বাংলা সিরিয়াল

‘অভিনয় জীবনে যে কটা অভিনেত্রী পেয়েছি সবাই আমার হাঁটুর বয়সী মাঝেমধ্যে ভাবি ভবিষ্যতে স্কুল খুলবো’! ১৮ বছরের ছোট মোহনার সাথে পর্দায় কেমিস্ট্রি ফুটিয়ে তোলা ঈশান ওরফে বিশ্বরূপ মুখ খুললেন ‘গৌরী এলো’র অভিজ্ঞতা সম্পর্কে!

যে কোনো ধারাবাহিকে‌ নায়ক নায়িকার মধ্যে বয়সের ডিফারেন্স একটু কম হলে বা দুজনের সমবয়সী হলে পর্দায় দুজনের কেমিস্ট্রি টা ফুটিয়ে তোলা অনেক বেশি সহজ হয়। কিন্তু সেই জায়গায় ভাগ্য বেশ খারাপ গৌরী এলো ধারাবাহিকের ঈশান অর্থাৎ বিশ্বরূপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের। গৌরী এলো ধারাবাহিকের নায়িকা, মোহনা মাইতি তার থেকে আঠারো বছরের ছোট। কীভাবে এত পার্থক্য সত্ত্বেও দুজনের কেমিস্ট্রি এত সুন্দর ভাবে পর্দায় ফুটিয়ে তোলেন বিশ্বরূপ?

বিশ্বরূপ বলেন,“ এটা এই প্রথম নয়। জানেন তো এটাই ঘটে চলেছে আমার সঙ্গে। আমার অভিনয় কেরিয়ারে যে অভিনেত্রীদেরই পাই না কেন বিপরীতে, তাঁরা বয়সে আমার থেকে অনেকটাই ছোট। হ্যাঁ এটা ঠিক, যে প্রথম প্রথম মোহনা অর্থাৎ পর্দার গৌরীকে একটু সহজ করে তুলতে বাড়তি পরিশ্রম করতে হত। ওর সঙ্গে বন্ধুত্ব করা, সম্পর্কটাকে সহজ করা প্রভৃতি। তবে মোহনা ভীষণ পরিশ্রমী মেয়ে, খুব দ্রুততার সঙ্গে সবটা শিখে নিয়েছে”

কীভাবে একসাথে কাজ করেন অভিনেতা এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “ কেমিষ্ট্রি তো ঠিক হয় না, বিষয়টা হল সম্পর্কের সরলীকরণ। যাতে চরিত্রটা খুব সহজভাবে ফুটিয়ে তোলা যায়। সেই চেষ্টাই করেছি। তবে ওই যে বললাম। বাচ্চা সামলানো আমার অভ্যাস হয়ে গিয়েছে। ভবিষ্যতে স্কুলও খুলতে পারব।”

তার কাজ , অভিনয় জগতে তার চাহিদা সম্পর্কে জিজ্ঞেস করা হলে অভিনেতা বলেন”কম বেশি সকলেই জানেন, যে আমি সম্পূর্ণ অন্য একটি সেক্টর থেকে অভিনয় জগতে এসেছি। কোনও পরিকল্পনাও ছিল না। প্রথম প্রথম কিছু বন্ধু সূত্রে যখন কাজ পাচ্ছি, তখন নিজের মনে হত, যে ঠিক করছি তো! বা আমি কী করছি! এরপর একে একে কাজ আসতে থাকে। আমিও করতে থাকি। একটা সময়ের পর তা আমার বেশ পছন্দের হয়ে যায়। আমি অভিনয়টাকে ভালবেসে ফেলি। আর এখন যেটুকু করছি সকলের সামনে, দর্শকরা ভালবাসা দিচ্ছেন। ব্যাস ভাল আছি।”

Back to top button