টলিউড

‘ধর্মযুদ্ধে শ্রীমদ্ভাগবত গীতার শ্লোক পড়ে মানুষের গলা কা;টা দেখানো হয়েছে!’ এই অভিযোগে রাজ চক্রবর্তীর পরিচালিত ধর্ম যুদ্ধের বিরুদ্ধে ওঠা বয়কট ডাক উঠলে সপাটে উত্তর দিলেন রাজ চক্রবর্তী ‘আমি ধর্ম জানি আমাকে শেখাতে আসবেন না’

বর্তমানে বলিউড টলিউড সব জায়গাতেই দেখা যাচ্ছে যে ছবি বয়কট করার একটা রীতিমতো হিড়িক পড়ে গেছে। সম্প্রতি নতুন একটি ছবির টিজার রিলিজ করেছে, ছবির নাম ‘ধর্মযুদ্ধ’। রাজ চক্রবর্তী পরিচালিত এই ছবিটির টিজার দেখে মানুষ এই ছবি বয়কটের কথা বলতে শুরু করেছেন। কারণ এক অংশের মানুষ বলছেন যে এই ছবিতে হিন্দু ধর্মের অবমাননা করা হয়েছে এবং হিন্দু ধর্মালম্বীদের ভাবাবেগে আঘাত করা হয়েছে তাই নেট মাধ্যমে তারা আর্জি
করেছেন যে এই ছবি যেন বয়কট করা হয়।

“সোশ্যাল মিডিয়ায় একজন যেমন লিখেছেন রাজ চক্রবর্তী পরিচালনা মুভি ধর্মযুদ্ধ এখানে দেখানো হয়েছে শ্রীমদ্ভাগবত গীতার শ্লোক পরে মানুষের গলা কাটা যেটা হিন্দু ধর্মের কোথাও নেই। ঞ্জানত হিন্দু ধর্মটাকে টার্গেট করে নির্মিত হিন্দু বিরোধী মুভিটা কে বয়কট করুন।” এই সব পোস্ট দেখে অবশেষে রাজ চক্রবর্তী মুখ খুললেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। রাজ চক্রবর্তী লেখেন, “ধর্মযুদ্ধে কোথাও গলাকাটা তো দূরে থাক এক ফোঁটা রক্তপাতও দেখানো হয়নি। আর তোমরা সিনেমাটা না দেখেই বয়কটের ডাক দিচ্ছো ? তোমরা কি ছাগল না পাগল?”

এই ছবিতে রয়েছেন স্বাতীলেখা সেনগুপ্ত, ঋত্বিক চক্রবর্তী ,শুভশ্রী গঙ্গোপাধ্যায় ,পার্নো মিত্র, সোহম চক্রবর্তী ও সপ্তর্ষি মৌলিক। এক ঝাঁক তারকা নিয়ে তৈরি করা প্রায় দু বছর পরে মুক্তিপ্রাপ্ত এই ছবি নিয়ে একটা আবেগ ছিল পরিচালক রাজ চক্রবর্তী। কিন্তু ট্রেলার মুক্তি পেতে না পেতে শুরু হয় বিতর্কের ঝড়। এর উত্তরে রাজ চক্রবর্তী বলেন,“ ধর্মযুদ্ধে কোন ধর্মকে ছোট করা হয়নি আগে ধর্মযুদ্ধ দেখুন তারপর ঠিক করুন ছবিটি বয়কট করবেন কিনা?” এছাড়া একটি লাইভ ভিডিওতে রাজ আরো বলেন যে,“ ধর্ম নিয়ে আমরা যে লড়াই করি তাতে ক্ষতিটা কার হচ্ছে? আমার দেশের। আমার মায়ের। এই গল্প বলা হয়েছে। হ্যাঁ, এই গল্প বলেছি আমি। ২০১৯ সালে ছবিটি বানানো হয়েছে। তখন আমি রাজনীতিতে আসিনি। আমি জানি আমার ধর্মকে কিভাবে রক্ষা করতে হয় এবং অপর ধর্মকে কিভাবে সম্মান করতে হয় তাই আমাকে শেখাতে আসবেন না।”

Back to top button