বাংলা সিরিয়াল

‘১০ মিনিট দেরি হলেই মা বেলন-চাকি নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে’, ছোটবেলায় দেবাংশুকে কিভাবে মারতেন তার মা? ফাঁস করলেন রান্নাঘরে

বর্তমানে রাজনীতিতে এক পরিচিত মুখ দেবাংশু ভট্টাচার্য। তার চাঁচাছোলা বক্তব্য বরাবরই মন কেড়েছে আমজনতার। অসাধারণ বক্তৃতা ও উপস্থিত বুদ্ধির জোরে তিনি নজরে পড়ে গিয়েছিলেন তৃণমূলের প্রধান তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। ছাত্র রাজনীতি থেকে জীবন শুরু করা দেবাংশু এখন তৃণমূলের অন্যতম প্রধান মুখ l রাজনীতির মঞ্চ ছাড়াও তিনি বেশ জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়ায়। বিভিন্ন বিষয় নিয়ে তার বক্তব্য অনুরাগীদের মনে ঝড় তোলে। তাছাড়াও তার রাজনৈতিক কবিতা রীতিমতো ভাইরাল হয় বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মে।

এহেন “মাল্টিটাস্কিন” দেবাংশু ভট্টাচার্য পৌঁছে গিয়েছিলেন জি বাংলার বিখ্যাত রান্নাঘর অনুষ্ঠানে। তিনি শুধু একা নন,এই অনুষ্ঠানে দেখা গেছে তার মাকেও। মা – ছেলের বিভিন্ন কথাবার্তায় রীতিমতো জমে উঠেছিল রান্নাঘর। রাজনীতির মঞ্চে যে মানুষটাকে বরাবর দেখে অভ্যস্ত আমজনতা, তাকে টেলিভিশনে অন্য রূপে পেয়ে মুগ্ধ তারাও। রান্নাঘরের সঞ্চালিকা সুদীপা চট্টোপাধ্যায়ের সাথে আলাপচারিতায় দেবাংশু ভাগ করে নিলেন তার ছোটবেলার ঘটনা। তিনি জানালেন কিভাবে তার মা তাকে ছোটবেলায় মারতেন।

দেবাংশু জানিয়েছেন , তার মায়ের ক্ষেত্রে এত রকম গুণ রয়েছে যে তিনি বিভিন্ন রকম ভাবে পেটাতে পারেন।দেবাংশু বলেন তার মায়ের এই গুন গুলি নিয়ে নাকি আস্ত একটি বইও লেখা যায়!
দেবাংশুর কথায়,”মা দুর্গা আসছেন, তার হাতে এত রকম অস্ত্র। কিন্তু আমার মায়ের অন্য কোনো রকম ভাবে ভাবনার প্রয়োজন হয় না। আমার মা যে কোন কিছুকেই অস্ত্র করে নিতে পারেন। বেলুন চাকি থেকে খুন্তি, চামচ, এমনকি মুরগির ঠ্যাং কেও মা অস্ত্র করতে পারে।”

মায়ের বিরুদ্ধে এইসব অভিযোগ জানানোর পর দেবাংশু অবশ্য বলেন যে প্রত্যেক সন্তানকে মা-বাবার শাসন করার প্রয়োজন রয়েছে। আমি যদি রাত দশটার পর বাড়ি ঢুকতাম আমার মা বেলুন চাকি নিয়ে দরজায় দাঁড়িয়ে থাকতো। অভিভাবকদের শাসনের এই ভয়টা সন্তানকে নিয়মনিষ্ঠ করে তোলে।

Back to top button