দলের বিরুদ্ধে সুর চড়ানোয় এবার TMC থেকে বহিষ্কার করা হল পুরুলিয়া জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক গৌতম রায়কে

নির্বাচন এগিয়ে আসার সাথে সাথেই সমস্যা বাড়ছে শাসকদলের অভ্যন্তরে৷ দলের যোগ্য সৈনিক শুভেন্দু অধিকারী করেছেন পদত্যাগ৷ একে একে অতীন ঘোষ,ব্যারাকপুরের বিধায়ক শীলভদ্র,বনমন্ত্রী রাজীব বন্দোপাধ্যায়ের গলায় শোনা যাচ্ছে দলবিরোধী সুর৷ গত সপ্তাহেই শুভেন্দুর সমর্থনে দাদার অনুগামীদের পোস্টার দেখা গিয়েছিল দক্ষিণ কলকাতার কয়েকটি জায়গায়৷ এরপর উত্তর কলকাতায় দেখা যায় রাজীব বন্দোপাধ্যায়ের সমর্থনে পোস্টার৷

এমনকি আজ গতকাল পশ্চিম বর্ধমানে দুর্গাপুরের ২৭নম্বর ওয়ার্ডের নানান জায়গায় এবার পোস্টার দেখা গেল পূর্ব বর্ধমানের তৃণমূল সাংসদ সুনীল মণ্ডলের সমর্থনে৷ সেখানে লেখা — “সুনীলদা আমরা শুভেন্দুদার সাথে তোমাকেও চাই৷” এরই মধ্যে দলের বিরুদ্ধে মুখ খোলার জন্য পুরুলিয়া তৃণমূল জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক গৌতম রায়কে বহিষ্কার করল পুরুলিয়া জেলার নেতৃত্ব৷

শুভেন্দুর পদত্যাগের পর থেকেই দাদার অনুগামী দলকে নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন গৌতমবাবু৷ সূত্রের খবর,শুভেন্দুর ঘনিষ্ঠ হওয়ার কারণেই হয়তো তাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হল৷ দলের সিদ্ধান্ত শুনে গৌতম রায়ের বক্তব্য যেদিন থেকে মমতা বন্দোপাধ্যায় দিদি থেকে পিসিমা হয়েছেন সেদিন থেকেই দল ভাঙতে শুরু করেছে৷ তিনি দলের বিরুদ্ধে আরও ক্ষোভ উগড়ে দিয়ে বলেন যে তৃণমূল দলটাই এখন গরুচোর,কয়লা চোর আর সোনাচোরদের দল৷

এর পাশাপাশি অন্যান্য তৃণমূল নেতৃত্বও একেরপর এক দলের বিরুদ্ধে অসন্তোষ প্রকাশ করছেন সরাসরি৷ সামনের সারির নেতৃত্বের মধ্যে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন বিধায়ক মিহির গোস্বামী৷ শীলভদ্রও জানিয়েছেন যে তিনি ভোটে দাঁড়াচ্ছেন না৷ বেসুরো রাজীবও৷ অন্যদিকে সুনীল মণ্ডলের সমর্থনে পোস্টার সম্পর্কে তার বক্তব্য জানতে চাইলে তিনি বলেন,পোস্টারগুলো সব পাবলিকই লাগাচ্ছে,তাদের আটকানো সম্ভব নয়,দলের বিরুদ্ধে জমে থাকা ক্ষোভেরই বহিঃপ্রকাশ এই পোস্টারগুলো৷ তবে তৃণমূলের অভ্যন্তরে যে নেতৃত্বের একাংশের দল সম্পর্কে বিরুদ্ধতা ,তা স্পষ্ট৷ তবে পোস্টারগুলো সব বিজেপির কার্যকলাপ বলেও দাবী অনেকের৷ বিজেপি অবশ্য অস্বীকার করেছে এই অভিযোগ৷ পূর্ব বর্ধমানের বিজেপির সহ সভাপতি কটাক্ষ করে বলেছেন যে “শুধু সুনীল কেন,দলের অনেকেরই ক্ষোভ,পিসি ভাইপো লিমিটেড কম্পানি,একে একে সব ক্ষোভ বেরিয়ে আসছে৷”

এরই মধ্যে বর্ধমান শহরের বিভিন্ন জায়গা জুড়ে এবার দেখা গেল শুভেন্দুর সমর্থনে দাদার অনুগামীদের পোস্টার৷ তবে এবার শুভেন্দুর ফ্যান ক্লাবের তরফে পোস্টারিং করা হয়েছে ৷ পোস্টারে রয়েছে রবীন্দ্রনাথের কবিতার পংক্তিও৷ শুভেন্দু নিরাপত্তারক্ষী ছেড়ে দিয়েছেন,এমতাবস্থায় তার নিরাপত্তা নিয়েও চিন্তিত অনুগামীরা৷ এদিন তারা রাস্তায় মাস্ক আর স্যানিটাইজারও বিতরণ করেন মেমারির রসুলপুরে৷ ভোট এগিয়ে আসার সাথে সাথেই পাল্লা দিয়ে বাড়ছে তৃণমূল নেতৃত্বদের নিয়ে জল্পনা৷ চিন্তার পারধ চড়ছে শাসকদলে৷