বাংলা সিরিয়াল

‘রিয়েলিটি শো স্ক্রিপ্টেড হলে দেখে কি লাভ?’ দিদি নাম্বার ওয়ান ও লক্ষ্মী কাকিমার মেলবন্ধনে খুশি নন অধিকাংশ নেটিজেন!

গত ১০ই জুলাই দিদি নাম্বার ওয়ান এর এপিসোড ছিল জমজমাট। কারণ এই দিন লক্ষ্মী কাকিমা তার পুরো টিম নিয়ে হাজির হয়েছিলেন দিদি নাম্বার ওয়ান এর মঞ্চে। এই দিন দিদি নাম্বার ওয়ানের মঞ্চে এসে লক্ষ্মী কাকিমা অর্থাৎ অভিনেত্রী অপরাজিতা আঢ্য জানান তার ভাঙ্গা বাড়িতে সেরকম কিছুই নেই। অতি কষ্টে দিন কাটছে তার। একটা প্রেসার কুকার জিতবার আশায় সে এই মঞ্চে এসেছে। দিদি নাম্বার ওয়ানের দিদি রচনা ব্যানার্জীর প্রশ্নে ফাটিয়ে উত্তর দিয়েছেন লক্ষ্মী।

এই দিন রচনা লক্ষীর কাছে জানতে চান,“আচ্ছা লক্ষী দেবুদার ব্যাপারটা আমি ঠিক বুঝি না বর কি করে দাদা হয়?” এর উত্তরে লক্ষ্মী বলেন,“ আমার ৩০ বছর বিয়ে হয়ে গেছে তো। এতকাল বিয়ে হলে তো বর বউ মানে ভাই বোনই হল। আমি তো মাঝেমধ্যে আংকেল বলেও ডাকি।” এই উত্তর শুনে চমকে গিয়েছেন রচনা আর দর্শকের আসনে বসে থাকা লক্ষ্মীর বর দেবুদা হাসতে শুরু করেন। শ্বশুরবাড়ি থেকে ষড়যন্ত্র করে তাকে বার করে দেওয়া হলেও দিদির মঞ্চে এসে কারো নামে নিন্দা করেন নি লক্ষী, এই দিন রচনা ব্যানার্জীর সামনে লক্ষী বলেন, “আমরা জয়েন্ট ফ্যামিলি‌। আমরা একসঙ্গে আছি আর ভবিষ্যতেও থাকবো।”

এই দিন দিদির মঞ্চে দেখা যায় রচনার জন্য ঘুগনি নিয়ে এসেছিল লক্ষ্মী কাকিমা, চলমান লক্ষ্মী ভান্ডার এর প্রচারের উদ্দেশ্যে। জি বাংলার এই অনবদ্য ভাবনা যেখানে লক্ষ্মী কাকিমা আর দিদি নাম্বার ওয়ান এর মেল বন্ধন হয়েছে তা দেখে অনেকেই খুশি হয়েছেন। এর আগে এরকম অভিনব উদ্যোগ চ্যানেলের তরফ থেকে নেওয়া হয়নি বলেও তারা বলেছেন। আবার অনেক নেটিজেনদের বক্তব্য,“রিয়েলিটি শো যদি স্ক্রিপ্টেড হয় তবে কি লাভ?”

Back to top button