বাংলা সিরিয়াল

চড়ুইয়ের বারোটা বাজাতে কড়া সিদ্ধান্ত লালনের! চড়ুই-এর কুকীর্তির কথা থানায় জানিয়ে এলো লালন, ফুলঝুরির সঙ্গে সম্পর্ক কোন দিকে বাঁক নেবে?

আবারো জমে উঠেছে স্টার জলসার ‘ধূলোকণা’ ধারাবাহিক। ইতিমধ্যেই নানান ঘটনাচক্রে লালনের সঙ্গে নিজের বিয়ে সেরে নিয়েছে চড়ুই। ফুলঝুরিকে ফাঁসিয়ে তাকে ভয় দেখিয়ে ঘরে বন্দি করে রেখে নিজে কনের সাজে এসে বসেছিল বিয়ের মন্ডপে। তারপর ছলে-বলে-কৌশলে ঠিকই লালনের সঙ্গে বিয়ে করে নেয়। কিন্তু নিজের স্ত্রী হিসেবে চড়ুই কে স্বীকার করতে রাজি নয় লালন। চড়ুই এর স্বভাব-চরিত্র একেবারেই ভাল লাগে না তার। সব সময় কিছু না কিছু কুবুদ্ধি এটা চলেছে চড়ুই। এবারও ফুলঝুরির ক্ষতি করতে উঠে পড়ে লেগেছে।

কিন্তু চড়ুইয়ের এই স্বভাব চরিত্র কারোরই অজানা নয়। লালনও ধীরে ধীরে অসহ্য হয়ে উঠছে। লালনকে জোর করে বিয়ে করে তার বাড়িতে এলেও শ্বশুর বাড়িতে কিছু কাজ করতেই রাজি নয় চড়ুই। তার বাপের বাড়িতে এসে তার মা আশকারাতে আরো অবাধ্য হয়ে উঠছে চড়ুই। এদিকে চড়ুই পুলিশকে অভিযোগ জানায় যে শ্বশুরবাড়িতে নাকি তার গায়ে হাত তোলা হয় তার উপর অত্যাচার করা হয়। আর সেই অনুযায়ী লালন দের বাড়িতে পুলিশ আসে। কিন্তু পুলিশ এসে তাকে এমন একজন অভিযোগ করেছে যার নামে আগে থেকেই থানায় অভিযোগ করা রয়েছে। চড়ুই এর নামের এক এক করে সব অভিযোগ করতে থাকে লালন। অন্যদিকে চড়ুইয়ের মা লালন কে হুমকি দেয় যে এই বাড়ি থেকে যেন সে আর কোনদিনও কাজ করতে না আসে। আর লালন ও জোর গলায় বলে যে তার ও এই বাড়ীতে আসার আর কোনো ইচ্ছা নেই। এই বাড়ীতে কাজ না করলেও তার দুবেলা ভাত জুটবে।

অন্যদিকে ফুলঝুরি এবং অঙ্কুরের বিয়ে ঠিক হয়ে গিয়েছে। এটা কিছুতেই মেনে নিতে পারছে না লালন। আর তার জন্যই কি এই সমস্ত ফন্দি আঁটছে সে? কিছুই বোঝা যাচ্ছেনা ধারাবাহিকের গল্প যতদিন এগোচ্ছে ততদিন কি হতে চলেছে আগামী পর্বে তা বোঝা যাচ্ছেনা।

Back to top button