বাংলা সিরিয়াল

খড়ি জেলে, স্ত্রী কে বাঁচাতে নিজের কাছে প্রতিজ্ঞা করলো ঋদ্ধিমান! ‘গাঁটছড়া’ ধারাবাহিকে আবারও নতুন টুইস্ট

আবার ঝড় খড়ির জীবনে। গাঁটছড়া ধারাবাহিকে আবার নতুন টুইস্ট। ধারাবাহিক প্রেমীদের কাছে স্টার জলসার গাঁটছড়া একটি অত্যন্ত জনপ্রিয় ধারাবাহিক। TRP তালিকাতেও সেই প্রমাণ আমরা বারবার পেয়েছি। ঋদ্ধিমান এবং খড়ির জুটি দর্শকদের কাছে ধীরে ধীরে প্রিয় হয়ে উঠেছে। শুধু তাই নয় এই ধারাবাহিকে নিত্যনতুন টুইস্ট এই ধারাবাহিক দেখার প্রতি দর্শকদের আরো আকৃষ্ট করে তুলেছে। ধারাবাহিক শুরুর দিকে অনেক তিক্ততা থাকলেও আস্তে আস্তে সেই তিক্ততা কেটে গেছে। ঋদ্ধি এবং খড়ির মধ্যে একটা মিষ্টি প্রেম শুরু হচ্ছে ধীরে ধীরে।

যারা এই ধারাবাহিকের রোজকার দর্শক তারা জানেন বর্তমানে ঋদ্ধি এবং খড়ি একে অপরের পাশে এসে দাঁড়াচ্ছে একে অপরের বিপদে ঝাপিয়ে পড়ছে আর এতেই দর্শক দারুণ খুশি। দুজনের মধ্যে একটা দুষ্টু মিষ্টি কেমিস্ট্রি তৈরি হচ্ছে। কিন্তু যে কোনো সম্পর্কেই বাধা-বিপত্তি আসে তাই ঋদ্ধি এবং খড়ির সম্পর্কেও বাধা-বিপত্তি কম নেই। একটা বাধা কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই অন্য আর একটা বিপদ চলে আসছে। অন্যদিকে রাহুল এবং দ্যুতি দুজনেই ঋদ্ধি, খড়ির ক্ষতি করতে উঠে পড়ে লেগেছে।

ইতিমধ্যে ধারাবাহিকে দেখানো হয়েছে খড়িকে ঋদ্ধিমানের দাদু সিংহ রায় পরিবারের লকারের চাবির দায়িত্ব দিয়েছেন এবং ঋদ্ধিমানের মা ও খড়ি কে তার যোগ্য সম্মান দিয়ে সেই দায়িত্ব তার হাতে তুলে দিয়েছেন। আর এতেই জ্বলে পুড়ে গেছে দ্যুতি। তাই সে সবসময় হীরের গয়না গুলো চুরি করার ধান্দায় রয়েছে। সেইমতো খড়ির ঘরের পেছনে পেছনে খড়ি কে ফলো করে কোথায় খড়ি চাবি রাখছে সিন্দুকের কোথায় আলমারির চাবি আছে সবটাই নজর বন্দি করে রেখেছেন এবং সময়মতো রাহুল এবং দ্যুতি সেই সিন্দুক থেকে সমস্ত গয়না সরিয়ে ফেলেছেন। পরের দিন সকালে যখন সেই গয়নাগুলো নিয়ে কথা ওঠে তখন খড়ি সিন্দুক থেকে গয়নার বাক্স গুলো নিয়ে আসে কিন্তু গয়নার বাক্স গুলো খুলে দেখে সেখানে একটাও গয়না নেই। যার ফলে সকলেই ভয় পেয়ে যায় এবং স্বাভাবিকভাবে সকলের মনে প্রশ্ন জাগে গয়না গুলো কোথায় গেলো। আর এর মধ্যেই সামনে আসা ধারাবাহিকের আগামী পর্বের ভিডিও।

ভিডিওটিতে দেখা যায় যে খড়িকে সকলে মিলে জেরা করছে। কিন্তু অন্যদিকে পুলিশ এসে ঋদ্ধিমানের দাদু কে গ্রেফতার করা হয়েছে কিন্তু খড়ি জানায় যে যেহেতু গয়নাগুলো তার দায়িত্ব ছিল এবং সেখান থেকেই হারিয়ে গিয়েছে তাই অনেকেই থানায় নিয়ে যেতে হবে। পুলিশ সেই মতোই খড়ি কে গ্রেপ্তার করে থানায় ধরে নিয়ে যায়। আর অন্যদিকে ঋদ্ধি মিটিং শেষে বাড়ি এসে যখন দেখে খড়ি নেই তখন সকলে মিলে তাকে সবটা খুলে জানায় এবং ঋদ্ধি নিজের কাছে প্রতিজ্ঞা করে যে সে খড়ি কে এই বিপদ থেকে উদ্ধার করে আনবে। স্ত্রী কে ঠিক জেল থেকে বার করে নিয়ে আসবেই এবার দেখা যাক কি করে ঋদ্ধি খড়ি কে এই বিপদ থেকে উদ্ধার করে।

Back to top button