বাংলা সিরিয়াল

শোকে পাথর ঐন্দ্রিলার মা, মেয়ের স্মৃতি আঁকড়েই কাটছে দিন, দেখতে দেখতে কেটে গেল একটা সপ্তাহ, সোশ্যাল মিডিয়ায় মেয়ে এবং সব্যসাচীর একটি ছবি পোস্ট করে শোক প্রকাশ করলেন ঐন্দ্রিলার মা শিখা শর্মা

দেখতে দেখতে পেরিয়ে গেল গোটা একটা সপ্তাহ। গত রবিবার এই সময় সকলেই অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলা শর্মার অকাল মৃত্যুতে শোকাহত হয়ে পড়েছিলেন। মাত্র ২৪ বছর বয়সেই সকলকে ছেড়ে চির বিদায় নিয়েছিলেন অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলা। তার মৃত্যু শোক এখনো অব্দি কাটে উঠতে পারেনি পরিবারের লোকজন।

অভিনেত্রীর স্মৃতি আকড়ে ধরেই দিন কাটছে তাদের। নিজের ছোট মেয়ে ঐন্দ্রিলা কে হারিয়ে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন অভিনেত্রীর মা। অন্যদিকে ঐন্দ্রিলার মৃত্যুর পরেই সোশ্যাল মিডিয়া থেকে বিদায় নিয়েছেন প্রেমিক সব্যসাচী। তবে এরই মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজস্ব একাউন্ট থেকে একটি পোস্ট শেয়ার করে নিয়েছেন ঐন্দ্রিলার মা শিখা শর্মা। ঐন্দ্রিলা ও সব্যসাচীর একটি ছবি ভাগ করে নেন তিনি। সঙ্গে ক্যাপশনে লেখেন- ‘আমার সব্যর ঐন্দ্রিলা।’

এটি দুজনের অন স্ক্রিনের একটি ছবি। ২০১৭ সালের ঝুমুর ধারাবাহিকে দুজনে একসঙ্গে কাজ করেছিলেন। ছবিতে সব্যসাচী নিজের হাত দিয়ে ঐন্দ্রিলার দুটো গাল ধরে রয়েছেন। একে অপরের দিকে প্রেমের দৃষ্টিতে তাকিয়ে রয়েছেন তারা। একজন নেটিজেন দুজনের এই ছবিতে অরিজিৎ সিং এর একটি গান বসিয়ে সেটি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছেন।

সব্যসাচী বরাবরই ঐন্দ্রিলার এবং তার পরিবারের পাশে দাঁড়িয়ে ছিল। যে কটা দিন ঐন্দ্রিলা কঠিন লড়াই করেছে সে কটা দিন ঐন্দ্রিলার মানসিক সাপোর্ট হয়ে দাঁড়িয়েছিল সব্যসাচী। দ্বিতীয়বার যখন ঐন্দ্রিলার ক্যান্সার হয় তখন সব্যসাচীকে আমরা সব সময় তার পাশে দেখেছিলাম। এবার মৃত্যুর পর তার পরিবারের সব দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছে সব্যসাচী।

‘ইউয়িং সারকোমা’-র রোগী ছিলেন ঐন্দ্রিলা। এই টাইপের ক্যানসার সহজে পিছু ছাড়ে না। ২০১৫ সালে একাদশ শ্রেণীতে পড়ার সময় প্রথমবার ক্যান্সার হয় ঐন্দ্রিলার।

তারপর আবার দ্বিতীয়বার ২০২১ সালে। তারপর সুস্থ হয়ে উঠেছিলেন। কিন্তু এ বছর ১লা নভেম্বরই হঠাৎ ব্রেন স্টোকে আক্রান্ত হন। সঙ্গে সঙ্গে তাকে হাওড়ার বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। টানা কুড়ি দিনের অসম্ভব লড়াইয়ের পর অবশেষে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

Back to top button