বাংলা সিরিয়াল

জেলে দাড়িয়ে ঋষিকে নিজের হাতে আঙুরফল খাইয়ে দিচ্ছে পিহু, মন ফাগুন ধারাবাহিকে ঋষি এবং পিহুর সুন্দর মুহূর্ত

ধীরে ধীরে সিরিয়াল প্রেমীদের সংখ্যা বাড়ছে। সেই সঙ্গে বাড়ছে ধারাবাহিক গুলির সংখ্যা। দর্শকদের চাহিদার কথা মাথায় রেখে নিত্যনতুন গল্প নিয়ে নতুন ধারাবাহিক শুরু হচ্ছে প্রতিটি চ্যানেলে। বিকাল হলেই বাড়ির মা কাকিমা এবং বয়স্করা টিভির সামনে বসে পড়ে ধারাবাহিক গুলি দেখার জন্য। জি বাংলা এবং স্টার জলসার ধারাবাহিক গুলির বেশিরভাগ বাড়ির ড্রইংরুমের অংশ হয়ে ওঠে। আর দর্শকদের এই প্রিয় ধারাবাহিকগুলোর মধ্যে অন্যতম একটি হলো স্টার জলসার ‘মন ফাগুন’ ধারাবাহিক। ঋষি এবং পিহুর প্রেম কাহিনী নিয়েই এগোচ্ছে এই ধারাবাহিক।

ঋষি এবং প্রিয়দর্শিনী দুজনেই ছোটবেলা থেকে একসঙ্গে মানুষ হয়েছেন। টুবাই এবং প্রিয় দুজনেই ছোট থেকে দুজনকে পছন্দ করে। কিন্তু একটি দুর্ঘটনার মাধ্যমে দুজনে আলাদা হয়ে যায়। তারপর বহু বছর দুজনের মধ্যে কোন যোগাযোগ থাকে না। কিন্তু হঠাৎই বেশ কয়েক বছর পরে আবারো প্রিয় এবং টুবাই এর দেখা হয়। কিন্তু দুজন দুজনের কাউকে চিনতে পারেনা। এরপর অবশ্য গল্প অনেকদূর এগিয়ে গিয়েছেন। বর্তমানে টুবাইদা তার আসল প্রিয়দর্শিনী কে চিনতে পেরেছে এবং প্রিয়দর্শিনী ও তার টুবাইদাকে খুঁজে পেয়েছে।

কিন্তু এর মধ্যে গল্পে এন্ট্রি নিয়েছে নকল প্রিয়দর্শিনী। যে সেন বাড়িতে নিজের জায়গা করে নিতে এসেছে। আসলে মনিকা সুরের বোনের মেয়ে মিলি এই ষড়যন্ত্রের যুক্ত এবং সেই মিলি টুবাই এবং প্রিয়দর্শিনী ছোটবেলার বন্ধু। যার ফলে টুবাই এর ছোটবেলার সব গল্পই মিলি জানে। তাই সে সহজে ঋষির মনে ভুল ধারণা ঢুকাতে পেরেছিল কিন্তু ভালোবাসার কখনো দুটো মানুষকে আলাদা করতে পারে না। তাই সময় পরিস্থিতির সঙ্গে সঙ্গে ঋষি ঠিকই নিজের আসল প্রিয়দর্শিনী কে চিনে নিয়েছে।

কিন্তু বর্তমানে ধারাবাহিকে দেখানো হচ্ছে ঋষি নিজের পিসেমশাই কে খুন করার অভিযোগে গ্রেপ্তার হয়েছে। আসলে মনিকা সুরের লোকই ঋষির পিসেমশাই কে খুন করে। কিন্তু সেই সব দায় গিয়ে পড়ে ঋষির উপরে এবং ঋষিকে বর্তমানে নির্দোষ প্রমাণ করতে পুরো পরিবার একজোট হয়েছে। পিহু দিনরাত চেষ্টা করে যাচ্ছে ঋষিকে জেল থেকে বের করে আনার তাকে নির্দোষ প্রমাণ করার। এরই মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ফ্যান পেজ থেকে একটি ভিডিও ক্লিপ ভাইরাল হয়। সেই ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে যে নিজের হাতে ঋষি কে খাইয়ে দিচ্ছে পিহু। ঋষি কে সে কথা দিচ্ছে এই ষড়যন্ত্র থেকে সে নিজের টুবাই দাকে বের করে আনবেই।আবার একসঙ্গে জীবনটা কাটাবে। আর এই ভিডিও দর্শকদের দারুণ পছন্দ হয়েছে। সকলের কমেন্ট বক্সে এটাই প্রার্থনা করেছে যাতে খুব তাড়াতাড়ি জেল থেকে বেরিয়ে আসতে পারে ঋষি।

Back to top button