টলিউড

স্নিগ্ধজিৎ জ্বরে কাঁপছে গোটা বাংলা! বম্বে থেকে গ্রামের বাড়ি এলেন স্নিগ্ধজিৎ, গর্বিত বোধ করালেন বাবা-মা স্ত্রীকে

বাংলা সারেগামাপার পর হিন্দি সারেগামাপার মঞ্চ মাতাতে হাজির হয়েছেন স্নিগ্ধজিৎ ভৌমিক। ২০১৯-এ জি বাংলা সারেগামাপায় দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছিলেন স্নিগ্ধজিৎ। সে বছর তার অনুরাগীরা চেয়েছিলেন তিনি প্রথম স্থান অধিকার করুক। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা হয়নি। বর্তমানে তিনি পাড়ি দিয়েছেন বম্বেতে। বাংলার পাশাপাশি হিন্দিভাষীদেরও মন জয় করার প্রথম ধাপ পেরিয়েছেন স্নিগ্ধজিৎ। প্রথম ধাপ পেরোনোর পরেই মেডেল নিয়ে গ্রামের বাড়িতে বাবা-মা এবং স্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে এলেন স্নিগ্ধজিৎ।

সম্প্রতি হিন্দি সারেগামাপাতে প্রতিযোগী হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। তার গানে ইতিমধ্যেই মুগ্ধ বিচারকমণ্ডলী। এবছর বিচারক আসনে রয়েছেন বিশাল দাদলানি, শঙ্কর মহাদেভান, হিমেশ রেশমিয়া। তার গান শুনে নাচতে নাচতে গিয়ে বিশাল দাদলানি মেডেল পরিয়ে দিয়েছেন স্নিগ্ধজিৎ ভৌমিককে। এরপরে কিছুক্ষণের জন্য হলেও স্তম্ভিত হয়ে গিয়েছিলেন গায়ক। সেই দৃশ্যের ভিডিও ইতিমধ্যেই ভাইরাল নেটদুনিয়ায়। স্নিগ্ধজিৎ অনুরাগীরা এই খবরে উচ্ছ্বসিত।

নিজের পরিবারকে এবং গ্রামের বাড়িকে ভীষণভাবে ভালবাসেন গায়ক। তাই বম্বেতে হিন্দি সারেগামাপায় প্রতিযোগী হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পরেই সেই আনন্দ নিজের পরিবারের সঙ্গে ভাগ করে নেওয়ার জন্য সোজা চলে গিয়েছিলেন গ্রামের বাড়িতে। ফেসবুকে ভিডিও করে সেই পুরো দৃশ্য সকলকেই দেখিয়েছেন তিনি। সেই ভিডিও এখন ভাইরাল।

ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে গ্রামের বাড়িতে পৌঁছানোর পরেই মেডেল পাওয়ার আনন্দ পরিবারের সাথে ভাগ করে নিচ্ছেন তিনি। বাবা-মা ও স্ত্রীয়ের হাতে তুলে দিলেন তার পাওয়া মেডেল। তার সাফল্যে সকলেই উচ্ছসিত ছিলেন। এই ভিডিওর মাধ্যমে তার অনুরাগীদের প্রতি এবং দর্শকদের প্রতি তার কৃতজ্ঞতার কথা জানালেন স্নিগ্ধজিৎ। ভবিষ্যতে এক লম্বা পথ চলা বাকি স্নিগ্ধজিৎ-এর। সেই সফরে সকলকে তার পাশে থাকার এবং সাপোর্ট করার অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।

এবছর হিন্দি সারেগামাপার মঞ্চ মাতাচ্ছে পাঁচ বাঙালি প্রতিযোগী। অনন্যা, স্নিগ্ধজিৎ, কিঞ্জল, নীলাঞ্জনা, দীপায়ন। সম্প্রতি এই পাঁচ বাঙালি প্রতিযোগীর গানে মুগ্ধ বিচারক মন্ডলী। এবছর টপ ১৬ পার্টিসিপেন্টদের বেছে নেওয়া খুব একটা সহজ ছিল না বিচারকদের জন্য। তবে এই ১৬ জনের মধ্যে থেকে কোন ১ জন জয় ছিনিয়ে নেয় তা জানার জন্য চোখ রাখতে হবে জি টিভির পর্দায়, প্রত্যেক শনি ও রবিবার।

Back to top button