বাংলা সিরিয়াল

‘জলসার ভরাডুবির দিনে মুখ রাখলো অ্যাক্রোর ধারাবাহিক ‘গাঁটছড়া’ আর ‘সাহেবের চিঠি’! একটা বেঙ্গল টপার, অপরটি স্লট লিডার’! অ্যাক্রো প্রজেক্টের প্রশংসায় পঞ্চমুখ জলসা ভক্তরা!

যে কোনো ধারাবাহিক নিয়ে মানুষের উৎসাহ উদ্দীপনা থাকে। কিন্তু বর্তমান সময়ে একটি ধারাবাহিক কতটা ভালো এবং কতটা খারাপ তা নির্ভর করে সেই ধারাবাহিকের টিআরপির ওপর। অর্থাৎ ঠিক কতজন মানুষ এই ধারাবাহিকটি দেখছেন তার ওপর। যদি কোন মানুষ কোন একটি ধারাবাহিক দেখতে দেখতে একবার‌ও চ্যানেল পরিবর্তন না করেন, এমন কি ব্রেক হলেও চ্যানেল পরিবর্তন না করেন তখন সেটা টিআরপি হিসেবে কাউন্ট হয় আর এই টিআরপির নিরিখে যে ধারাবাহিকটি সবথেকে বেশি রেটিং পায়, সেই ধারাবাহিক টি হয় বেঙ্গল টপার।

প্রতি সপ্তাহে প্রত্যেকটি ধারাবাহিকের সাথে ধারাবাহিকের হাড্ডাহাড্ডি লড়াই থাকে, স্লট ছিনিয়ে নেওয়ার লড়াই এবং অবশ্যই সবার প্রথম বা বেঙ্গল টপার হওয়ার লড়াই। এই বেঙ্গল টপার এর লড়াইয়ে সব থেকে আগে এগিয়ে আছে জি বাংলার জনপ্রিয় ধারাবাহিক মিঠাই। ১ বা ২ বার নয় প্রায় ৫৬ বার বেঙ্গল টপার হয়েছে এই ধারাবাহিক। যদিও গত সপ্তাহে এই ধারাবাহিক বেঙ্গল টপার হয়নি গত সপ্তাহে জি বাংলার অন্য একটি ধারাবাহিক ‘গৌরী এলো’ বেঙ্গল টপার হয়ে ছিলো। এই সপ্তাহের ধারাবাহিকের লড়াইয়ে দেখা যাচ্ছে বেঙ্গল টপার ধারাবাহিক হচ্ছে স্টার জলসার একটি ধারাবাহিক।

এখন প্রসঙ্গত বেশ কিছুদিন ধরে স্টার জলসার ভক্তরা দু ভাগে ভাগ হয়ে গেছে এবং তারা বলছে স্টার জলসা নাকি বেশি করে অ্যাক্রোপলিশ এন্টারটেইনমেন্টের ধারাবাহিক গুলো বেশি করে প্রমোট করে অন্যান্য ধারাবাহিক গুলোর চাইতে। যদিও কথাটি সত্যি নয় তবে এইবার এই সপ্তাহের টিআরপি রেটিং বেরোনোর পর অ্যাক্রো ভক্তদের দাবি যদি স্টার জলসা এমনটা করে তাহলে ঠিকই করে কারণ স্টার জলসার যখন কোন ধারাবাহিক স্লট লিডার হয়নি তখন অ্যাক্রোর দুটো ধারাবাহিক‌ই স্টার জলসার মুখ রক্ষা করেছে। একটি গাঁটছড়া অপরটি হলো সাহেবের চিঠি।

এই প্রসঙ্গে একজন নেটিজেন লিখেছেন,“ জলসা নাকি এক্রোর পা চাটে
বেশ করে আরো চাটুক
আজ জলসার ভরাডুবির মধ্যে এক্রোই জলসার
স্তম্ভ। গাঁটছড়া বেঙ্গল টপার 8.2।
সাহেবের চিঠি 5.9 স্লট লীডার।”-প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যদিও সাহেবের চিঠি যৌথভাবে স্লট লিডার হয়েছে তবুও জলসার এই দুর্দিনে যে স্লট উদ্ধার হয়েছে এটাই অনেক বলে মনে করছেন ভক্তরা।

Back to top button