Story

৬ মাসের অন্তঃসত্ত্বা মুসলিম মেয়েকে তৃতীয় বিয়ে করে ঘরে তুলেছিলেন সঞ্জয় দত্ত! আজ সেই স্ত্রীর কথায় উঠেন-বসেন অভিনেতা সঞ্জয় দত্ত

বলিউডের সুখী দম্পতিদের মধ্যে অন্যতম হলেন সঞ্জয় দত্ত ও মান্যতা দত্ত। তাদের তিনটি সন্তানও রয়েছে। বিয়ের পর অনেক বাধা এসেছে তাদের জীবনে। অনেক ওঠাপড়ার মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে তাদের। তবে কোন কিছুই তাদের সম্পর্কের বাঁধনকে আলগা করতে পারেনি। বিয়ের পর সঞ্জয় দত্তের বেলাগাম জীবনে লাগাম টেনেছিলেন তার স্ত্রী মান্যতা দত্ত।

অনেকেই হয়তো জানেন না সঞ্জয় দত্তের স্ত্রী মান্যতা মুম্বাইয়ের এক মুসলিম পরিবারে সন্তান। কিন্তু তার ছোটবেলা কেটেছে দুবাইতে। পরে তিনি বলিউডে অভিনেত্রী হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে এসেছিলেন। কোন এক ছবিতে আইটেম গানে নাচ দিয়ে নিজের কেরিয়ার শুরু করেছিলেন মান্যতা। এরপর কোনো ভালো ছবির প্রস্তাব না পাওয়ায় একটি বি-গ্রেডের ছবিতে অভিনয়ের জন্য হ্যাঁ বলেছিলেন। নিতান্তই বাধ্য হয়ে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন মান্যতা। কারণ সেইসময় তার বাবা মারা যাওয়ায় পুরো পরিবারের দায়িত্ব ছিল তার উপর।

তবে ঐসময় এই ছবির প্রযোজকের সূত্র ধরেই আলাপ হয়েছিল সঞ্জয় দত্তের সঙ্গে। সেইসময় দুজনেই নিজেদের জীবনের ব্যক্তিগত সমস্যা নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন। সঞ্জয় দত্তের সাথে রিয়া পিল্লাইয়ের বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা চলছিল ঐসময়ে। এরপরে মান্যতার সাথে সঞ্জয় দত্তের সম্পর্ক ধীরে ধীরে গভীর হয়। বলিউডের দত্ত পরিবারের আপত্তি থাকার সত্বেও ২০০৮ সালে মান্যতার সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন অভিনেতা।

বিয়ের ঠিক পরেই রেহমান নামে এক ব্যক্তি নিজেকে মান্যতার স্বামী বলে দাবি করেছিলেন। এমনকি নিজেকে মান্যতার সন্তানের বাবা বলেও দাবি করেছিলেন তিনি। এই ঘটনার রেশ আদালত পর্যন্ত গড়ায়। তবে পরবর্তীকালে সবটাই মিথ্যে বলে প্রমাণ হয়েছিল। জানা যায়, ঐ ব্যক্তি এর আগেও বহু অভিনেত্রীকে এমনভাবে ফাঁসানোর চেষ্টা করেছিলেন। তবে সেইসময় সঞ্জয় দত্ত নিজের স্ত্রীর উপর থেকে বিশ্বাস হারাননি বরং ঐ কঠিন পরিস্থিতিতে তার পাশে দাঁড়িয়েছিলেন।

এরপর থেকে সেভাবে জোরালো কোনো সমস্যা দেখা দেয়নি তাদের দাম্পত্য জীবনে। অভিনেতার লাগামছাড়া জীবনযাপনকে নিয়মে বেঁধেছিলেন তিনি। তার খাওয়া-দাওয়া, বন্ধুবান্ধব সব কিছুর উপরেই নজর ছিল তার। এমনকি এখনও রয়েছে। জানা গেছে, অভিনেতা কি খাবেন, কি পোশাক পরবেন তাও ঠিক করে দেন তিনি। বর্তমানে নিজেদের তিন সন্তানকে নিয়ে ভালোই রয়েছেন এই দম্পতি।

Back to top button