বাংলা সিরিয়াল

যখনই কোন ধারাবাহিক শেষ করতে হয় গল্পের নায়িকা কে মেরে ফেলেন লীলা গাঙ্গুলী, আবারও দর্শকদের কটাক্ষের মুখোমুখি হতে হল লেখিকাকে

ধারাবাহিক হলো মানুষের জীবনের নিত্যদিনের অন্যতম একটি অংশ। শুধুমাত্র বর্তমান সময়ে নয়, বহু বছর ধরেই এই ধারাবাহিকগুলি মানুষের জীবনে গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে এসেছে। পার্থক্য শুধুমাত্র ধারাবাহিকের গল্প এসেছে। আজ থেকে কয়েক বছর আগে ধারাবাহিকের গল্প অন্যরকম ভাবে দেখানো হতো বর্তমান সময়ে আবার ধারাবাহিকের গল্পগুলি অন্যরকম। সময়ের সাথে সাথে সব কিছুই পাল্টেছে।

বর্তমানে যারা ধারাবাহিক লেখেন তাদের চিত্রনাট্যকার বলা হয়। বর্তমান সময়ে বাংলা ধারাবাহিকের চ্যানেল গুলোর মধ্যে অন্যতম জনপ্রিয় হলো স্টার জলসা। আর স্টার জলসার বর্তমান ধারাবাহিক গুলির চিত্রনাট্যকার বেশিরভাগ সময় লীনা গাঙ্গুলী হয়ে থাকেন। তার লেখা বিভিন্ন ধারাবাহিক বিয়ের জনপ্রিয়তা পেয়েছে খুব অল্প সময়ের মধ্যে।

তবে বর্তমান সময়ে লীনা গাঙ্গুলীর ধারাবাহিকগুলি সোশ্যাল মিডিয়ায় নেটিজেনদের কটাক্ষের মুখে পড়ছেন। তার ধারাবাহিকের গল্প নিয়ে হাসাহাসি ঠাট্টা তামাশা চলছে সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে। যেমন লীনা গাঙ্গুলীর লেখা দুটি জনপ্রিয় ধারাবাহিক হলো খড়কুটো এবং ধুলোকণা।

খড়কুটো ধারাবাহিকটি মাস খানেক আগেই শেষ হয়েছে। ধারাবাহিকের নায়িকার মৃত্যু দিয়ে ধারাবাহিকের গল্প শেষ হয়। অন্যদিকে ধুলোকণা ধারাবাহিক ও শেষের পথে। আর এই ধারাবাহিককেও খড়কুটো ধারাবাহিকের মত নায়িকার পরিণতি হতে চলেছে।

বেশ কিছুদিন ধরেই ধুলোকণা ধারাবাহিকে আমরা নায়কের পরকীয়া দেখতে পাচ্ছি। যা দেখতে দেখতে দর্শক একেবারে তিথিবিরক্ত হয়ে উঠেছে। আর তার জন্য গল্পের লেখিকা কে যা নয় তাই বলে অপমান করা হচ্ছে। তাই জন্য ধারাবাহিক খুব তাড়াতাড়ি ভাবে শেষ করে দেওয়া হচ্ছে। তবে ধারাবাহিক শেষ করে দেওয়ার সময় দেখানো হবে ফুলঝুরির পেটে টিউমার হওয়ার কারণে সে মারা যাচ্ছে।

আর এখানে ধুলোকণা এবং খড়কুটা ধারাবাহিকের মধ্যে মিল খুঁজে পেয়েছেন দর্শক। তাই লীনা গাঙ্গুলীকে অনেকেই নায়িকা মেরে ফেলার খোটা দিয়েছে। যখনই কোন ধারাবাহিক শেষ করে দেওয়ার হয় তখনই লীনা গাঙ্গুলী নায়িকাদের মেরে ফেলেন এমনই দাবি করছেন দর্শক।

Back to top button