রেয়া ঘোষাল কাতুকুতু দিলেই মিষ্টি হাসি হাসছে দেব্যান! নতুন বছরের শুরুতে নিজের মিষ্টি হাসি দিয়ে সকলকে শুভেচ্ছা জানালেন শ্রেয়া ঘোষাল পুত্র দেব্যান, ভাইরাল হলো মিষ্টি ভিডিও

বলিউডের মেলেডি কুইন বলতে আমরা যাকে চিনি তিনি আর কেউ নন সকলের প্রিয় শ্রেয়া ঘোষাল। তার অনবদ্য গানের জন্য বলিউড থেকে টলিউড সব থাকায় তিনি ছড়িয়ে রয়েছেন। গত বছরই এই জনপ্রিয় এই গায়িকা পুত্রসন্তানের জন্ম দিয়েছেন, সন্তানের নাম রেখেছেন দেব্যান। বর্তমানে সন্তানকে নিয়েই দিনের বেশিরভাগ সময়টা কাটে তার। ২০২১ সালে অনেকেই নিজের প্রিয়জনকে হারিয়েছেন, খারাপ ভালো মিশিয়ে গত বছর কেটে গিয়েছে। শ্রেয়া ঘোষালের জীবনে এসেছে তার অন্যতম ভালোবাসার মানুষ তার প্রথম পুত্র সন্তান।

নতুন বছরের শুরুতেই সন্তানের একটি মিষ্টি ভিডিও ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করলেন গায়িকা যেখানে দেখা যাচ্ছে খাটের উপর শুয়ে রয়েছে খুদে এবং মা শ্রেয়া পেটে কাতুকুতু দিচ্ছে এবং সেই কারণেই খিলখিলিয়ে হেসে উঠছে দেব্যান। ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করে শ্রেয়া ঘোষাল ক্যাপশনে লিখেছেন “দেব্যান আপনাদের নতুন বছর ২০২২ এর জন্য কিছু হাসি আর আনন্দ পাঠালো। সালের জন্য কিছু হাসি এবং আনন্দ পাঠাচ্ছে। সবাইকে নববর্ষের শুভেচ্ছা, আমাদের যত্ন নেওয়ার জন্য এবং আমাদের এত ভালবাসা এবং আশা দেওয়ার জন্য ২০২১ কেও ধন্যবাদ। সবার জীবন মঙ্গলময় হোক।”

২০১৫ সালে নিজের বহু বছরের পুরনো প্রেমিক শিলাদিত্য মুখোপাধ্যায় সঙ্গে সাতপাকে বাঁধা পড়ে গায়িকা। বিয়ের দীর্ঘ ছয় বছর পর তাদের কোল আলো করে আসে প্রথম পুত্র সন্তান। শ্রেয়া এবং শিলাদিত্য ছোটবেলাকার বন্ধু সেখান থেকে তাদের আলাপ-পরিচয় বর্তমানে শিলাদিত্য একজন প্রযুক্তিবিদ এবং ওয়েবসাইট Hipcask.com-এর প্রতিষ্ঠাতাও।

দীর্ঘ বেশ কয়েক বছর ধরেই শ্রেয়া ঘোষাল নিজের গানের মাধ্যমে সারা বাংলা তথা দেশের মানুষের মন জয় করে নিয়েছেন। মাত্র ছয় বছর বয়স থেকেই তাঁর গানের প্রশংসা ছড়িয়ে পড়েছে দিকে দিকে। মুর্শিদাবাদের একটি ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন শ্রেয়া ঘোষাল। শ্রেয়ার গুরু জয় বর্ধন ভাটনগর জানিয়েছেন মাত্র ছয় বছর বয়সেই স্টেজ শো করেন শ্রেয়া। তারপরে তার বাবার বদলি চাকরির কারণে মুম্বাইয়ে চলে যায় সপরিবারে। সেখান থেকেই তাঁর গানের চর্চা এবং পড়াশুনার দুই চলতে থাকে। এরপর মাত্র ১৬ বছর বয়সে দেবদাস’ ছবির মাধ্যমে নিজের কর্মজীবন শুরু করে।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by shreyaghoshal (@shreyaghoshal)

Back to top button