টলিউড

‘লক্ষ্মীর ভাঁড় ভেঙে সংসার চলেছে, কারন প্রসেনজিৎ-ঋতুপর্ণা শেষ করে দিয়েছিল আমার ক্যারিয়ার’! বিস্ফোরক দাবি করেছিলেন অভিনেতা অভিষেক চ্যাটার্জী

গত দু-তিন দিন ধরে পেটের সমস্যা ভুগছিলেন তিনি। বুধবার রিয়েলিটি শো-তে তিনি অংশও নিয়েছিলেন। সেখানেই অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। কলকাতায় প্রিন্স আনোয়ার শাহ রোডে নিজের বাড়িতে প্রয়াত হয়েছেন টলিউডের জনপ্রিয় অভিনেতা অভিষেক চট্টোপাধ্যায়।

এক সময় টলিউডের প্রথম সারির অভিনেতা ছিলেন অভিষেক চ্যাটার্জী। পরপর একাধিক হিট সিনেমায় নায়কের ভূমিকায় অভিনয় করে আপামর দর্শকদের মন জয় করে নিয়েছিলেন অভিষেক। কিন্তু তারপর হঠাতই একসময় উধাও হয়ে যান তিনি পর্দা থেকে। অনেক পরে যখন ফিরে আসেন তখন আর মূল চরিত্রে অভিনয় করার সুযোগ পাননি।

তার এই হঠাৎ উধাও হয়ে যাওয়ার প্রসঙ্গ নিয়ে তাকে প্রশ্ন করেছিলেন আর একটা টলিউড অভিনেতা শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়। অভিষেক জি বাংলায় শাশ্বতর পরিচালনায় ‘অপুর সংসার’ নামক রিয়্যালিটি শোতে এসে এই প্রশ্নের মুখোমুখি হবার পর বিস্ফোরক তথ্য তুলে আনেন।

সবার সামনেই তিনি বলে বসেন তার ক্যারিয়ার শেষ করে দিয়েছিল তৎকালীন টলিউডের ‘দাদা দিদি’ জুটি। বলাইবাহুল্য তিনি নাম না বললেও দর্শকদের কারো বুঝতে অসুবিধা হয়নি যে তিনি বুম্বাদা ওরফে প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় এবং ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তকে দায়ী করেছেন। কারণ অভিষেকের পাশাপাশি সে সময় টলিউডের হিট জুটি ছিলেন প্রসেনজিৎ-ঋতুপর্ণা।

শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে তিনি শেয়ার করে নেন আরো অন্ধকার মুহূর্ত। জানান ঋতুপর্না প্রসেনজিতের পলিটিক্সের কারণে তার হাতছাড়া হয়েছিল প্রায় কুড়ি বাইশটি সিনেমা। প্রায় এক বছর তার হাতে কোনো কাজ ছিল না। ফলে লক্ষ্মীর ভাঁড় ভেঙে জমানো টাকায় সংসার চালাতে হতো তাকে। পাশাপাশি এও দাবি করেন যে ঋতুপর্ণা প্রসেনজিৎ এর নোংরা রাজনীতির ফলে আর কখনোই পুরোপুরি আগের মত তিনি ফিরে আসতে পারেননি টলিউডে।

Back to top button