টলিউড

অশোক স্তম্ভের বিকৃতি নিয়ে এবার মোদীর বিরুদ্ধে মুখ খুললেন টলিউডের ঋত্বিক চক্রবর্তী! সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে তিনি জানান নবনির্মিত অতিকায় অশোক স্তম্ভের বিষয়ে তার ভাবনা!

ব্রোঞ্জের অতিকায় অশোক স্তম্ভ নিয়ে দীর্ঘ কয়েক দিন ধরেই জল ঘোলা শুরু হয়েছে। উদ্বোধনের সময় থেকেই বিতর্কে সূত্রপাত হয়েছে। ‌ বিরোধীদের বক্তব্য নতুন সংসদ ভবনের অতিকায় ব্রোঞ্জ নির্মিত স্তম্ভের সিংহ গুলি কে বিকৃত করা হয়েছে। এ নিয়ে রাজ্যে রাজনীতিতে চাপান‌উতোর চলছে। এইরকম পরিস্থিতিতেই অতিকায় অশোক স্তম্ভকে নিয়ে মন্তব্য করে বসলেন টলিউডের জনপ্রিয় অভিনেতা ঋত্বিক চক্রবর্তী। তার মন্তব্য ঘিরে শুরু হয়েছে নতুন বিতর্ক।

প্রধানমন্ত্রী মাননীয় নরেন্দ্র মোদি সোমবার নতুন সংসদ ভবনে অশোক স্তম্ভের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন, এরপর থেকে এই স্তম্ভ কে ঘিরে বিতর্ক শুরু হয়। তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ জহর সরকার বলেন, জাতীয় প্রতীকের অবমাননা করা হয়েছে। তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র পুরনো একটি অশোক স্তম্ভের সিংহ ও নয়া অশোক স্তম্ভের সিংহের ছবি পাশাপাশি দিয়ে পোস্ট করেন। যদিও এই সকল বিতর্কে জবাব দিয়ে বিজেপি আইটি সেলের প্রধান বলেন,“ অশোকের রাজধানী সারনাথের সিংহকে গ্রহণ করা হয়েছে। একটি ২ডি ছবির সঙ্গে থ্রিডি স্থাপত্যের তুলনা করছেন বিরোধীরা। এই বিষয়টি বোধহয় ওদের মনে ছিল না।” অন্যদিকে স্তম্ভের নির্মাণশিল্পীদের কথায় মূল সমস্যাটা তৈরি হচ্ছে স্তম্ভটির এত বড় আকারের কারণে।‌ কেননা এর ফলে ছোট্ট ছোট্ট ডিটেলস চোখে পড়ছে আর তাই মনে হচ্ছে সারনাথের স্তম্ভের থেকে এটি আলাদা। যদিও এই নতুন স্তম্ভের আকার একটু বড় কিন্তু নির্মাণ শিল্পীদের বক্তব্য এছাড়া মূল স্তম্ভের সাথে এই স্তম্ভের ৯৯% মিল আছে।

এইবার অশোক স্তম্ভ নিয়ে কথা বললেন অভিনেতা ঋত্বিক চক্রবর্তী ও। এইদিন সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজের পার্সোনাল প্রোফাইল থেকে একটি পোস্ট করেন অভিনেতা ঋত্বিক, যেখানে তিনি লেখেন, “সিংঘমটার হাঁ করা মুখে পরিমাণ মতো লালা থাকলে বেশ লাগতো”-এখন এই সিংঘম শব্দের মধ্যে দিয়ে তিনি কী বোঝাতে চেয়েছেন তা কেউ বুঝতে না পারলেও অনেকেই আশঙ্কা করছেন যে, তার এই বক্তব্যের উদ্দেশ্য অতিকায় অশোকস্তম্ভ। নেটিজেনদের একাংশ দাবী করছেন যে অশোক স্তম্ভের সিংহগুলিকেই সিংঘম বলেছেন অভিনেতা।

Back to top button