বাংলা সিরিয়াল

উড়ন্ত সিঁদুর, ছুটন্ত মালা নয়, সাহেব চিঠির সুস্থ স্বাভাবিক বিয়ের প্রোমো দেখে খুশি নেটিজেন! ‘সাহেবের চিঠি’ এইবার স্লট পাবেই বলছেন নেটিজেনরা

স্টার জলসার জনপ্রিয় ধারাবাহিক হল ‘সাহেবের চিঠি’। এই ধারাবাহিকে দেখানো হয়েছে সাহেব বলে একজন রকস্টার যে কিনা বাংলার আইকন সে কিছুদিন আগে অ্যাক্সিডেন্টে তার একটি পা হারায়। এরপরে সে রাগে, দুঃখে প্রতিজ্ঞা করে বসে যে, সে আর কোনদিনই গান গাইবে না। এরপর তার সাথে দেখা হয় ডাক পিয়ন মেয়ে চিঠির।‌ এই চিঠি যেন তার জীবনে একটু একটু করে আলোর ছোঁয়া নিয়ে আসে। চিঠির সংস্পর্শে আসার পর সাহেব আড়াল থেকে তার ভক্তদেরকে দেখা দেয়, কখনো আবার চিঠির জন্য সবার সামনে সাহেবের মান সম্মান রক্ষা পায়।

কিছুদিন আগেই সাহেব চিঠির বিয়ের ট্র্যাক এসেছে। চিঠি কে দেখে সাহেবের মা বুঝতে পারে যে চিঠিই একদম সাহেবের যোগ্য মেয়ে। তাই চিঠির সাথে সাহেবের বিয়ে ঠিক করে। এরপর কিছুদিন আগে দেখানো হয় যে মেহেন্দির দিন সাহেব হঠাৎ গান গাইতে শুরু করে এবং গান গাইতে গাইতে হঠাৎ করে সে থেমে যায়। অন্যদিকে সাহেবের এই বিয়েতে মত আছে কিনা তা জানতে সেখানে ছদ্মবেশে হাজির হয়েছিল চিঠি। তারপর সে সাহেবের অসম্পূর্ণ গানকে সম্পূর্ণ করে।

এখানে বলে রাখা ভালো সাহেব কিন্তু জানে না চিঠির সাথে তার মা তার বিয়ে ঠিক করেছে সে শুধু জানে তার মায়ের বন্ধুর মেয়ে। এরপর রাইমা ৩০ কোটি টাকা পাওয়ার লোভে সাহেবের মেহেন্দির দিন সাহেবের বাড়ি হাজির হয়ে ভালোবাসার নাটক করলেও সাহেব বুঝতে পারে যে রাইমা একজন সুবিধাবাদী। সে রাইমাকে জানায় সে তার মায়ের পছন্দ করা পাত্রীকেই বিয়ে করবে। এতটা শুনে সেখান থেকে চলে যায় চিঠি।

সম্প্রতি ধামাকাদার প্রোমো এসেছে সাহেবের চিঠির। যেখানে দেখানো হচ্ছে সাহেব চিঠির বিয়ে হচ্ছে আর সেখানে হাজির হয়েছে রা‌ইমা নাটক করতে। চিঠিকে দেখে অবাক হলেও সাহেব জানায় সে তার কথা রেখে বিয়ে করবে ‌‌, অন্যদিকে সাত পাক ঘুরতে গিয়ে সাহেব পড়ে গেলে চিঠি তাকে ধরে নিয়ে সাত পাক ঘোরে। রাইমা এবার ব্যঙ্গ করে বলে, সাত পাক ঘুরতে গিয়ে সাহেব মুখ থুবড়ে পড়বে।চিঠি উপযুক্ত জবাব দেয় তাকে, বলে একদিন রাইমাকেই সাহেবের পায়ে পড়তে হবে ‌‌‌‌‌। অনেকদিন পর একটি সুস্থ সুন্দর স্বাভাবিক বিয়ে দেখে মন ভরে যায় দর্শকদের। কমেন্ট বক্সে নেটিজেনরা বলতে শুরু করেছেন, উড়ন্ত সিঁদুর ছুটন্ত মালা নয়, সুস্থ বিয়ে দেখে চোখের শান্তি।এইবার এই ধারাবাহিক স্লট পাবেই!

Back to top button