বাংলা সিরিয়াল

ঐন্দ্রিলা শর্মার গায়ে হাত তুলতে গিয়েছিলেন জয় মুখার্জি, অনুতপ্ত হয়ে অভিনেত্রীর সুস্থতার কামনা করছেন অভিনেতা জয়

বর্তমানে টলিউডের অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলা শর্মাকে নিয়ে দুশ্চিন্তা ক্রমশ ঘন হচ্ছে। গত মঙ্গলবার রাতে মস্তিষ্কের রক্তক্ষরণ হয় অভিনেত্রীর। তখন সাথে সাথে প্রথমে শরীরের একদিকের হাত এবং পাঁচ সাত মিনিটের মধ্যে সেই সাইডের পাও অবশ হয়ে যায়। ডাক্তারদের সূত্রে জানা গিয়েছে যে অভিনেত্রীকে নিয়ে এখনো আশঙ্কার প্রহর কাটেনি। অভিনেত্রী এখনো মৃত্যুর সাথে লড়াই করছেন। টলিউডের যত অভিনেতা অভিনেত্রীরা রয়েছেন সবাই চাইছেন অভিনেত্রীর আরোগ্য।

অভিনেত্রীর অনুরাগী থেকে শুরু করে টলিপাড়ার সহ অভিনেতা-অভিনেত্রী এমনকি শত্রু মিত্র নির্বিশেষে এই একটাই প্রার্থনা সকলের। এই তালিকা থেকে বাদ পড়েননি ঐন্দ্রিলার আরেকজন সহ অভিনেতা জয় মুখার্জি। সান বাংলা সম্প্রচারিত “জিওন কাঠি” ধারাবাহীকে একসাথে কিছুদিন কাজ করেছিলেন তাঁরা। যদিও মাত্র ১০০ টি পর্বের মতো শুরু করতে পেরেছিলেন দুজনে একসাথে। কিন্তু এরপরেই অভিনেতাকে ধারাবাহিক থেকে বাদ দিয়ে দেওয়া হয়।

এর কারণ হঠাৎ এই অভিনেতা এতটা রেগে যান যে ঐন্দ্রিলার উপর আক্রমণ করেন। ২০২১ সালে “জিওন কাঠি”র শুটিং চলাকালীন তাঁদের মধ্যে এই সমস্যার সৃষ্টি হয়। জানা যায় অভিনেত্রীর গায়ে হাত তুলেছিলেন জয়। বিষয়টি থানা পুলিশ পর্যন্ত গড়িয়েছিল। যদিও এরপরেই অভিনেতাকে ধারাবাহিক থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়। তারপর থেকে টেলিভিশনের আর কোন ধারাবাহীকে দেখতে পাওয়া যায়নি অভিনেতাকে।

শোনা গিয়েছিল যে জয় শুটিং সেটে অপেক্ষা করছিলেন ঐন্দ্রিলার জন্য। অভিনেত্রী তাঁর মায়ের সাথে কথা বলতে ব্যস্ত ছিলেন। এদিকে শুটিংয়ের খানিকটা দেরি হওয়াতেই রেগে গিয়েছিলেন অভিনেতা। ঐন্দ্রিলার কারণে শুটে দেরি হওয়ায় মেজাজ হারান জয়। তাঁদের মধ্যে কথাকাটি হতে হতে বিষয়টা এই পর্যায়ে গিয়ে দাঁড়ায় যে জয় ঐন্দ্রিলার গায়ে হাত তুলতে যান। তবে তখন ধারাবাহিকের টিমের অন্যান্য সদস্যরা তাঁকে আটকে নেন।

যদিও সেসব পুরনো কোন কথাই মনে রাখতে চান না অভিনেতা। ঐন্দ্রিলার সাথে অভিনেতার এই তিক্ত অভিজ্ঞতা প্রায় এক বছর পুরোনো। সবটা ভুলে তিনি অভিনেত্রীর আরোগ্য কামনাই করেছেন। ঐন্দ্রিলার অসুস্থতার খবর শুনে এক বিশিষ্ট সংবাদ মাধ্যমকে জয় জানান, “পুরনো কথা মনে রাখতে চাই না। খুব খারাপ লাগছে খবরটা শোনার পর থেকেই। অনুতাপ হচ্ছে। তবে আমি হাসপাতালে না যেতে পারলেও প্রার্থনা করব যেন সুস্থ হয়ে ওঠে ঐন্দ্রিলা। ধারাবাহিকের শুটিং চলাকালীন কঠোর নিয়মের মধ্যে থাকতে হত ওকে। প্রায় ১০০টা পর্বের শুটিং করেছিলাম”। তিনি আরো বলেন, “হঠাৎ এক দিনের ঘটনায় সব এলোমেলো হয়ে যায়, তা ঠিকই কিন্তু ও তাড়াতাড়ি সুস্থ হয়ে উঠুক এটাই আমি চাইব। আমি নিশ্চিত শীঘ্রই সুস্থ হয়ে উঠবে”।

Back to top button