বাংলা সিরিয়াল

‘গাঁজাখুড়ির‌ও একটা লিমিট আছে! মুক্তা দিদির মত বড় একটা মেয়ে কিনা স্কুলে পড়ে! অলিভিয়ার জায়গায় স্কুলে পড়ার বয়সী কোন মেয়েকে নিলে তাও মানাত’ ফের ট্রোলড গৌরী এলো ধারাবাহিক!

জি বাংলার জনপ্রিয় ধারাবাহিক গৌরী এলো। এই ধারাবাইকে কিছুদিন আগে একটি প্রমো দিয়েছে যেখানে দেখানো হচ্ছে যে মুক্তা দিদির সাথে কিছু ছেলে অসভ্যতামি করে তা দেখে এতটাই রেগে যায় গৌরী যে সে দা নিয়ে ছুটে যায় সেই ছেলেগুলির উদ্দেশ্যে সে যেন মা কালীর রূপ ধারণ করে মুহূর্তেই। এরপর ঈশান যখন তাকে থামাতে দেবাদিদেব মহাদেবের মতো তার পায়ের কাছে গিয়ে পড়ে তখন কালীর মতোই গৌরীর জিভ বেরিয়ে যায়। গৌরী এলোর এই প্রোমো নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় মারাত্মক ট্রোল শুরু হয়েছিলো।

কারণ এইভাবে একটি মেয়ের দেবী হয়ে ওঠার বিষয় হজম করতে মানুষের সময় লাগে। স্টার জলসা দুর্গা ধারাবাহিকে যেমন একটি ছায়া দুর্গার কনসেপ্ট আনা হয়েছিল যেখানে একটি মেয়ে দুর্গার শক্তিতে বলিয়ান এমনটা দেখানো হয়েছিল, কিন্তু তাকেই দুর্গা হিসেবে তুলে ধরা হয় নি যেমনটা গৌরী এলোতে হচ্ছে। এই ধারাবাহিক একদিকে ঈশান গৌরীর রোমান্স দেখানো হচ্ছে অন্যদিকে আবার ঈশান গৌরীর মধ্যে ঠাকুর দেবতার ব্যাপার স্যাপার দেখানো হচ্ছে। যা দেখে জনৈক মানুষের বক্তব্য ছিল এই যে এইভাবে ঠাকুর-দেবতা নিয়ে ছেলে খেলা করা উচিত নয়।

সম্প্রতি গৌরী এলো ধারাবাহিকের আরেকটি বিষয় নিয়ে ট্রল শুরু হয়েছে। এই ধারাবাহিকে মেজ কাকিমা মুক্তাকে যখন জিজ্ঞেস করবে তুই আজকে স্কুলে যাসনি? – এই কথাটি শুনে যারা প্রথম গৌরী এলো ধারাবাহিক দেখছেন তারা অবাক হয়ে যান!

তাদের বক্তব্য- গাঁজাখুড়িরও একটা লিমিট থাকা দরকার! মানুষের চোখে বিষয়টা বিশ্বাসযোগ্য করে তোলা দরকার। মুক্তার মত এত বড় একটা মেয়ে কে দেখে মনেই হয় না যে সে স্কুলে পড়ে অথচ তাকে স্কুল গার্লের একটি চরিত্র দেওয়া হয়েছে! নেটিজেনদের বক্তব্য এই জায়গায় তিথি বসু অথবা ঐশী ভট্টাচার্য কে নেওয়া যেতে পারত যারা সত্যি স্কুলে পড়ার বয়সি! অলিভিয়া মালাকারের মতো বড় মেয়েকে দেখলে মনেই হয় না যে সে স্কুলে পড়ে!\

Back to top button