বাংলার লৌকিক দেবতা কলুরায়কে ভক্তিভরে ডাকলে পূরণ হয় মনের সব বাসনা, জেনে নিন এই দেবতার মাহাত্ম্য

ঈশ্বরের দোহায় দিয়ে কত মানুষ যে দিন কাটাচ্ছে তার ঠিক আছে। ভগবানের ভরসায় সংসার চলছে এমন কতজনের। ভগবান তুমি দেখো বা ঈশ্বর আছেন, এই কথা আশ্বাস জুগিয়ে চলেছে কত শত মানুষকে প্রতিনিয়ত। নিয়মিতভাবে তাই যে যার আরাধ্য দেবতাকে সেবা দিয়ে থাকে এবং পুজো করে থাকে।

পুরাণ অনুসারে মেঘ, জল, বাতাস ইত্যাদি এইসব কিছুরই দেবতা হয় বলে আপনারা জানেন। সবাই নির্দিষ্ট নির্দিষ্ট কারণে নির্দিষ্ট দেব দেবীর আরাধনা করে থাকে।

বাংলার এক স্থানীয় দেবতা হলেন কলুরায়। পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জায়গায় রয়েছে তাঁর মন্দির। কথিত আছে, একনিষ্ঠভাবে বাবাকে ডাকলে তিনি মনস্কামনা পূরণ করেন।

পেশাজীবন হোক বা সংসারজীবন সবক্ষেত্রেই উন্নতি হয়। স্থানীয় মতে গরু সন্তান সম্ভবা হলেও অনেকে মানথ করেন যে গরুর দুধ দিয়ে আগে দেবতার পুজো দেবেন তারপরই সেই দুধ নিজে পান করবেন।

এমন মানথের কারণ হলো গর্ভাবস্থায় যাতে গরুটিকে ভগবান কালুরায় রক্ষা করেন যে কোনো বিপদ থেকে। বাবার পুজোতে অবশ্যই দেওয়া হয়ে থাকে মাটির ঘোড়া ও হাতি।

সততা, নির্ভীকতা ও ভক্তি থাকলে আপনি বাবা কলুরায়ের কৃপা লাভ করবেন। পূরণ হবে আপনার মনের ইচ্ছে। সুখ, শান্তিতে ভরে যাবে আপনার জীবন।

বাংলার একজন লৌকিক দেবতা কালুরায়। কোনও কোনও মন্দিরে তিন ব্যাঘ্র-দেবদেবী বনবিবি, দক্ষিণরায় ও কালুরায় একসঙ্গে পূজিত হন। কুমিরের হাত থেকে রক্ষার জন্য দেওয়া হয় কালুরায়ের পূজা।

সুন্দরবনে জল ও বনজীবী মানুষেরা তার পূজা করে। সুন্দরবনের কালু রায় ও রাঢ়ের ধর্মঠাকুর (যারও আরেক নাম কালু রায়) একনয়।