টলিউড

‘কাউকে জড়িয়ে ধরলেই কি ঘনিষ্ঠ নাকি? মদন মিত্র আমার বাবার মতো, সেটাই আমাদের সম্পর্ক’! মদন মিত্রর সঙ্গে ভাইরাল ছবি নিয়ে এবার মুখ খুললেন শ্রীতমা

বেশ কিছুদিন ধরেই মদন মিত্র এবং অভিনেত্রী শ্রীতমা ভট্টাচার্যকে নিয়ে বেশ জল ঘোলা হচ্ছে। শ্রীতমা মদন মিত্র কে জড়িয়ে ধরে আছেন এমন একটি ছবি নিয়ে সমালোচনা করছেন একাংশ মানুষ। কেউ কেউ দাবি করছেন তাদের দুজনের মধ্যে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক আছে। এমন সম্পর্কের কথা রাজ্য রাজনীতি হোক বা অভিনয় কোন ক্ষেত্রেই কম নয়। তবে এ বিষয়ে এবার সরাসরি মুখ খুললেন অভিনেত্রী নিজেই। এক জনপ্রিয় সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে অভিনেত্রী যা বলেছেন তা আপনাদের সামনে তুলে ধরা হলো –

অভিনেত্রী কে প্রথম প্রশ্ন করা হয়েছিল, পার্থ চট্টোপাধ্যায়-অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের পরেই নাকি নজরে মদন মিত্র-শ্রীতমা ভট্টাচার্য? এ প্রশ্নের উত্তরে অভিনেত্রী বলেন, “তাই নাকি? কে বলছেন এ সব? আমায় কিন্তু কেউ কিচ্ছু বলছেন না। এই নিয়ে কোনও চাপও তৈরি করছেন না কেউ।”

অভিনেত্রী নিজে জানিয়েছেন “নির্বাচনে জিতে পৌরমাতা হওয়ার পরে রাজনীতিবিদদের সঙ্গে আমার সম্পর্ক একদম পেশাগত। ওঁরা কেউ আমার মন্ত্রী, বিধায়ক বা সাংসদ। আমি পুরমাতা। যেমন, মদন মিত্রের এলাকায় আমি পুরমাতা।” এ বিষয়ে অভিনেত্রীকে প্রশ্ন করা হয়েছিল এর বাইরে কি মদন মিত্রের সঙ্গে আপনার কোন ব্যক্তিগত সম্পর্ক নেই? সে বিষয়ে অভিনেত্রী স্পষ্ট বলেন, “হ্যাঁ, আছে তো। ওঁকে আমি আমার বাবার বন্ধু হিসেবে বহু বছর আগে থেকেই চিনি। মদন মিত্রের সঙ্গে আমাদের পারিবারিক সম্পর্ক। বাবার ওপেন হার্ট সার্জারির সময় মদনদা এবং ওঁর পুরো পরিবার আমাদের পাশে ছিলেন। অস্ত্রোপচার থেকে ওষুধ— বাবার চিকিৎসার যাবতীয় দায়িত্ব কামারহাটির বিধায়ক নিজের হাতে তুলে নিয়েছিলেন। বাবা চলে যাওয়ার পরে উনিই আমার বাবার জায়গা নিয়েছেন। মদন মিত্র শ্রীতমা ভট্টাচার্যের অভিভাবক। আর আমাকে নিয়ে গুঞ্জন তো নতুন নয়।”

অভিনেত্রীর সাথে মদন মিত্রের যে ছবি নেট মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে সে সম্পর্কে প্রশ্ন করলে অভিনেত্রী জানান, “মদন মিত্রর সঙ্গে খুব ‘ঘনিষ্ঠ ছবি’ আদৌ কি আমার আছে? যাঁরা এ সব বলছেন, তাঁরা কোন ছবি দেখে বলছেন কে জানে! আমি আপনাকে জড়িয়ে ধরে ছবি তুললেই আপনি আর আমি কি খুব ঘনিষ্ঠ? বাকিদের কাছে ঘনিষ্ঠতার মাপকাঠি ঠিক কী? আমার জানা নেই। তার পরেও বলব, মদন মিত্রর সঙ্গে যে ছবি নিয়ে এত চর্চা হচ্ছে, সেগুলো কিন্তু এক জন মেয়ে তার বাবাকে জড়িয়ে ধরে তুলেছে। তাই আমার কোনও অস্বস্তি নেই। আমাদের সম্পর্ক খুব সুস্থ।”

Back to top button