বাংলা সিরিয়াল

“শুটিং না করলে মন ভাল থাকে না” – পর্দার জেঠিমা সোনালী চক্রবর্তীর প্রয়াণে শুটিং ফ্লোরের আড্ডার স্মৃতিচারণা করলেন মেজো মেয়ে “খড়ি” সোলাঙ্কি

আজকে সকালে আমরা জানতে পেরেছি বাংলা অভিনয় জগতের জনপ্রিয় অভিনেত্রী সোনালী চক্রবর্তীর মৃত্যু সংবাদ। নিঃসন্দেহে বাংলা অভিনয় জগতের একজন দক্ষ এবং চির পরিচিত অভিনেত্রীর প্রয়াণে শোকগ্রস্ত টলিউড। তবে সম্প্রতি অভিনেত্রীকে দেখতে পাওয়া গিয়েছিল ছোট পর্দাতে। স্টার জলসা সম্প্রচারিত জনপ্রিয় ধারাবাহিক “গাঁটছড়া” তে একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র ছিলেন। সেখানেই ধারাবাহিকের মুখ্য চরিত্র খড়ির জেঠিমার ভূমিকায় দেখতে পাওয়া গিয়েছিল সোনালী চক্রবর্তীকে।

সুতরাং খুব স্বাভাবিকভাবেই শুটিং ফ্লোরে বর্তমানের অভিনেতা অভিনেত্রীদের সাথে গল্প আড্ডা সবই হতো। খড়ির চরিত্রে অভিনয় করতে দেখতে পাওয়া গিয়েছিল অভিনেত্রী সোলাঙ্কিকে। তিনিও সোনালীর সঙ্গে শুটিং ফ্লোরে বেশ কিছু ভালো সময় কাটিয়েছেন। এক বিশিষ্ট সংবাদ মাধ্যমের তরফে অভিনেত্রীর সাথে যোগাযোগ করা হলে অভিনেত্রী বলেন, “খুবই দুঃখজনক। অনেক কথা মনে পড়ছে। শারীরিক অসুস্থতা থাকায় মাঝে মধ্যে শুটিংয়ে আসতে পারতেন না। কিন্তু যখনই আসতেন জমিয়ে দিতেন। খুব পজিটিভ ভাইব ছিল তাঁর চেহারায়। আমাকে বলত, শুটিং না করলে মন ভাল থাকে না। সত্যিই অসুস্থতার সঙ্গে লড়াই করছিলেন তিনি। ওঁর লড়াই অনুপ্রেরণা দেয়। শুটিংয়ের ফাঁকে অনেক গল্প করতাম। সব কিছুই মনে পড়ছে”।

অভিনেত্রী সোনালি চক্রবর্তীর প্রয়াণে দুঃখ প্রকাশ করেছেন রান্নাঘরের সঞ্চালিকা সুদীপা চক্রবর্তীও। সোশ্যাল মিডিয়াতে লেখেন, “সোনালী দি…বিদায় অনেক পুরনো সব স্মৃতি !! ‘ নাচনি ‘– টিভি সিরিয়াল…আমি তখন ক্লাস সিক্সে। প্রথম দেখেছি তোমাকে। অভিনয় করেছি তোমার পাশে দাঁড়িয়ে। কি সুন্দর দেখতে !! হাঁ করে দেখতাম। তোমার অত লম্বা চেহারা, টানা টানা চোখ, ছবি আঁকা র মত সুন্দর ভ্রু, একগাল হাসি, সুন্দর নাচতে ও….….মনে থাকবে তোমাকে। শেষ তোমার ছবি দেখলাম কালীপুজোর দিন বাজি পোড়ানোর.. শঙ্কর দাই পোস্ট করেছিলেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। না, ওই চেহারাটা মনে রাখতে চাই না। সেই নাচনির সময়কার মুখটা আর পরবর্তী কালে আরও কত কত বার দেখা মুখ টাই মনে রাখতে চাই। অনেক কষ্ট পেয়েছ। শরীর বাধ সাধলে কি বা করার থাকে আমাদের ? শঙ্কর দা আর সাজি অনেক চেষ্টা করেছে জানি। খবর পেতাম। ওদের দুজনকে সান্ত্বনা দেবার ভাষা নেই। চির শান্তিতে ঘুমাও সোনালী দি”।

অভিনেত্রীর স্বামী শংকর চক্রবর্তীর সঙ্গে কথা বলা হলে কথা বলতে বলতে কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি। জানা গিয়েছে চলতি বছরের দীপাবলিতেও বাড়ির সকলের সঙ্গে প্রদীপ জ্বালিয়ে দীপাবলি পালন করেছিলেন। তারপর এই অসুস্থ হয়ে পড়েন। সাথে সাথেই তাঁকে কলকাতার একটি বেসরকারি নার্সিংহোমে ভর্তি করানো হয়। এর আগেও বহুবার যকৃতের সমস্যা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়েছিল সোনালীকে। এবারেও সেই কারণেই ভর্তি হন কিন্তু অন্য বারের মতো এইবারে লড়াইয়ে জয়ী হতে পারেননি। সোমবারই হাসপাতালেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

প্রসঙ্গত, অভিনেত্রী শুধু যে ধারাবাহিকে অভিনয় করতেন তা কিন্তু নয়। ছোট পর্দা থেকে বড় পর্দা সর্বত্র অবাধ বিচরণ ছিল তাঁর। কয়েক দশক ধরে যুক্ত ছিলেন অভিনয় জগতের সাথে। শংকর চক্রবর্তীর সাথে তিনি শুধু জীবনসঙ্গী আর ক্যামেরার সামনে দাঁড়ানোর সঙ্গী নন। নাটকের মঞ্চেরও সঙ্গিনী। সাথেই ছিলেন বন্ধুও। খুব স্বাভাবিকভাবেই স্বামী, বন্ধু এবং সহ অভিনেতা ভেঙ্গে পড়েছেন। সোশ্যাল মিডিয়াতে শংকর চক্রবর্তী লেখেন, “ভরা থাক স্মৃতিসুধায়”।

Back to top button