টলিউড

ছোট্ট দোকান থেকে বড় ব্র‍্যান্ড তৈরি করতে চান বাংলার টুকটুকি! ‘MA ইংলিশ চাইওয়ালি’ হাবড়ার টুকটুকি দাসের পাশে এ বার ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত

পড়াশোনা করলেই বড় চাকরি করতে হবে এই ধারণা আমাদের সমাজের প্রায় সকলের মধ্যেই বর্তমান। তবে শূন্য থেকে শুরু করে নিজের ব্র্যান্ড তৈরি করার স্বপ্ন দেখতে পারেন খুব অল্প কজনই। তার মধ্যে অন্যতম হলেন টুকটুকি দাস। তার অনুপ্রেরণা মধ‍্যপ্রদেশের প্রফুল্ল বিল্লোর।

এম এ পাস করে চায়ের দোকান খুলেছে টুকটুকি। তার এই সিদ্ধান্তে নাক সিঁটকেছিল অনেকেই। তবে এবার তার এই সিদ্ধান্তকে সম্মান জানালেন টলিউডের প্রথম সারির অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। হাবরা স্টেশনে নিজের এক চিলতে চায়ের দোকান খুলে বসেছে টুকটুকি। রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্য নিয়ে এম এ করেছে সে। অভিনেত্রীর কথায়, শিক্ষাগত যোগ্যতা এবং তার বুদ্ধি ও ইচ্ছা শক্তির জোরই তাকে একদিন অনেক উপরে নিয়ে যাবে। অভিনেত্রীর মতে, ‘এম এ ইংলিশ চায়েওয়ালি’ একদিন অনেক বড় ব্র‍্যান্ড হয়ে উঠবে।

পড়াশোনা শেষ করার পর ঠিকমতো চাকরি না পাওয়ায় এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে সে। প্রথমে তার বাবা-মা তার এই সিদ্ধান্তকে সমর্থন জানাননি। কিন্তু সেই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়েও সে নিজের সিদ্ধান্ত থেকে নড়েনি। বর্তমানে টুকটুকির চেষ্টা এবং লড়াই দেখে তার পাশে দাঁড়িয়েছেন তার বাবা-মা। তার বাবা পেশায় একজন ভ্যান চালক এবং মা ছোট্ট মুদিখানার দোকান চালান।

তার স্বপ্ন সে নিজের ব্র্যান্ডকে সারাদেশে ছড়িয়ে দেবে। ইতিমধ্যেই সে একটি নিজের ইউটিউব চ্যানেল খুলে ফেলেছে, নিত্যদিনের নানা দৃশ্য সেই চ্যানেলে শেয়ার করেন তিনি। ইতিমধ্যেই তার এই লড়াইয়ের কথা জেনে গেছেন অনেকেই। তার ইউটিউবে এখন লক্ষাধিক ফলোয়ার্স।

তবে সম্প্রতি ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তর সমর্থনের কথা শুনে আপ্লুত টুকটুকি। তার স্বপ্ন সফল হলে সে একদিন অভিনেত্রীকে নিজের দোকানে ডেকে নিজের হাতে তৈরি চা খাওয়াবেন বলেই জানিয়েছেন তিনি। হাবরার তৃণমূল বিধায়ক তথা মন্ত্রী জ‍্যোতিপ্রিয় মল্লিক তাকে সাহায‍্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। ইতিমধ্যেই তার দোকান তৈরীর জন্য জায়গার খোঁজ শুরু হয়ে গিয়েছে।

মধ‍্যপ্রদেশের প্রফুল্ল বিল্লোর তার অনুপ্রেরণা সেকথা তিনি নিজেই জানিয়েছেন। তিনিও নিজের চেষ্টায়, পরিশ্রমের জোরেই ‘এম বি এ চায়ে ওয়ালা’কে পৌঁছে দিয়েছেন গোটা দেশের বহু মানুষের কাছে। বর্তমানে গোটা দেশজুড়ে বিভিন্ন জায়গায় তার দোকানের আউটলেট রয়েছে। টুকটুকির বিশ্বাস সে একদিন নিজে তার ব্র্যান্ডকে সারাদেশের মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে পারবেন। ইতিমধ্যেই টুকটুকি অনেকের কাছে তাদের অনুপ্রেরণা হয়ে উঠেছেন তা নিঃসন্দেহে বলাই যায়।

Back to top button