বাংলা সিরিয়াল

বধূ নির্যাতনের একটা সীমা থাকা উচিত ,জঘন্য সিরিয়াল, এই সিরিয়ালে সব ভিলেন পার্টি উপস্থিত হয়েছে,রাধিকাকে আবার কাঠগোড়ায় দাঁড় করাতেই দর্শকরা রেগে কাই

এই মুহূর্তে স্টার জলসার (Star Jalsha)অন্যতম জনপ্রিয় ধারাবাহিক গুলির মধ্যে অন্যতম এক্কাদোক্কা(Ekka dokka)। একেবারে অন্য ধাঁচে শুরু হয়ে এই ধারাবাহিক অল্প দিনের মধ্যেই দর্শকদের মনে জায়গা করে নিয়েছিল। তবে যত দিন যাচ্ছে ধারাবাহিককে নিয়ে দর্শকদের মনে ক্ষোভ প্রকাশ পাচ্ছে।

বিশেষ করে রাধিকার বিয়ে হয়ে আসার পর থেকে যেভাবে তার ওপর শ্বশুরবাড়ি লোকেরা নির্যাতন চালাচ্ছে তাতে বিরক্ত দর্শক। পান থেকে চুন খসলেই রাধিকাকে দোষী সাব্যস্ত করাটা একেবারেই মেনে নিতে পারছে না ধারাবাহিক প্রেমীদের একাংশ। কেউ কেউ তো একে বধূ নির্যাতনের সিরিয়াল বলে দাগিয়ে দিয়েছে।

সম্প্রতি সামনে এসেছে ধারাবাহিকের একটি পর্ব। যা দেখার পর তিতি বিরক্ত দর্শকেরা। রাধিকাকে দোষী সাব্যস্ত করার জন্য বাড়িতে পুলিশ নিয়ে এসেছে তার স্বামী পোখরাজ। এতদিন পোখরাজ পাশে থাকলেও এবার সেই রাধিকার বিপরীতে গিয়েছে।

প্রসঙ্গত নিজের বাবাকে নির্দোষ প্রমাণ করার জন্য বাড়ির লোকের অনুপস্থিতিতে রাধিকা পোখরাজের মেজ মায়ের ঘরে ঢুকেছিল যাবতীয় প্রমাণ নিতে। কিন্তু কোন কারনে বাড়ির লোক সেখানে উপস্থিত হলে রাধিকাকে গয়না চুরির দায় ফাঁসিয়ে দেয় তারা। যাবতীয় দোষ রাধিকার ঘাড়ে দিয়ে পুলিশ পর্যন্ত ডেকে আনা হয়েছে। আর সেই পর্বে দেখা গিয়েছে রাধিকাকে নিয়ে পুলিশ বাড়ি সার্চ করতে গেলে তার পেছনে বাড়ির লোকেরা পোখরাজের মাথা খেতে থাকে রাধিকাকে ডিভোর্স দেওয়ার জন্য।

আর সে সবকিছু পোখরাজ মুখ বুজে শুনেও যাচ্ছে। এসব দেখেই বেজায় বিরক্ত দর্শক। এতদিন আদর্শ স্বামী হয়ে রাধিকার পাশে দাঁড়ালেও। শেষ পর্যন্ত নিজের বাড়ির পরিচয় দিয়েই দিল পোখরাজ। এমন মন্তব্য করেছেন কেউ কেউ।

Back to top button