বাংলা সিরিয়াল

অ্যাক্সিডেন্টে পায়ের হাড় ভেঙে গুঁড়ো গুড়ো হয়ে গেছে ফড়িংয়ের! আর কি কখনো ফড়িং জিমন্যাস্টিক করতে পারবে না?

স্টার জলসার জনপ্রিয় ধারাবাহিক আলতা ফড়িং। প্রায় সময় এই ধারাবাহিক বঙ্গ সেরা ৫ ধারাবাহিকের মধ্যে থাকে এবং স্লট লিড করে। কিছুদিন ধরে এই ধারাবাহিকে একটি নতুন ট্র্যাক এসেছে যেখানে দেখানো হচ্ছে যে আম্রপালির চাল ভেস্তে নিজের স্বামী অভ্রকে বাঁচিয়ে নির্দোষ প্রমাণ করবার আপ্রাণ চেষ্টা করছে ফড়িং। এই ধারাবাহিকটির মুখ্য চরিত্র হলো ফড়িং, এই চরিত্রে যিনি অভিনয় করছেন তিনি হলেন অভিনেত্রী খেয়ালী মন্ডল।

তার চরিত্র দর্শকদের মনে আলাদা ভাবে দাগ কেটে গেছে। এই ধারাবাহিকে ফড়িং ও তার স্বামী অভ্র অর্থাৎ তার ব্যাংক বাবুর দুষ্টু মিষ্টি প্রেম ভালবাসার গল্প সকলের মনে আলাদা জায়গা করে নিয়েছে। ফড়িং এর জীবনের যাত্রায় তার ব্যাংক বাবুর অবদান ও অনস্বীকার্য। নিজের মায়ের অপমানের প্রতিশোধ নিতে, ষড়যন্ত্রকারীকে সামনে আনতে, নিজের জিমন্যাস্টিক হিসেবে ক্যারিয়র গড়ে তুলতে ফড়িং এর জীবনে অভ্রর একটা আলাদা ভূমিকা আছে।

অন্যদিকে অভ্র বিপদে পড়লেও ফড়িং ঢাল হয়ে দাঁড়ায়। কিছুদিন আগে ধারাবাহিকে দেখানো হয়েছে যে তার স্বামীর জীবনে একটা বড় সংকট এসেছে, সংকটের নাম আম্রপালি। সে চাইছে নিজের ক্ষমতার জোরে মিথ্যে ভাবে অভ্রকে ফাঁসাতে। সে মিথ্যে বদনাম দিচ্ছে যে অভ্র তাকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে তার সব থেকে বড় সর্বনাশ করেছে এবং সেই কারণে সে কোর্ট কেস করবে। কোর্ট কেস করলে অভ্র তার চাকরিটা হারিয়ে ফেলবে কিন্তু ফড়িং বলেছে সে প্রমাণ করবে যে অভ্র নির্দোষ।

এই প্রমাণ করার লড়াই লড়তে গিয়ে ফড়িং একটি অ্যাক্সিডেন্টের মুখোমুখি হয়। যেখানে ফড়িং এর পায়ের হাড় গুলো ভেঙ্গে গুঁড়ো গুঁড়ো হয়ে যায়। ফড়িংকে এখন বর্তমানে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে, সেখানে সে তার শাশুড়ি মাকে বলছে তার স্বামী ফিরে এলে সে যেন তাকে পছন্দের খাবার রান্না করে খাওয়ায়। তখন তার শাশুড়ি মা বলছে যে, ছেলেকে নয় বৌমা কেও সে খাওয়াবে। তার বৌমার পা আবার সেরে উঠবে সে আবার জিমন্যাস্টিক করবে।

তখন সেখানে উপস্থিত একজন নার্স জিজ্ঞেস করেন উনি কি জিমন্যাস্টিক করেন? কিন্তু ওনার পায়ের হাড় গুলো যেভাবে ভেঙেছে তাতে মনে হয় না উনি আর কোনদিনও জিমন্যাস্টিক করতে পারবেন। কী হবে এইবার ফড়িং এর জীবনে? সে কি আর কোনদিন আগের মতো জিমন্যাস্টিক করতে পারবে না?

Back to top button