বাংলা সিরিয়াল

অভিনয় করতে চাননি হতে চেয়েছিলেন ডান্সার, অথচ সেই মল্লিকাই আজ মা মনসা থেকে শুরু করে ‘সাহেবের চিঠি’তে সাহেবের মায়ের চরিত্রে অভিনয় করে পর্দা কাঁপিয়ে তুলেছেন! নেগেটিভ থেকে তার পজেটিভ চরিত্র সবেতেই ধন্য ধন্য করছে দর্শক

টেলিভিশন ইন্ডাস্ট্রির অন্যতম জনপ্রিয় মুখ মল্লিকা ব্যানার্জী। বর্তমানে ‘সাহেবের চিঠি’ ধারাবাহিকে সাহেবের মায়ের ভূমিকায় কাজ করছেন অভিনেত্রী। তার অভিনয় ইতিমধ্যেই সকলের মন ছুঁয়ে গেছে। মল্লিকা ব্যানার্জীকে এই চরিত্রে অভিনয় করতে দেখার পর সকলেই বলছেন যে, মল্লিকা নেগেটিভের থেকে পজিটিভ চরিত্র বেশি ভালো করেন। কিছুদিন আগেই যমুনা ঢাকিতে সঙ্গীতের কাকিমার চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন এই অভিনেত্রী। ধারাবাহিকে তার চরিত্রটি ছিলো সাদা-কালো মেশানো একটি চরিত্র।

জনপ্রিয় এই অভিনেত্রী মল্লিকা ব্যানার্জী ৮-৯ বছর ধরে এই ইন্ড্রাস্ট্রিতে রয়েছেন। তিনি ‘বন্য প্রেমের গল্প’ ওয়েব সিরিজ থেকে শুরু করে বড় পর্দায় ‘curzoner kolom’, ‘আবার বছর কুড়ি পরে’ ছবিতেও কাজ করেছেন। বর্তমানে সাহেবের চিঠি ধারাবাহিকে সাহেবের স্নেহময়ী জননী চরিত্রে অভিনয় করে দর্শকদের মন জয় করা মল্লিকা, আদতে কোনদিনই অভিনেত্রী হতে চাননি তিনি একজন ক্লাসিক্যাল ডান্সার। তার নাচের স্কুলও আছে। বাচ্চাদের তিনি সেখানে নাচ শেখান। এমনকি তিনি প্রথম ডান্স ইন্ডিয়া ডান্স সুপার মমে প্রথম পার্টিসিপেট করেছিলেন সেখানে তার পারফরম্যান্স দেখে মুগ্ধ হয়ে যান মিঠুন চক্রবর্তী, থেকে শুরু করে প্রভুদেবা এমনকি শাহরুখ খান পর্যন্ত।

বেলুড়ের মেয়ে মল্লিকা তাই অভিনয় করতে চাননি বরং ক্যামেরার অ্যাসিস্ট্যান্ট হিসেবে কাজ করতে চেয়েছিলেন কিন্তু তার বন্ধু রাজশ্রী দের দৌলতে একবার সিরিয়ালে একটা ১০-১২ দিনের একটি কাজের জন্য তাকে অডিশন দিতে হয়। এরপরেই ইটিভি বাংলার সাধক বামাক্ষ্যাপাতে মা মনসার চরিত্রে কাজ পেয়ে যান তিনি।‌ চলচ্চিত্রে কোরিওগ্রাফি করতে করতেই অভিনয় জগতে প্রথম প্রবেশ ঘটে তার সাধক বামাক্ষ্যাপার মধ্যে দিয়ে। এরপর প্রথম মেন রোল পেয়েছিলেন কালার্স বাংলার সোহাগী সিদুরে, তারপর একে একে ছোট পর্দার ভক্তের ভগবান শ্রীকৃষ্ণ , জাহানারা, দীপ জ্বেলে যায় ইত্যাদিতে কাজ করেছেন।

অভিনেত্রী বর্তমানে সাহেবের চিঠি ধারাবাহিকে চরিত্রটিতে ভীষণ খুশি কারণ এতদিন তিনি নেগেটিভ চরিত্র করেছেন অথবা নেগেটিভ পজেটিভ মেলানো চরিত্র করেছেন কিন্তু এই প্রথম তিনি একটি পজিটিভ চরিত্রে কাজ করছেন। তাই এই চরিত্রটি করতে পেরে তিনি ভীষণ খুশি। অভিনেত্রী মনে করেন, তার জীবনের শেখা এখনো শেষ হয়নি অভিনয়ের পাশাপাশি তিনি এখনো শিখছেন। এই প্রসঙ্গে অভিনেত্রী একবার বলেছিলেন যে,“ যমুনা ঢাকি করার সময় স্নেহাশীষ চক্রবর্তীর কাছে আমি কম বকুনি খেয়েছি হয়তো ভালোভাবে কাজ করেছি বলে। এই ধারাবাহিক করতে করতে আমি জীবন সাথী ধারাবাহিকেও অভিনয় করেছি।” এর পাশাপাশি অভিনেত্রী আরো বলেন যে, “এক্রোপলিস থেকে স্নিগ্ধা দি, সানি, পায়েল, মৌসুমী এবং স্টার জলসা থেকে সাহেবের চিঠির জন্য আমাকে পছন্দ করেছেন। আমি ওদের কাছে সত্যিই ঋনী। এরকম একটা চরিত্রে আমাকে সিলেক্ট করার জন্য এবং দর্শক ভীষণ পছন্দ করছেন আমাকে এরকম চরিত্রে।” উল্লেখ্য, রাজশ্রী দের পরবর্তী ছবিতে একটি প্রধান ভূমিকায় কাজ করতে দেখা যাবে অভিনেত্রীকে।

Back to top button