বলিউড

এখন এইটুকু করেছে এরপর সব খুলে নাচবে! বেশরম রং’ বিতর্কে খোঁচা ‘শক্তিমান’ মুকেশ খান্নার, রীতিমতো হুঁশিয়ারী দিলেন পাঠান ছবি নির্মাতাদের

যত দিন যাচ্ছে বেশরম রং (Beshram Rang)নিয়ে বিতর্ক যেন তত বেশি জোরালো হচ্ছে। দেশের সর্বত্র তো বটেই সোশ্যাল মিডিয়াতেও এই বিতর্ক(Pathan Controversy) যেন থামার নাম নিচ্ছে না। মুক্তির পর থেকেই আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছে শাহরুখ-দীপিকা অভিনীত পাঠান(Pathan) ছবির এই গান। যে গানে গেরুয়া রঙের বিকিনি পড়তে দেখা গিয়েছে দীপিকাকে। আর এখানেই যত আপত্তি।

দাবি করা হয়েছে হিন্দু ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত এনেছে এই গান। এবার বেশরম রং নিয়ে সুর তুললেন শক্তিমান মুকেশ খান্না(Mukhesh Khanna)।ইউটিউব( youtube )চ্যানেলে একটি ভিডিও আপলোড করেছেন বর্ষীয়ান এই অভিনেতা। যেখানে রীতিমতো পাঠান ছবি নির্মাতাদের হুঁশিয়ারি দিলেন। পাশাপাশি সাবধান করে দিলেন হিন্দি ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিকে। তবে এই প্রথম বার নয় এর আগেও একাধিক মাথা লাগিয়ে নিজের চ্যানেলে সোচ্চার হয়েছেন মুকেশ। কখনো দক্ষিণী পরিচালক লিনা মনিমেকলাইয়ের বিতর্কিত তথ্যচিত্রের পোস্টার নিয়ে যেখানে সিগারেট ধরে রয়েছেন কালি, অক্ষয় কুমারের লক্ষী ছবির বম্ব শব্দ নিয়ে একাধিকবার হিন্দু ধর্মকে টার্গেট করে চলচ্চিত্র নির্মাতারা ছবি বানাচ্ছেন এমন অভিযোগ এনেছেন মুকেশ।

এবারে তিনি যোগ করলেন পাঠান ছবির এই গান। প্রসঙ্গত ছবির গান প্রথম প্রকাশ্যে আসতে তিনি বলেছিলেন এখন বিকিনি পড়ে নাচবে দুদিন পর সব খুলে উলঙ্গ হয়ে নাচবে। শুধু তাই নয় তিনি আরো বলেন, এই গান অশ্লীলতার সমস্ত সীমা পার করে গেছে। নায়িকাকে গেরুয়া বিকিনি পরানো হয়েছে ইচ্ছাকৃতভাবে। আসলে এগুলো বিতর্ক তৈরীর প্রয়াস। যাতে ছবিটা একটু প্রচারের আলোয় আসে লোকের একটা ধারণা হয় এবং লোকে সেটা দেখতে চায়। এসব চাল আমার অনেক জানা আছে। আসলে এগুলো হিন্দু ধর্মকে সফট টার্গেট করা।

শুধু তাই নয় নিজের ইনস্টাগ্রামে(Instagram) একটি ভিডিও শেয়ার করে মুকেশ সেখানে লেখেন এটা যদি আপনার অশ্লীল না মনে হয় তাহলে এরপর আপনারা পর্ন বানাবেন। চাঁচাছোলা ভাষায় বলেন গেরুয়া রং এর বিকিনি পড়ে আপনারা নায়িকাকে নাচাচ্ছেন। আবার সেটাকে জুম করে দেখাচ্ছেন। এটা কোন ধরনের অভদ্রতা অশ্লীলতা। উপরন্ত গানে বারবার বলছেন বেশরম রং। গেরুয়া রং’য়ের অপমান করছেন আপনারা।

পাশাপাশি মুকেশ জানিয়েছেন সেন্সর বোর্ডের আরও বেশি সচেতন হওয়া প্রয়োজন। কেবলমাত্র গানের কিছু অংশ পরিবর্তন করে বা কথা পাল্টে হবে না। এই জামা ( গেরুয়া রং’য়ের বিকিনি)বদল করতে হবে। সেন্সর বোর্ডে থাকা ব্যক্তিরা যদি হিন্দু ধর্মের জ্ঞান সম্পর্কে না জানে তাহলে তাদের ওখানে বসার অধিকার নেই। পাশাপাশি এই ছবি বয়কটের ডাক দিয়েছেন মুকেশ। জানিয়েছেন যদি একবার ‘বয়কট সংস্কৃতি’কে সমর্থন করা যায় তাহলে শিক্ষা তাদের ছবির নির্মাতারা।

Back to top button