বাংলা সিরিয়াল

অনামিকাই জিনি! লালকুঠি-র রহস্য ফাঁস করতে ধারাবাহিকে আসছে নতুন টুইস্ট! এক এক করে জট কাটছে সব রহস্যের তবে কি শেষের পথে লালকুঠি?

জি বাংলার জনপ্রিয় ধারাবাহিক লালকুঠি। টিআরপির বিচারে এখনো স্লট লিড করতে না পারলেও জনপ্রিয়তার বিচারে এই ধারাবাহিক সেরা। কারণ এই ধারাবাহিকের দুর্দান্ত গল্প। এরকম রহস্যে ঘেরা গল্প এর আগে কখনো কোন ধারাবাহিকে দেখানো হয়নি। লালকুঠিতে যেন একটার পর একটা রহস্য একটু একটু করে ডানা মেলছে আর তারপর রহস্যভেদ এবং উন্মোচন হচ্ছে।

ধারাবাহিকের সাম্প্রতিক কালে যে প্রোমো দিয়েছে, তাতে দেখা যাচ্ছে যে নতুন একটি টুইস্ট আসছে ধারাবাহিকে। কিছুদিন আগে একজন ভক্ত এই ধারাবাহিক সম্পর্কে বলে যে , ১২ বছর আগে সেই দিন লালকুঠিতে মিনিস্টার , তার বন্ধু, বিক্রমের বাবা ও মামা আগুন লাগিয়ে দেয়। যে দুজন পুড়ে মারা যায় তারা খুব সম্ভবত মহুয়ার বাবা-মা ছিল, সেই কারণেই হয়তো মহুয়া তার বাড়ির সম্বন্ধে কিছু বলতে চায় না। জিনি কোনোভাবে তার বাবা মাকে নিয়ে পালিয়ে গিয়েছিল এই কারণে তার হাত ও মুখ পুড়ে যায় এবং তাকে লন্ডনে গিয়ে কসমেটিক সার্জারি করে নতুন রূপে ফিরে আসতে হয় অনামিকা হয়ে।

এখন সম্পূর্ণ বিপরীত হয়ে জিনি প্রতিশোধ নিতে এসেছে এবং তার মুখ বদলে যাওয়ায় তাকে কেউ চিনতে পারছে না আর এখানে এসে সে একদম বিপরীত কাজকর্ম করছে, যেমন মেকআপ করা , ঝাল খাওয়া ইত্যাদি। নিজেকে সকলের কাছে আরও বেশি বিশ্বস্ত করবার জন্য সে জিনির প্রতি জেলাসি ব্যাপারটা দেখায় আর তাকে কেউ সন্দেহ করলে বলে বিক্রমের কবিতার বই ডায়েরি পড়ে সে বিক্রম ও জিনির বিষয়ে জেনেছে।

সম্প্রতি প্রোমো তে দেখা যাচ্ছে যে, বিক্রম বলছে যে সে জেনে গেছে জিনি বেঁচে আছে আর তাদের মধ্যে খানেই আছে আর এই খবরটা শুনে অনামিকা যেই ভাবে ঘাবড়ে গেলো এবং ভয় পেয়ে গেলো তাতে বোঝা যাচ্ছে যে, অনামিকাই জিনি।

Back to top button