বাংলা সিরিয়াল

সাত্যকির অবিশ্বাসের কারণে বাড়ি ছেড়ে চলে যায় উর্মি! ‘এই পথ যদি না শেষ হয়’ ধারাবাহিকে নতুন টুইস্ট, সাত্যকি এবং উর্মির সম্পর্কের সমীকরণে নতুন মোর

বর্তমানে ধারাবাহিকে চাহিদা বিপুল। বিভিন্ন চ্যানেলগুলিতে বিভিন্ন ধরনের ধারাবাহিক দেখানো হয় এবং দর্শকরা তাদের প্রিয় ধারাবাহিক গুলি দেখতে বিকেল থেকেই সামনে হাজির হন। আর জনপ্রিয় ধারাবাহিক গুলির মধ্যে অন্যতম একটি হলো ‘এই পথ যদি না শেষ হয়’ ধারাবাহিক।

সপ্তাহ খানেক আগেই টিআরপি লিস্টে না থাকলেও বর্তমানে ধীরে ধীরে টিআরপি লিস্টে দিকে এগিয়ে চলেছে এই ধারাবাহিক। প্রতিদিন রাত দশটায় জি বাংলার পর্দায় এই ধারাবাহিক সম্প্রচারিত হয়। এই ধারাবাহিকে মূল চরিত্রে অভিনয় করছেন অন্বেষা হাজরা এবং ঋত্বিক মুখার্জী অন্বেষা হাজরা কে আমরা উর্মির ভূমিকায় অভিনয় করতে দেখতে পাচ্ছি এবং ঋত্বিককে আমরা সাত্যকির ভূমিকায় দেখতে পাচ্ছি।

ধারাবাহিকের প্রথম ভাগে দেখানো হয়েছিল সাত্যকি একজন ট্যাক্সি ড্রাইভার এবং তার কাছে বড়লোক বাড়ির মেয়ে উর্মি গাড়ি চালানো শেখা ক্লাস করতে থাকে এবং সেখান থেকেই হঠাৎ দুই পরিবারের মধ্যে যোগাযোগ হয়। পুরনো বন্ধুত্তের সূত্রে সাত্যকির সঙ্গে উর্মির বিয়ে ঠিক হয় এবং নানান ঝামেলা ঝঞ্ঝাট পেরিয়ে তাদের বিয়ে হয়। প্রথমদিকে সাত্যকি উর্মি দুজন দুজনকে পছন্দ না করলেও ধীরে ধীরে একে অপরকে বুঝতে শিখেছে তারা, একে অপরের ভালো বন্ধু হয়ে উঠেছে তারা এবং তাদের মধ্যে বেশ দুষ্টু মিষ্টি একটা কেমিস্ট্রি তৈরি হয়েছে ইতিমধ্যে দর্শকের নজর কেড়েছে।

সম্প্রতি ধারাবাহিকে দেখানো হচ্ছিল শিক্ষক দিবস উপলক্ষের বিশেষ পর্ব আর সেই দিনই উর্মির চিরশত্রু রিনি সাত্যকির চোখে উর্মিকে খারাপ প্রমাণ করার জন্য ফন্দি আটে এবং ঘটনাচক্রে ঝামেলা ঝঞ্ঝাট এরপর সে গিয়ে স্বার্থকে উর্মিকে অবিশ্বাস করে এবং রিনির কথায় বিশ্বাস করে।

সাত্যকি সকলের সামনে উর্মিকে অপমান করতে শুরু করে। আর এই ঘটনাতেই উর্মি বেশ আঘাত পায়, তার মনে হতে থাকে সাত্যকি তাকে অবিশ্বাস করছে, তাকে ভরসা করছেনা। তাই সে সিদ্ধান্ত নেয় বাড়ি ছেড়ে চলে যাওয়ার। আর এইসব ভাবতে ভাবতেই উর্মি মাঝ রাতেই বাড়ি ছেড়ে চলে যায়।

তারপর সারা বাড়িতে উর্মিকে খুঁজে না পেয়ে সাত্যকির বাড়ির লোক তাকে খুঁজতে বের হয়। ঘটনাচক্রে সাত্যকি উর্মিকে খুঁজতে উর্মির বাপের বাড়ি হাজির হয় এবং সেখানে উর্মিকে সে পায় না উর্মির উর্মির নিখোঁজ হবার কথা শুনে ভীষণ চিন্তিত হয়ে পড়ে এবং সকলে সাত্যকি কে দোষী বলে তার এর বাড়ি পুলিশ নিয়ে হাজির হন।

পুলিশের পাশাপাশি হাজির হয় সাত্যকির পাড়া-প্রতিবেশী লোকজনেরা এবং উর্মির বাড়ির লোক মিলে সাত্যকি কে বধূ নির্যাতনের দায় পুলিশে দেওয়ার হুমকি দেয় এবং নানা রকম ভাবে অপমান করতে থাকে। কিন্তু সাত্যকি সকলের সামনেই কথা দেয় উর্মিকে সে নিজেই খুঁজে আনবে।

সম্প্রতি এই ভিডিও ক্লিপটি জি বাংলার অফিশিয়াল ফেসবুক পেজ থেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করা হয়েছে। এবারে দেখার অপেক্ষা আগামী দিনে এই ধারাবাহিকে আর কি কি ধরনের টুইস্ট আসে। উর্মি এবং সাত্যকির এর বৈবাহিক জীবন কেমন হয় তা দেখার জন্য মুখিয়ে রয়েছে দর্শকেরা।

Back to top button