বলিউডStory

আমির খানের পরকীয়ার দায় নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছিলেন সালমান খান, সংবাদমাধ্যমের সামনে বন্ধুকে বাঁচাতে নিজের কাঁধেই দোষ নিয়েছিলেন সালমান

কথায় আছে কাজের জায়গায় কেউ কারোর বন্ধু নয়, সবাই তখন নিজের জায়গায় সেরা হতে চায়। বলিউডেও এই কথা প্রচলিত আছে। ক্যামেরার সামনে সবাই যেমনটা দেখায় সবটাই দর্শকদের জন্য। নিজেকে সেরা প্রমাণ করার লড়াইয়ে সবাই সবাইকে টেনে নিচে নামতে চায়।

কিন্তু বহু পুরনো বন্ধুত্বকে পাশে রেখে এই চলতি কথাকে ভুল প্রমাণ করেছেন সালমান খান এবং আমির খানের বন্ধুত্ব। জীবনের নানা চড়াই উৎরাই এর সম্মুখীন হয়েছেন তারা কিন্তু সব পরিস্থিতিতেই দুজন দুজনের পাশে থেকেছেন তারা। সব সময় সঠিক রাস্তায় নিয়ে গেছেন দুজন দুজনকে। তবে তাদের বন্ধুত্বের শুরুটা একেবারে অন্যরকম।

আমির খান এবং সালমান খানের বন্ধুদের কথা হয়তো অনেকেই শুনেছে তাদের প্রথম দেখা ১৯৯৪ সালে। তখন বলিউডের একটি বিখ্যাত সিনেমা ‘আন্দাজ আপনা আপনা’ সিনেমার শুটিং চলছিল, আর সেই শুটিং ফ্লোরে প্রথম দুই খানের দেখা হয়। কিন্তু সেই সময় দু’জন দু’জনের সঙ্গে পরিচিত ছিলো না তাই কথা বার্তাও তেমন দুজনের মধ্যে হতো না। আমির খান একবার কফি উইথ করন শোতে এসে সালমান খানকে দেখে তার প্রথম অভিজ্ঞতার কথা ভাগ করে নেন। আমির খান জানিয়েছেন “প্রথম প্রথম আমি সালমানকে একেবারেই অপছন্দ করতাম, আমার তাকে খুব গম্ভীর এবং স্বার্থপর মানুষ বলে মনে হতো। এমনি বলিউড তারকাদের সঙ্গে যে রকম সৌজন্য ভাবে ব্যবহার করতাম সে রকম সালমানের সঙ্গে সম্পর্ক ছিল”।

তবে আমির খান জানান যখন তার প্রথম স্ত্রী রিনার সঙ্গে তার বিচ্ছেদ হয় তখন তিনি একমাত্র পাশে পেয়েছিলেন সালমান খানকে। বন্ধু হিসেবে তিনি আমিরের যথেষ্ট মেন্টাল সাপোর্ট হিসেবে কাজ করেছিলেন এবং আমিনের পাশে দাড়িয়ে ছিলেন। বিচ্ছেদের সময় সালমান খান নিজেই এগিয়ে আসে আমির খানের পাশে, আর ঠিক সেই সময় থেকে আজ পর্যন্ত তারা বলিউডের সবথেকে ঘনিষ্ঠ বন্ধু।

অপরদিকে সংবাদ মাধ্যমের একটি সাক্ষাৎকারে সালমান খান কে জিজ্ঞাসা করা হয় আমির খানের পরকীয়া ব্যাপারে আমির খান কা অপ্রস্তুত অবস্থায় দেখে সালমান খান বলেন গসিপ টি আমির কে নিয়ে নয়, আমাকে নিয়ে। আমির খান একজন খুব ব্যক্তিত্বপূর্ণ মানুষ। আমিরের ইমেজ ভীষণ ক্লিন।

Back to top button