টলিউড

বদলে গেল ‘আবার প্রলয়’-এর পরিচালক! রাজ নন, বরং তাকে সরিয়ে ছোটখাটো চেহারার ইনিই হলেন গল্পের নতুন পরিচালক! চুপচাপ মেনেও নিলেন শুভশ্রীও

পর্দায় ফের আসতে চলেছে প্রলয়। তার আগেই শুটিং স্পটে হাজির প্রত্যেকে। কিন্তু প্রথম দিনেই পরিচালক বদলে নিলেন শুভশ্রী গঙ্গোপাধ্যায়(Subhashree Ganguly)। নিজের স্বামীর উপর ভরসা করতে পারলেন না তিনি। তাই রাতারাতি রাজকে(Raj Chakraborty) বাতিল করে দিলেন শুভশ্রী। তার জায়গায় নিলেন অন্য এক পরিচালক। যিনি এই দারিতে একেবারেই নতুন। ছোটখাটো চেহারার এই ‘কচি’ পরিচালকের যাবতীয় দাবি মেনে নিচ্ছেন শুভশ্রী। ভাবছেন নিশ্চয়ই কে সে? সে অন্য কেউ নয় বরং ইউভান চক্রবর্তী(Yuvaan Chakraborty)।

পুরনো পরিচালকের কোলে জাঁকিয়ে বসে রয়েছে এই নতুন পরিচালক। কিন্তু তার হাবভাব একেবারে পোড় খাওয়া পরিচালকের মত। গুরু গম্ভীর মুখ হাতে ধরে রয়েছে মাইক। সবাইকে নির্দেশ দেওয়ার জন্য তৈরি। তবে মাইকের ওজন তার থেকে একটু বেশি। তাতে কি? নিজের দায়িত্ব কিন্তু দিব্যি বুঝে নিয়েছেন ছোট্ট এই পরিচালক।

আবার প্রলয়(Abar Pralay) সিরিজ দিয়ে ওয়েব দুনিয়াতে পা রাখতে চলেছেন রাজ। যার প্রযোজনার দায়িত্ব সামলাবেন শুভশ্রী। শুটিং শুরু হতেই চক্রবর্তী দম্পতি পৌঁছে গিয়েছেন সেখানে। আর বাবা-মায়ের সঙ্গে গুটিগুটি প্রায় হাজির হয়েছে ইউভান। বাবার সঙ্গে রংমিলান্তি পোশাকে সেজেছে ছোট্ট খুদে। গাঢ় নীল রঙের ট্রাকসুট মাইক হাতে বসে পড়েছে সে। বাবার কানে হেডফোন। আর এই সুন্দর মুহূর্ত ফ্রেমবন্দি করেছেন শুভশ্রী। তারপরে সেটা সামাজিক মাধ্যমের পাতায় ছড়িয়ে দিয়েছেন সবার সঙ্গে।

তবে ইউভান অনুরাগীরা বেশ রসিক। তারা বুঝে নিয়েছে একবার বাপ ছেলে মিলে ঝড় তুলতে তৈরি। মায়ের সঙ্গে বেশি থাকলেও রাজের আসল ক্রাইম পার্টনার কিন্তু সে। গাড়ি চালানো হোক কিংবা প্রযোজনা অফিসে বাবার সঙ্গে এক চেয়ারে বসা। সবেতে আছে বাবার প্রশ্রয়।

বিসমিল্লা, বৌদি ক্যান্টিন, ধর্মযুদ্ধ একের পর এক ছবিতে শুভশ্রী অনন্যা। হইচইতে আসতে চলেছে তার আরেকটি ওয়েব সিরিজ ইন্দুবালা ভাতের হোটেল। যার প্রথম ঝলক দেখে চমকে গিয়েছেন প্রত্যেকে। পরিচালক দেবালয় ভট্টাচার্যের অনুসরণে প্রস্তেটিক রূপ টান দিয়ে শুভশ্রী হয়ে উঠেছেন ৭২ বছরের বিধবা। কিন্তু শুভশ্রীর খিদে মেটেনি এখনও। তাই আপাতত চেনা মুলুক ছেড়ে প্রযোজনার দায়িত্ব সামলাচ্ছেন তিনি।

২০১৩ সালে ‘প্রলয়’ ছবির হাত ধরে উঠে এসেছিল ছাত্রনেতা বরুন বিশ্বাসের জীবন এবং অকাল মৃত্যুর কাহিনী। রাজের পরিচালনায় এই ছবি ছিল আদ্যপ্রান্ত এক রাজনৈতিক ছবি। সেখানে নাম ভূমিকায় দেখা গিয়েছিল পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়, শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়, মিমি চক্রবর্তী, পদ্মনাভ দাশগুপ্ত, রুদ্রনীল ঘোষ এবং পরান বন্দ্যোপাধ্যায়কে।

Back to top button