ব্যবসা ও বাণিজ্য

সারা বিশ্বের এই ৫ টি বহুমূল্য জিনিসের মালিক মুকেশ আম্বানি, ২ নাম্বারটি দেখলে চোখ ফেরাতে পারবেন না, জেনে নিন মুকেশ আম্বানি সংগ্রহে পাঁচটি সব থেকে মূল্যবান জিনিস এবং তাদের মূল্য

বিশ্বের ১০ জন ধনী ব্যক্তিদের মধ্যে প্রথম সারিতেই রয়েছেন ভারতবর্ষের মুকেশ আম্বানি। জিও কোম্পানির মালিক তিনি প্রতি মাসে কোটি কোটি টাকা আয় হয় তার। কোটি কোটি টাকার মালিক হওয়ার কারণেই তিনি এবং তার পরিবারের সদস্যরা বিলাসবহুল জীবনযাপন কাটান। তার স্ত্রী নিতা আম্বানি বিভিন্ন বিলাসবহুল দ্রব্য ব্যবহার করার জন্য চর্চায় থাকেন মাঝেমধ্যে। তবে বর্তমানে তিনি যেই জায়গায় দাঁড়িয়ে রয়েছেন সেই জায়গায় আসার জন্য একটা সময় তাকে কঠোর পরিশ্রম করতে হয়েছিল তাকে। জেনে নিন মুকেশ আম্বানির বিলাসবহুল জিনিস গুলির মধ্যে সবথেকে দামি পাঁচটি জিনিসের নাম এবং সেগুলির মূল্য।

১. ম্যান্ডারিন ওরিয়েন্টাল হোটেল –
বছরের শুরুতেই মুকেশ আম্বানি নিউ ইয়র্কে এই হোটেলটি কিনেছেন। হোটেলটির মোট মূল্য প্রায় ৭৩৯ কোটি টাকা। এই হোটেলে প্রায় ২৪৮টি কক্ষ রয়েছে। হোটেলটি সাজানো রয়েছে অনেক নামিদামি মূল্যবান জিনিসপত্র দিয়ে। এই হোটেলে বিভিন্ন তারকার থাকতে আসে। বর্তমানে সারা বিশ্বব্যাপী এই হোটেলটি জনপ্রিয়। হোটেলটি AAA ফাইভ ডায়মন্ড হোটেল, ফোর্বস ফাইভ স্টার হোটেল এবং ফোর্বস ফাইভ স্টার স্পা সহ বেশ কয়েকটি পুরস্কার জিতেছে।

২. অ্যান্টিলিয়া-
মুকেশ আম্বানির এই বিলাসবহুল বাড়িটি দাম প্রায় ভারতীয় মূল্য হিসেবে ১০০ কোটি টাকা। এই বিলাসবহুল বাংলা টি তে রয়েছে মোট ২৭ তলা। এই বাংলোটি মুম্বাই শহরে আল্ট্রামাউন্ট রোডে অবস্থিত। বাড়িতে মন্দির, টেরেস গার্ডেন, থিয়েটার এবং স্পা এর মতন আরো অনেক সুবিধা রয়েছে।

৩. হ্যামলেস টয় কোম্পানি –
২০১৯ সালে খেলনা কোম্পানিটি কিনেছেন মুকেশ আম্বানি এখান থেকে তার নিজস্ব খেলনা তৈরি হয়। এটি বিশ্বের সবথেকে বড় খেলনা কোম্পানি। সারা বিশ্বে এই কোম্পানির ১৬০ টি ষ্টোর রয়েছে।

৪. আইপিএলের দল –
আইপিএল দল গুলির মধ্যে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স টিমের মালিক মুকেশ আম্বানি। সম্প্রতি কয়েকদিন আগেই মুকেশ আম্বানি নিতা আম্বানি কে এই দলের মালিক করেছেন। এই দলটি কেনার জন্য মুকেশ আম্বানি কে প্রায় ৭৪৮ কোটি টাকা দিতে হয়েছে।

৫. স্টক পার্ক-
গত বছরই মুকেশ আম্বানি ব্রিটেনের এই কান্ট্রি ক্লাব থেকে কিনেছেন। এর সঙ্গে কিনেছেন একটি গলফ রিসোর্ট পার্ক। এই পার্কটি কিনতে আম্বানির মোট খরচ হয়েছে ৫৯২ কোটি টাকা।

Back to top button