টলিউড

কথায় কথায় বুদ্ধিজীবীদের কাঠগড়ায় দাঁড় করানোর প্রবণতা বন্ধ হোক! ‘বুদ্ধিজীবীরা কখন মুখ খুলবেন কখন চুপ থাকবেন সেটা নিয়ে লেবু কচলানো বন্ধ হোক’, বললেন অভিনেতা পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়

সমাজের যে কোনো রকম অন্যায় বিষয়ে বুদ্ধিজীবীদের সব সময় সরব হতে দেখা যায়। কিন্তু যখন দেখা যায় সমাজের জলজ্যান্ত সমস্যা, উপস্থিত হয়েছে কিন্তু বুদ্ধিজীবীরা মুখে কুলুপ এঁটেছেন তখন বুদ্ধিজীবীদের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠবে এই বিষয় স্বাভাবিক। যেমনটা ঘটেছে সাম্প্রতিককালে। সাম্প্রতিককালে বেশ কিছু বিষয় নিয়ে বুদ্ধিজীবীরা চুপ থাকছেন‌‌। হাঁসখালি, বগটুই থেকে শুরু করে এসএসসি দুর্নীতি কান্ড এবং বর্তমানে পার্থ অর্পিতা এবং পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের ঘনিষ্ঠ অর্পিতার কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা উদ্ধার প্রসঙ্গে বুদ্ধিজীবীরা কার্যত চুপ করে রয়েছেন।

কিছুদিন আগেই বিজেপির তারকা সদস্য রুদ্রনীল ঘোষ বর্তমানে সমাজের সমস্যার প্রতি সঙ্গে বুদ্ধিজীবীদের চুপ থাকা নিয়ে কটাক্ষ করেছেন। সম্প্রতি মুখ খুললেন টলিউডের জনপ্রিয় অভিনেতা পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়। সম্প্রতি একটি সংবাদ মাধ্যমের হয়ে কলম ধরেন তিনি।

তার লেখায় তিনি বলেন বুদ্ধিজীবী সমাজের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অংশ তারা এমন একটা অংশ যারা শিক্ষার দিক তৈরি করেন কিন্তু বর্তমানে প্রতিটি কথায় কথায় বুদ্ধিজীবীদের কাঠগড়ায় দাঁড় করানোর একটি প্রবণতা তৈরি হয়েছে এটি বন্ধ করা দরকার। তার মতে বুদ্ধিজীবীরা কখন নীরব থাকবেন কখন মুখ খুলবেন এইসব বিষয় নিয়ে লেবু কচলানো হচ্ছে প্রতিনিয়ত আর সেই কারণেই বুদ্ধিজীবী শব্দটা গালাগালিতে পরিণত হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে উল্লেখ্য কিছুদিন আগে পরিচালক অনীক দত্ত বলেছিলেন বুদ্ধিজীবী শব্দটা বর্তমানে গালাগালি তে পরিণত হয়েছে।) পরমব্রত আরো বলেছেন যে, এসএসসি দুর্নীতির বিষয়ে যে ঘটনাটা ঘটেছে বা যে ঘটনাগুলো ঘটছে তা অত্যন্ত নিন্দনীয় এবং শুধু বুদ্ধিজীবী কেন সমস্ত স্তরের মানুষদেরই প্রতিবাদে সরব হওয়া উচিত। এর সঙ্গে অভিনেতা আরো বলেন যে দুর্নীতি বিষয়টাকে আম জনতা বর্তমানে খুব স্বাভাবিক বলে ধরে নিয়েছে। অন্য রাজ্য থেকে কোটি কোটি টাকা উদ্ধার হতে দেখে মানুষ এখন পশ্চিমবঙ্গ থেকেও সেইটাই দেখছে‌। সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে যেভাবে দুর্নীতি ঢুকে পড়েছে তা থেকে বেরোনোর জন্য পুরো সমাজের শুদ্ধিকরণ প্রয়োজন বলে মনে করেন অভিনেতা।

Back to top button