বাংলা সিরিয়াল

আশ্রিতার মত চিলেকোঠার ঘরে থাকবে নোলক! ‘ছেলেমানুষি কাটিয়ে বড় হচ্ছে নোলক, খুব শীঘ্রই মিল হবে উকিল বাবু আর নোলকের’ নিজের অধিকার সম্পর্কে শাশুড়ি মাকে বলছে নোলক! দেখে খুশি হয়ে যাচ্ছেন ভক্তরা

কিছুদিন আগেই গোধূলি আলাপ ধারাবাহিকে দেখা গেছে যে ব্যারিস্টার বাবুর এক্সিডেন্ট হওয়ার পর নোলক যেন খুব তাড়াতাড়ি বড় হয়ে গেছে, সে তার স্বামীর দেখভালের সম্পূর্ণ দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছে। ঠিক সময় মত তার স্বামীকে ওষুধ খাইয়ে দিচ্ছে এবং তার স্বামীর যত্ন নিচ্ছে। উকিল বাবু যদি ওষুধ খেতে নাও চায়, তবু জোর করে সে ওষুধ খাইয়ে দিচ্ছিল। অন্যদিকে ছেলেমানুষ নোলককে একটু একটু করে বড় হতে দেখে এবং দায়িত্ব সম্পন্ন হতে দেখে তার প্রেমে পড়ে যাচ্ছিলেন উকিল বাবু। বয়সের যে প্রাচীর দুজনের মধ্যে তৈরি হয়েছিল তা যেন আস্তে আস্তে মিলিয়ে যাচ্ছিল কোথাও, একে অপরের কাছাকাছি আসতে শুরু করেছিলেন তারা।

তখনই সম্পর্কের মধ্যে ফাটল ধরাতে নতুন রূপে যেন ফিরে এলো রোহিনী। আদিকে বিয়ে করেছে সে। আর অরিন্দমের অনুমতি না নিয়ে আদি আর রোহিনীর এই বিবাহকাণ্ড মন্দিরের সম্পন্ন করেছে নোলক! স্বাভাবিকভাবেই এই ঘটনার পর রেগে গিয়েছেন অরিন্দম এবং বাড়ির সকলে। এরপর সম্প্রতি গোধূলি আলাপের একটি ভিডিও আবার বিশেষ করে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে।

যেখানে দেখা যাচ্ছে নোলকের শাশুড়ি মাকে নিজেল গহনা এবং শাড়ি ফিরিয়ে দিচ্ছে নোলক। নোলক বলছে, সে এই গয়না এবং শাড়ি সেদিনই পড়বে, যেদিন সে প্রকৃত অর্থে বাড়ির বড় বউ হবে। এগুলি খালি তার কাছে শুধুমাত্র সাজ হয়ে থাকবে না, তার অধিকার হয়ে উঠবে সেই দিন সে গহনা ও শাড়িগুলো তার শাশুড়ি মায়ের কাছ থেকে চেয়ে নেবে। কিন্তু যতদিন বাড়ির মানুষের মনে তার প্রতি আশ্রিতার মনোভাব থাকবে, ততদিন সে এই বাড়িতে একজন আশ্রিতার মতই থাকবে। অন্যদিকে বাড়ির বড় বউ চিলেকোঠার ঘরে থাকবে নোলকের এই সিদ্ধান্ত নিয়ে অবাক হয়েছেন নোলকের শাশুড়ি মা। তবে নোলকের আচরণের সবথেকে বেশি অবাক হয়েছেন নেটাগরিকরা। নোলক যে আস্তে আস্তে বড় হচ্ছে এবং তার আচরণের মধ্যে সেই বেড়ে ওঠার লক্ষণ প্রকাশ পাচ্ছে তাতেই খুশি ভক্তরা। তাদের আশা অসম বয়সী এই প্রেমের উপাখ্যানে খুব শীঘ্রই মিল হবে অরিন্দম নোলকের!

Back to top button