বাংলা সিরিয়াল

“এত আনন্দ আয়োজন, সবই বৃথা তোমায় ছাড়া” – “দাদাগিরি”র মঞ্চে “দেখো আলোয় আলোয় আকাশ” গানে নেচে সৌরভের প্রশংসা কুড়িয়েছিলেন ঐন্দ্রিলা

ঐন্দ্রিলা শর্মা, অভিনেত্রী থেকে তাঁকে যোদ্ধা বলাই হয়তো ভালো হবে। দু – দুবার ক্যান্সারকে জয় করে আবার ফিরে এসেছিলেন তিনি। যদিও এখন আবারও কঠিন রোগের সাথে হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে যুদ্ধ করছেন তিনি। আমরা জানি তুমি ফিরবে, তুমি যোদ্ধা, তুমি জয়ী। দশ শতাংশ মানুষ যারা ব্রেন স্ট্রোকের পর ফিরে আসে তার মধ্যে তুমিও থাকবে। কারণ একটাই তুমি যোদ্ধা। “খাদ” ছবির “দেখো আলোয় আলোয় আকাশ” গানে নৃত্যশিল্পের মধ্যে চোখে মুখে যোদ্ধার ভাব ফুটিয়ে তুলেছিলেন অভিনেত্রী। এখন হাসপাতালে বিছানায় থাকলেও তিনি যুদ্ধ করছেন।

চলতি বছরেও একবার ক্যান্সারকে জয় করে ধীরে ধীরে নিজের কাজের জগতে ফিরছিলেন অভিনেত্রী। কাজের জন্য গোয়াতেও যাওয়ার কথা ছিল তাঁর। “দাদাগিরি”র মঞ্চে শ্রীজাতর লেখা, অরিজিৎ সিংয়ের গাওয়া গানে পারফরমেন্সও করেন তিনি। “দেখো আলোয় আলো আকাশ, দেখো আকাশ তারায় ভরা, দেখো যাওয়ার পথের পাশে, ছোটে হাওয়া পাগলপারা, এত আনন্দ আয়োজন, সবই বৃথা আমায় ছাড়া” গানে নাচ করতে দেখা গিয়েছিল ঐন্দ্রিলাকে। তাঁর পারমেন্সে অন্যান্য প্রতিযোগিরা আবেগে ভাসলেও তাঁর চোখে মুখে শুধুই ছিল জেদ। ঘুরে দাঁড়ানোর লড়াই।

প্রতিযোগিতা প্রশংসা করলেও মহারাজা প্রশংসা করলে ব্যাপারটা আলাদাই দাড়ায়। নাচের পর অভিনেত্রীর পাশে এসে দাঁড়ান “প্রিন্স অফ ক্যালকাটা”। অভিনেত্রীর কাঁধে হাত রেখে মহারাজা বলেন, “এত আনন্দ আয়োজন, সবই বৃথা তোমায় ছাড়া”। এই কথা শুনে অন্যান্য প্রতিযোগীদের অনেকেরই চোখে জল চলে আসে। এই মুহূর্তেও শারীরিক অসুস্থতার সাথে হাসপাতালের বেডে শুয়ে লড়াই করছেন এই ২৩ – ২৪ বছরের অভিনেত্রী। মস্তিষ্কের রক্তক্ষরণ হয়ে গত মঙ্গলবার রাতে আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাওড়ার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন তিনি।

এখন অভিনেত্রীর শরীরের অন্য কিছু ভাইটালস স্বাভাবিকভাবেই রয়েছে। তবে মঙ্গলবার রাতে আশঙ্কা জনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর ক্রেনিওটমি অস্ত্রোপচার হয়। এই অস্ত্রোপচারে স্কালের থেকে একটি হাড় এর অংশবিশেষ বার করা হয় মস্তিষ্ক ওপেন করে দেখার জন্য৷ তবে অভিনেত্রী মায়ের তরফ থেকে জানানো হয়েছিল যে এখন কিছুটা ঠিক আছে না অভিনেত্রী। চোখ এবং একটা হাত একটু নড়ছে।

প্রসঙ্গত ওই মঞ্চে এসে অভিনেত্রী নিজের লড়াইয়ের কথা বলেছিলেন ক্যামেরার সামনে। স্বয়ং মহারাজা তাঁর লড়াইয়ের প্রশংসা করেছেন। শুধু তাঁর নয় প্রেমিক সব্যসাচীর ধৈর্য এবং ভালোবাসারকে কুর্নিশ জানিয়েছেন মহারাজা। “জেহনসীব” গানে মহারাজার সাথে বল ডান্স করে নিজের মনের ইচ্ছা পূরণ করেন অভিনেত্রী। অভিনেত্রীর শুভাকাঙ্ক্ষীদের মতই সৌরভ তাঁর আরোগ্যের কামনা করে বলেন, “এখানে যারা আছে, সবার আয়ু যেন তোমার লাগে”। এই কথায় অভিনেত্রী নিজেই আবেগ তাড়িত হয়ে কেঁদে ফেলেছিলেন। বর্তমানেও সকলের একটাই প্রার্থনা অভিনেত্রী সুস্থ হয়ে উঠুন যত তাড়াতাড়ি সম্ভব।

Back to top button