বাংলা সিরিয়াল

লালকুঠি বাড়িতে মহুয়াই জিনি! কেন‌ মহুয়া বা রূপালীকেই জিনি হিসেবে ভাবার সন্দেহ জোরালো হচ্ছে? রহস্য সমাধানে এবার নেমে পড়লেন দর্শকরাও! সোশ্যাল মিডিয়ায় লালকুঠি রহস্য তর্জা তুঙ্গে উঠলো!

জি বাংলার সবথেকে জনপ্রিয় ধারাবাহিক হলো লালকুঠি। এই ধারাবাহিক আর পাঁচটা ধারাবাহিকের থেকে সম্পূর্ণ আলাদা তাই এই ধারাবাহিক নিয়ে ভক্তদের উন্মাদনারও শেষ নেই। বর্তমানে যেমন লাল কুঠিতে যে ট্রাক এসেছে সেখানে দেখানো হচ্ছে যে বিক্রম কে জিনি সেটা খুঁজে বেড়াচ্ছে আর তার সন্দেহে নিশানায় তিনজন অনামিকা, মহুয়া আর রূপালী

এখন একজন ভক্তের কথা অনুযায়ী, “লালকুঠি বাড়িতে কজন জিনি ঘুরে বেড়াচ্ছে সেটা ভগবানই জানে তবে অনামিকা যদি জিনি হয় সেটা বিক্রম ধরে ফেললেও হয়তো নিজে মুখে স্বীকার করবে না, ও চাইবে অনামিকাই স্বীকার করুক ও জিনি। আবার অনামিকাও কিছুতেই সেটা স্বীকার করবে না যে ও জিনি তো কি এবার বিক্রম প্ল্যান করে কাউকে জিনি সাজিয়ে অনামিকার সামনে হাজির করাতে পারে যাতে অনামিকা নকল জিনি কে দেখে react করে ওঠে!! হতেই তো পারে।”

আবার গতকালের এপিসোডে দেখা যাচ্ছে ছাতিম ফুল থেকে বিক্রম অসুস্থ হয়ে পড়লে অনামিকা সেটা সকলকে বলে আর তখন বিক্রম জিজ্ঞেস করে যে সে কি করে জানলো ছাতিম ফুলে তার অ্যালার্জি আছে এটা তো যিনি ছাড়া কেউ জানে না তখন সে মহুয়ার নাম করে। বিষয়টা দেখে একজন দর্শক মনে করছেন অনামিকা ইচ্ছাকৃত তার দিক থেকে সন্দেহের নিশানাটা মহুয়ার দিকে ঘুরিয়ে দিচ্ছে। একজন লালকুঠি ফ্যানের কথায়,“ ছাতিম ফুলে বিক্রমের এলার্জি আছে – একথা নাকি মহুয়া অনামিকাকে বলেছে!! কিন্ত মহুয়ার expression দেখে আমার মনে হচ্ছে, এখানে কোন ব‍্যাপার আছে। আচ্ছা অনামিকাই মহুয়াকে front side এ ঠেলে দিচ্ছে না তো? বিক্রম জিনির সত‍্যিটা ধরে ধরে ও ধরতে পারছে না। বিক্রমের মতো আমাদের মাথা টা ও পুরো ঘেঁটে গেছে। মহুয়া বিক্রমকে রাখি পড়িয়েছে ; জিনি হলে পড়াত না। বিক্রম কী এটা ভুলে গেল !? না কি বিক্রম অনামিকা কে উল্টো চাল দিল?”

আগামী পর্বের এপিসোডে দেখা যাচ্ছে বিক্রম সন্দেহ করছে রুপালিকে, যা নিয়ে একজন দর্শক লিখেছেন“ আগামীপর্ব:
রুপালী কে নিয়ে এবার সন্দেহ ঘনীভূত হচ্ছে বিক্রম অনামিকার মনে। এবার এটা দেখার পালা, রূপালির আসল নাম U দিয়ে এটা বলে কি অনামিকা রূপালির নামে ইচ্ছে করে সন্দেহটা জাগিয়ে দিতে চাইছে বিক্রমের মনে! ওদিকে মহুয়ার কেসটা যে কি হবে!! হয়তো বিক্রম এটা মানতে চাইবে না যে মহুয়া জিনি তাই হয়তো অনামিকা নতুন করে রূপালিকে সন্দেহর তালিকায় আনতে চাইছে যাতে বিক্রম অনামিকাকে নিয়ে কোনো সন্দেহ করার অবকাশই না পায়।”

এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভক্তদের এই আলাপ আলোচনা দেখে নেটিজেনদের এক বড় অংশের মানুষ স্বীকার করছেন যে, লালকুঠি এমন একটি রহস্য থ্রিলার যেখানে প্রত্যেকটা এপিসোড দেখে দর্শকরা পর্যন্ত রহস্যের সমাধান করতে নেমে পড়ে। দর্শকরা নিজেদেরকে লালকুঠির এক একটা সদস্য হিসেবে ভেবে নিয়েছে। তাই লালকুঠির রহস্য সমাধানে তারা নিজেরাও নেমে পড়েছে। এটাই লালকুঠির সফলতা।

Back to top button