বাংলা সিরিয়াল

উচ্ছে বাবু বলার বদলা এতদিনে নিল সিদ্ধার্থ, মিঠাই কে শিম্পাঞ্জি বলে আখ্যা দিল সিড

বাংলার জনপ্রিয় ধারাবাহিক গুলির মধ্যে অন্যতম একটি হলো জি বাংলার মিঠাই। বিগত এক বছর ধরে দর্শকদের বিপুল পরিমান ভালোবাসা একসময় মিঠাই বেঙ্গল টপার হয়েছিল। তবে বর্তমানে কয়েক সপ্তাহ ধরে সময়টা ভাল যাচ্ছেনা তাই টিআরপি তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে দেখা যাচ্ছে মিঠাইকে। মিঠাই এর পুরোনো জায়গা দখল করে নিয়েছে স্টার জলসার গাঁটছড়া। তবে যাই হোক মিঠাই ভক্তরা কিন্তু এখনো অব্দি একই রকম ভাবে ভালোবাসা দিয়ে যাচ্ছেন যেমনটা প্রথম দিন থেকে দিয়ে আসছেন তারা। মিঠাই ধারাবাহিকের মূলমন্ত্র হলো যে যেমন পরিস্থিতি আসুক না কেন সকলকে হাসিমুখে সব সময় একসঙ্গে সেই খারাপ সময়টা পেরোতে হবে। আর সেই খারাপ সময়ে পাশে থাকে গোপাল।

বর্তমানে ধারাবাহিকে দেখানো হয়েছে যে হেলদি হেঁশেল নামের একটি কম্পিটিশনে প্রতিযোগী হিসেবে অংশগ্রহণ করেছিল মিঠাই এবং তোর্সা দুজনই। আর সেই কম্পিটিশনে তোর্সা র সমস্ত জারিজুরি ফাঁস করে দিয়ে মিঠাই সেরার শিরোপা দখল করে নেয়। উচ্ছে বাবু নামের নতুন একটি মিষ্টি বানিয়ে বিচারককে তাক লাগিয়ে দেয় সে এবং সকলের প্রশংসা পায় মঞ্চে। সকলেই তার সুস্বাদু অথচ লো ক্যালরির মিষ্টি খেয়ে গুনোগান করে।

আর সেই হেলদি হেঁসেল থেকেই মিঠাই এর জনপ্রিয়তা ছড়িয়ে পড়ে চারিদিকে। সকলেই তার মিষ্টি প্রশংসা করতে থাকে আর জনপ্রিয় সাংবাদিক প্রতীক সেন আসে মিঠাই এর সাক্ষাৎকার নিতে। যা শুনে তেলেবেগুনে জ্বলে ওঠে
বড়ো জা তোর্সা। আর উচ্ছে বাবু অন্যদিকে মিঠাই কে সেলিব্রিটি বলে খেপাতে শুরু করে। আর সকলের এতো ভালোবাসা প্রশংসা পেয়েছে মিঠাই একেবারে লজ্জায় লাল হয়ে যায়।

আর তখনই সিদ্ধার্থ মিঠাই কে খ্যাপানোর জন্য বলে ওঠে যেই সবার প্রশংসা পেয়েছে অমনি গাল ব্লাশ করতে শুরু করে দিয়েছে। একেবারে শিম্পাঞ্জির মতন লাল হয়ে গেছে গালদুটো। আর এই শুনে মিঠাই দাদু দাদু বলে খুন্তি নিয়ে তাড়া করে উচ্ছে বাবুর পেছনে।

আর মিঠাই এবং সিদ্ধার্থের এই খুনসুটি দর্শকরা দারুণ উপভোগ করছেন। এর আগেও সিদ্ধার্থ সাক্ষাৎকারে মিঠাই কে নানান ভাবে কে পেয়েছে এবং মিঠাইও অর্থাৎ সৌমিতৃষাও স্বীকার করেছে যে আদৃত নিজের ইচ্ছামত ধারাবাহিকে ডায়লগ গুলো পরিবর্তন করতে থাকে। তাই দর্শকদের এখানে আদৃত ইচ্ছে করেই স্ক্রিপ্ট এর বাইরে শিম্পাঞ্জি বলে ডেকেছে সৌমিতৃষা কে।

Back to top button